বান্দরবানে আওয়ামী লীগ নেতাকে অপহরণের অভিযোগ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি বান্দরবান
প্রকাশিত: ০৪:৩১ এএম, ২৩ মে ২০১৯

বান্দরবান সদর উপজেলার উজিপাড়া থেকে চথোয়াই মং মার্মা নামে এক আওয়ামী লীগ নেতাকে অপহরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা। চথোয়াই মং মার্মা পৌর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি এবং বান্দরবান পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের সাবেক কমিশনার।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে বান্দরবান সদর ইউনিয়নে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও আওয়ামী লীগ নেতারা জানিয়েছেন, বুধবার রাতে মোটরসাইকেলযোগে উজিপাড়ার নিজবাগান বাড়িতে যাওয়ার মাঝপথে অপহরণের শিকার হন চথোয়াই মং মার্মা। তাকে ছয়জনের একটি সন্ত্রাসী দল অস্ত্রের মুখে নিয়ে যায় বলে জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

এ ঘটনার প্রতিবাদে রাত সাড়ে ১০টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগ বিক্ষোভ মিছিল বের করে। মিছিলটি শহরের প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে বঙ্গবন্ধু মঞ্চে এসে শেষ হয়। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ক্যশৈহ্লা, সাধারণ সম্পাদক ইসলাম বেবী, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লক্ষ্মীপদ দাশসহ সহযোগী সংগঠনের নেতারা বক্তব্য রাখেন।

বান্দরবান জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ক্যশৈহ্লা মার্মা বলেন, আমরা নির্যাতিত হচ্ছি। পাড়ায়-পাড়ায় আমাদের নেতাকর্মীরা নির্যাতিত হচ্ছেন। কীভাবে জবাব দিতে হয় আমরা জানি।

বান্দরবান সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শহিদুল ইসলাম বলেন, আওয়ামী লীগ নেতাকে অপহরণের বিষয়টি আমরা জেনেছি। তাকে উদ্ধারে এরই মধ্যে পুলিশের একটি টিম কাজ করছে।

উল্লেখ্য, গত ৭ মে বান্দরবানে সন্ত্রাসীদের গুলিতে বিনয় তঞ্চঙ্গ্যা (৩১) নামে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) এক কর্মী নিহত হন। এ ঘটনায় পুরাধন তঞ্চঙ্গ্যা (৩২) নামে একজনকে অপহরণ করা হয়। পুরাধনকে এখনও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।

এছাড়াও গত ৯ মে জেলার কুহালং ইউনিয়নে জয়মনি তঞ্চঙ্গ্যা নামে জেএসএসের আরও এক সমর্থককে গুলি হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। ১৯ মে বান্দরবানের রাজবিলা ইউনিয়নে ক্য চিং থোয়াই নামে একজনকে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। ক্য চিং থোয়াই মারমা রাজবিলা ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সদস্য ছিলেন।

এদিকে মিয়ানমার সীমান্তে সক্রিয় আরাকান লিবারেশন পার্টির একটি দলছুট অংশ বান্দরবানের রাজবিলা ও কুহালং এলাকায় তৎপরতা চালাচ্ছে বলে স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ। ওই সন্ত্রাসী গ্রুপটি নিজেদের ‘মগ পার্টি’ নামে পরিচয় দেয়।

সম্প্রতি রাঙামাটির রাজস্থলীতে একটি ঘটনার জের ধরে জেএসএসের সঙ্গে মগ পার্টির বিরোধের সূত্রপাত হয়। ওই ঘটনার পাল্টা-পাল্টি হিসেবে খুন এবং অপহরণের ঘটনা ঘটছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

সৈকত দাশ/বিএ

আপনার মতামত লিখুন :