রোববারের ট্রেন ছেড়েছে সোমবার

উপজেলা প্রতিনিধি উপজেলা প্রতিনিধি ঈশ্বরদী (পাবনা)
প্রকাশিত: ০৪:০৯ পিএম, ১৯ আগস্ট ২০১৯

ঈদ শেষ হলেও সময়মতো চলাচল করছে না রেলওয়ের পাকশী বিভাগের আওতাধীন কোনো ট্রেন। ঈদ শেষে কর্মস্থলে ফেরার সময় দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে ট্রেন যাত্রীদের। ভেঙে পড়েছে ট্রেনের সময়সূচি।

কোনো কোনো ট্রেন চার থেকে সাত ঘণ্টা পর্যন্ত দেরিতে যাতায়াত করছে। ফলে ঈদের আগে বাড়ি আসতে যেমন ছিল ভোগান্তি, আবার কর্মস্থলে ফিরতেও একই দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে ট্রেন যাত্রীদের। ঈদের পর থেকে রেলের পাকশী বিভাগের ঢাকাগামী সব ট্রেনের সিডিউল বিপর্যয়ে নাজেহাল হয়ে পড়েছে ট্রেন যাত্রীরা।

খুলনা থেকে ঈশ্বরদী হয়ে ঢাকাগামী আন্তঃনগর চিত্রা এক্সপ্রেস ও আন্তঃনগর সুন্দরবন এক্সপ্রেস ট্রেন গত কয়েক দিনের মতো সোমবারও ছয় ঘণ্টা বিলম্বে ছেড়েছে। রোববার রাত ১২টা ৩০ মিনিটের সুন্দরবন এক্সপ্রেস সোমবার সকালে ঈশ্বরদী থেকে ছেড়ে গেছে।

একইভাবে রাজশাহী থেকে ঈশ্বরদী বাইপাস স্টেশন হয়ে ঢাকাগামী আন্তঃনগর পদ্মা এক্সপ্রেস, সিল্কসিটি এক্সপ্রেস, ধূমকেতু এক্সপ্রেসসহ সব ট্রেন সিডিউল বিপর্যয়ে পড়েছে। রোববার রাত ১২টার ধূমকেতু এক্সপ্রেস ট্রেন সাত ঘণ্টা বিলম্বে সোমবার সকাল ৭টায় ছেড়ে গেছে ঈশ্বরদী বাইপাস স্টেশন থেকে। রোববার বন্ধের দিন সিল্কসিটি ট্রেনও চলেছে ছয় ঘণ্টা বিলম্বে।

পশ্চিমাঞ্চলের পাকশী বিভাগের প্রায় অর্ধশত ট্রেনের যাত্রীরা বাড়ি যেতে পথে পথে ঘণ্টার পর ঘণ্টা নাজেহাল হয়েছিলেন। ঈদের ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফিরতেও মানুষের ভোগান্তির শেষ নেই। পশ্চিমাঞ্চল রেলের পাকশী বিভাগে ঢাকা, রাজশাহী, খুলনা, চিলাহাটি, লালমনিরহাট, পঞ্চগড়সহ বিভিন্ন রুটে চলাচলরত ২৪ জোড়া ট্রেনের মধ্যে প্রায় সবই প্রতিদিন ঘণ্টার পর ঘণ্টা আটকে থাকছে বিভিন্ন স্থানে। এ দুর্ভোগ থেকে পরিত্রাণেরও কোনো উপায় বের করতে পারছেন না রেলের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

ঈশ্বরদীর পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে অফিসে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সম্প্রতি পশ্চিমাঞ্চল রেলের পাকশী বিভাগের একই রেলপথে তিন জোড়া অর্থাৎ, আপ-ডাউনে ছয়টি নতুন ট্রেন চলাচল করার কারণে ট্রেনের সিডিউল ঠিক রাখা যাচ্ছে না। নতুন রেলপথ স্থাপন না করে নতুন নতুন ট্রেন চালু করায় ট্রেন চলাচলের আগের সময়সূচির সঙ্গে নতুন ট্রেনগুলোর সময়সূচি যোগ করার ফলে সিডিউল ঠিক রাখা সম্ভব হচ্ছে না।

পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) আব্দুল্লাহ-আল-মামুন বলেন, নতুন নতুন ট্রেন চালু করা হলেও নতুন রেলপথ বাড়ানো হয়নি। এতগুলো ট্রেন এক লাইনে চলাচল করার কারণে সিডিউল ঠিক রাখা যাচ্ছে না। বর্তমানে প্রতিদিন ঈশ্বরদী-ঢাকা রুটে ৪৮টি ট্রেন চলাচল করছে।

আলাউদ্দিন আহমেদ/এএম/এমকেএইচ