৮ দিনের ব্যবধানে আবারও ডোবাচ্ছে যমুনা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি সিরাজগঞ্জ
প্রকাশিত: ০১:৪৪ পিএম, ১৩ জুলাই ২০২০

উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও টানা বর্ষণে যমুনা নদীর পানি আবারও বাড়তে শুরু করেছে। ৮ দিনের ব্যবধানে কাজীপুর ও সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে দ্বিতীয়বারের মতো পানি বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে। ফলে আবারও প্লাবিত হচ্ছে নিম্নাঞ্চল। দ্বিতীয় দফায় তলিয়ে গেছে চরাঞ্চলের ফসলি জমি। পানি উঠতে শুরু করেছে বাড়িঘরে।

সোমবার (১৩ জুলাই) ভোরে সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে যমুনার পানি ১৩ দশমিক ৩৮ ও কাজীপুর পয়েন্টে ১৫ দশমিক ৫১ মিটার রেকর্ড করা হয়েছে।

পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় যমুনার অভ্যন্তরীণ চারঞ্চলগুলো দ্বিতীয় দফায় প্লাবিত হচ্ছে। আবারও বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে জেলার ৫টি উপজেলার ৩৫টি ইউনিয়নের মানুষ। ইতোমধ্যে বিপদৎসীমা অতিক্রম করায় ভয়াবহ বন্যা আতঙ্ক বিরাজ করছে চরাঞ্চলের মানুষের মধ্যে।

jagonews24

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী এ কে এম রফিকুল ইসলাম জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় কাজীপুর পয়েন্টে ৩১ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার (১৫.২৫ মিটার) ২৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে পানি। অপরদিকে সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে ২০ সেন্টিমিটার বৃদ্ধি পেয়ে বিপৎসীমার (১৩.৩৫ মিটার) ২০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, আগামী ৭২ ঘণ্টা যমুনায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছে বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

এর আগে জুন মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে যমুনা নদীতে পানি বাড়তে শুরু করে। জুনের শেষে সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে বিপৎসীমার ৪৬ সেন্টিমিটার ও কাজীপুর পয়েন্টে ৭০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হয়। ২ জুলাই থেকে টানা ৯ দিন পানি কমার পর ১০ জুলাই থেকে ফের বাড়তে শুরু করেছে।

jagonews24

সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার মেছড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল মজিদ ও রতরকান্দি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন জানান, কয়েকদিন আগে প্রথম দফা বন্যা শুরু হয়। সেই পানি নামতে না নামতে ফের বাড়ছে যমুনার পানি। সেই সঙ্গে দ্বিতীয়বারের মতো বন্যায় প্লাবিত হচ্ছে চরের বাড়িঘর। ইতোমধ্যেই অনেক বাড়িঘর, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্লাবিত হয়েছে বলে জানান এই দুই জনপ্রতিনিধি।

ইউসুফ দেওয়ান রাজু/এফএ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]