মাদক নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে প্রাণ গেল পথচারীর

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি চাঁদপুর
প্রকাশিত: ১২:০৫ পিএম, ৩০ জুন ২০২০

চাঁদপুর শহরের পুরান বাজারে মাদক নিয়ে দু’পক্ষের সংঘর্ষে শামিম গাজী (১৮) নামের এক যুবক নিহত হয়েছেন। সোমবার রাত সাড়ে ৮টায় পুরানবাজার মেরকাটিজ রোডে এ সংঘর্ষ হয়।

সংঘর্ষ চলাকালীন পথচারী শামিমের মাথায় ও ঘাড়ে ইটের আঘাত লাগে। বাড়িতে প্রাথমিক চিকিৎসার পর শামিম অতিরিক্ত বমি করলে তাকে চাঁদপুর সদর হাসপাতালে নেয়া হয়। সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক শামীমের অবস্থার অবনতি দেখে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার করেন। মঙ্গলবার সকাল ৬টায় শামিম চিকিৎসাধীন অবস্থায় ঢাকা মেডিকেলে মারা যান বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

এলাকাবাসী জানান, সোমবার বিকেলে মধ্য শ্রীরামদী কবরস্থান রোড এলাকার কালু ও আবুল মেরকাটিজ রোডে মাদক কিনতে এলে এলাকার যুব সমাজ তাদের মারধর করে। এ মারধরের ঘটনার সূত্র ধরে পুরানবাজার ২নং ওয়ার্ডের কবরস্থান রোডের প্রায় ২শ লোক সন্ধ্যার পর মেরকাটিজ রোডে এসে হামলা করে। এ সময় দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মেরকাটিজ রোডের প্রায় ১০টি দোকান ও গ্যারেজে থাকা ৫টি অটো ভাংচুর, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের নগদ টাকা ও মালামাল লুটপাটের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের প্রায় অর্ধশতাধিক লোক আহত হয়।

সংঘর্ষের ঘটনা পুরান বাজার পুলিশ ফাঁড়ি নিয়ন্ত্রণ করতে না পারায় চাঁদপুর মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

নিহত শামিমের বড় ভাই মিলন গাজী বলেন, আমার ভাই কাজ করে বাড়ি আসছিল। সে কোনো ঝগড়া বিবাদে ছিল না। তার ঘাড়ে ও মাথায় ইটের আঘাত লাগে। সদর হাসপাতাল থেকে ঢাকা মেডিকেলে রেফার করলে আজ মঙ্গলবার সকালে ঢাকা মেডিকেলে সে মারা যায়।

পুরানবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মাসুদ জানান, দু’গ্রুপের সংঘর্ষ নিয়ন্ত্রণে ১০ রাউন্ড শটগানের গুলি নিক্ষেপ করা হয়েছে। পুলিশ অভিযান চালিয়ে অপরাধীদের ধরার চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে।

চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. জাহেদ পারভেজ চৌধুরী জানান, ঘটনার পর থেকে পুলিশ ওই স্থানে অবস্থান করছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি নিক্ষেপ করে। বর্তমানে ওই এলাকা পুলিশের নিয়ন্ত্রণে।

ইকরাম চৌধুরী/এফএ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]