শ্রাবন্তীকে হত্যার পর আত্মহত্যা বলে প্রচার করেছে স্বামী

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি পিরোজপুর
প্রকাশিত: ০২:৫০ পিএম, ২২ এপ্রিল ২০১৯

পিরোজপুরের ইন্দুরকানী উপজেলা সদরে স্ত্রী শ্রাবন্তী মন্ডলকে হত্যা করে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে স্বামী বিজন মন্ডলের বিরুদ্ধে। নিহত শ্রাবন্তীর বাবা গণেশ চন্দ্র ঢালী সোমবার পিরোজপুর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন।

খুলনার বাগমারা এলাকার কাঠ মিস্ত্রি গণেশ চন্দ্র বলেন, ২০১৭ সালের ৩০ জুন তার মেয়ের সঙ্গে দক্ষিণ ইন্দুরকানী গ্রামের মিউজিক মাস্টার বিজনের বিয়ে হয়। বিয়ের পরে জামাই যৌতুক চাইলে প্রথমে ৭০ হাজার টাকায় একটি মোটরসাইকেল কিনে দেয়া হয়। পরে আরও চার লাখ টাকা দাবি করলে তা দেয়ার সামর্থ্য নেই জানালে বিজন শ্রাবন্তীর ওপর নির্যাতন চালাতে থাকে। একপর্যায়ে গত ৭ এপ্রিল তাকে হত্যা করে। খুলনা থেকে খবর পেয়ে গণেশ চন্দ্র ইন্দুরকানী থানায় এসে দেখতে পান মেয়ের মরদেহ পুলিশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে নিয়ে যাচ্ছে। পরে তিনি জানতে পারেন পুলিশ গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যার ঘটনা দেখিয়ে একটি অপমৃত্যু মামলা রুজু করেছে। তিনি পুলিশের বিরুদ্ধে প্রকৃত ঘটনা আড়াল করার অভিযোগ করে তার মেয়ে হত্যার বিচার দাবি করেন।

এ ব্যাপারে ইন্দুরকানী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুর রহমান বলেন, শ্রাবন্তীর মৃত্যুর ঘটনায় অপমৃত্যুর মামলা নিয়ে মরদেহের ময়নাতদন্ত করা হয়েছে। তদন্ত রিপোর্ট পাওয়ার পর পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

উল্লেখ্য, বিজন শ্রাবন্তীর দ্বিতীয় স্বামী এবং শ্রাবন্তী বিজনের তৃতীয় স্ত্রী। শ্রাবন্তীর সাবেক স্বামীর ঘরের ৮ বছরের একটি মেয়ে রয়েছে।

আরএআর/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :