টাকা ছাড়া মার্কশিট-প্রশংসাপত্র দিচ্ছেন না প্রধান শিক্ষক

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি পাবনা
প্রকাশিত: ০৯:৩৮ এএম, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২০

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় সদ্য কলেজে ভর্তির সুযোগ পাওয়া শিক্ষার্থীরা মার্কশিট ও প্রশংসাপত্র তুলতে গিয়ে শিক্ষকদের কাছে হয়রানির শিকার হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। জনপ্রতি ২০০-৩০০ টাকা না দিলে মার্কশিট-প্রশংসাপত্র দেয়া হচ্ছে না। এ ঘটনায় উপজেলার দিলপাশার ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের ভুক্তভোগী ছয় শিক্ষার্থী বৃহস্পতিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার (ইউএনও) কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছে। তারা ইউএনওর কাছে প্রশংসাপত্র ও মার্কশিট প্রদানে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়েছে।

২০১৯ সালে দিলপাশার ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে সুরুজ, মেহেদী হাসান, স্বাধীন, মিজান, রাজিব ও জনি নামে ছয় শিক্ষার্থী ইউএনওর কাছে লিখিত অভিযোগ করেছে। তারা অভিযোগে জানিয়েছে, টাকা ছাড়া মার্কশিট ও প্রশংসাপত্র আনতে গেলে প্রধান শিক্ষক দেন না। তাদের দিনের পর দিন ঘোরাচ্ছেন প্রধান শিক্ষক।

এক শিক্ষার্থী জানায়, কলেজে ভর্তির সুযোগ পেয়ে মার্কশিট ও প্রশংসাপত্রের জন্য সে বিদ্যালয়ে যায়। এ সময় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আফসার আলী রানা তার কাছ থেকে ৩০০ টাকা আদায় করেন। টাকার রসিদ চাইলে উল্টো ‘বেয়াদব’ বলে বকা দেন তিনি। এ নিয়ে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন অভিভাবক জানান, করোনাকালে আর্থিক সঙ্কট থাকলেও বাধ্য হয়ে প্রধান শিক্ষকের কথা মতো টাকা দিয়ে সন্তানদের মার্কশিট ও প্রশংসাপত্র নিয়েছি।

এ বিষয়ে জানতে দিলপাশার ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আফসার আলী রানার মুঠোফোনে বার বার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

ভাঙ্গুড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সাইফুল আলম বলেন, বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে মার্কশিট ও প্রশংসাপত্র বিতরণে টাকা নেয়ার বিষয়টি তিনি শুনেছেন। বিষয়টি ইউএনওর সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

ভাঙ্গুড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সৈয়দ আশরাফুজ্জামান জানান, তার কাছে কয়েকজন শিক্ষার্থী অভিযোগ দিয়েছে। তিনি এ বিষয়ে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেবেন।

আরএআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]