বাড়ির পাশের ডোবায় মিলল শিশুর মরদেহ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কুমিল্লা
প্রকাশিত: ০১:৫০ এএম, ২০ অক্টোবর ২০১৯

কুমিল্লায় মেহেদী হাসান রিফাত (১০) নামে এক শিশুকে হত্যা করে বাড়ির পাশের ডোবার কচুরিপানার ভেতর ফেলে গেছে দুর্বৃত্তরা। হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

শনিবার (১৯ অক্টোবর) রাতে কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের চম্পকনগর এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে।

রিফাত চম্পকনগর গ্রামের প্রবাসী আলমগীর হোসেনের ছেলে। সে স্থানীয় নর্থ-সাউথ চাইল্ড কিন্ডার গার্টেনের তৃতীয় শ্রেণিতে পড়তো। কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ারুল হক হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

রিফাতের মা জেসমিন আক্তার জানান, শনিবার সন্ধ্যায় পার্শ্ববর্তী বাড়ির বিউটি আক্তার নামে এক নারীর বাসায় প্রাইভেট পড়তে গিয়েছিল রিফাত। কিন্তু প্রাইভেট পড়া শেষে সে বাড়ি না ফেরায় শিক্ষকের মোবাইলে কল দিয়ে জানতে পারি রিফাত সন্ধ্যা সাতটার দিকে বাড়ির উদ্দেশ্যে চলে এসেছে। পরবর্তীতে তার খোঁজ না পেয়ে পরিবারের লোকজন খোঁজাখুঁজি শুরু করে। এক পর্যায়ে বাড়ির পাশে পরিত্যক্ত ডোবার কচুরিপানার ভেতরে রক্তাক্ত অবস্থায় তার মরদেহ পাওয়া যায়। উদ্ধার করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত রিফাতের মা আরও জানান, কিছুদিন আগে তার বাড়ি থেকে কিছু জিনিসপত্র চুরি হয়। ওই এলাকার বাসিন্দা হৃদয় নামে এক যুবকসহ কয়েকজনকে সন্দেহ করে তিনি জিনিস উদ্ধারের জন্য চাপ দেন। এ নিয়ে তাদের সাথে রিফাতের পরিবারের বিরোধ সৃষ্টি হয়। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে শিশু রিফাতকে হত্যা করা হয়েছে বলে ধারণা করছেন স্বজনরা।

কোতয়ালী মডেল থানার ওসি আনোয়ারুল হক বলেন, শিশুটিকে শ্বাসরোধ বা গলায় আঘাত করে হত্যা করা হয়েছে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তার গলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। রিফাতের মরদেহ কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রয়েছে। সন্দেহজনকভাবে একজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। খুব দ্রুতই হত্যাকাণ্ডের কারণ ও কারা জড়িত তা বের করা হবে।

মো. কামাল উদ্দিন/এমএসএইচ