সেই রইচউদ্দীনকে ঘর আর ভ্যান দেবেন ডিসি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি সাতক্ষীরা
প্রকাশিত: ০৪:২৮ পিএম, ২১ অক্টোবর ২০২০

বয়সের ভারে এখন ক্লান্ত রইচউদ্দীন। দিনমজুরের কাজ করতে করতে কোমর আর পায়ে ব্যথা। তবুও কাজ না করলে জ্বলবে না বাড়ির চুলা। তাই নিরূপায় হয়ে প্রতিদিন ভোর হলেই ছুটতে হয় কাজের সন্ধানে।

এভাবেই চলছে সাতক্ষীরা সদরের শিবপুর ইউনিয়নের খানপুর গ্রামের ৭০ বছর বয়সী রইচউদ্দীনের জীবন। ঘটনাটি নিয়ে জাগো নিউজে সংবাদ প্রকাশের পর রইচউদ্দীনের জীবন পাল্টাতে শুরু করেছে।

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল রইচউদ্দীনকে এটি মানসম্মত ঘর ও একটি ভ্যান দেবেন বলে ঘোষণা দিয়েছেন। বুধবার দুপুরে তার কার্যালয়ে এ ঘোষণা দেন তিনি।

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল বলেন, দিনমজুর রইচউদ্দীনকে এক লাখ ৭১ হাজার টাকা মূল্যের একটি মানসম্মত ঘর ও তার বড় ছেলেকে চালানোর জন্য একটি ভ্যান ক্রয় করে দেয়া হবে। শেষ বয়সে যেন বৃদ্ধ মানুষটি পরিবার নিয়ে ভালোভাবে থাকতে পারেন সেজন্যই এ উদ্যোগ।

দিনমজুর রইচউদ্দীন সরদার বলেন, ‘আমি ডিসি স্যারের ওপর খুব খুশি হয়েছি। স্যার আমার কথা শুনেছেন। যেখানে চেয়ারম্যান-মেম্বাররাই কেউ শোনেননি। স্যার আমাকে ঘর ও ভ্যান দেবেন বলেছেন। চাওয়ার থেকে বেশি পেয়েছি। আমি এটা স্বপ্নেও ভাবিনি।’

Roisuddin-(2).jpg

রইচউদ্দীনের জীবন কাহিনি নিয়ে গত ১৪ অক্টোবর জাগো নিউজে এখন আর কেউ কাজে নিতে চায় না দিনমজুর রইচউদ্দীনকে! শিরোনামে সংবাদ প্রকাশ হয়। এরপর বিভিন্ন হৃদয়বান মানুষ রইচউদ্দীনের জন্য জাগো নিউজের সাতক্ষীরা প্রতিনিধির কাছে ১৪ হাজার টাকা সহায়তা পাঠান।

রইচউদ্দীন সরদার এখন সাতক্ষীরা সদর উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের খানপুর গ্রামের বাসিন্দা। স্ত্রী, তিন ছেলে, এক মেয়ে ও এক নাতিকে নিয়ে তার সংসার।

রইচউদ্দীনের বাড়ি সদরের আগরদাড়ি ইউনিয়নের নেবাখালী গ্রামে। বাবা নেজামউদ্দীন সরদারের মৃত্যুর পর ভাই ও চাচারা মিলে পৈতৃক জমি ফাঁকি দিয়ে নেয়। এরপর থেকে শ্বশুরবাড়ি খানপুরে বসবাস করছেন রইচউদ্দীন।

পৈতৃক ভিটায় রইচউদ্দীনের সামান্য একটু জমি রয়েছে। সেখানে কোনো বাড়ি নেই। সেই জমিতেই তার ঘর তৈরি করা হবে বলে জানিয়েছেন সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এসএম মোস্তফা কামাল।

আকরামুল ইসলাম/এফএ/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]