নড়াইল হাসপাতাল : ৪৮ লাখ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় দায়ী হিসাবরক্ষক লাকি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নড়াইল
প্রকাশিত: ১০:০৭ পিএম, ১৫ এপ্রিল ২০২১

নড়াইল সদর হাসপাতালের ৪৮ লাখ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় হিসাবরক্ষকের বিরুদ্ধে সদর থানায় মামলা হয়েছে। বুধবার (১৪ এপ্রিল) দুপুরে সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

এদিকে গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে ৩৪টি জাল চালানের অস্তিত্ব উল্লেখ এবং ৪৮ লাখ ১৭ হাজার ৯১২টাকা আত্মসাৎ হয়েছে বলে বলা হয়েছে। এজন্য হাসপাতালের হিসাবরক্ষক জাহান আরা খানম লাকিকে দায়ী করা হয়েছে। অন্যদিকে টাকা আত্মসাতের ঘটনায় নতুন করে বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, জাহান আরা খানম লাকির বিরুদ্ধে ২০১৯ সালের ১৮ জুলাই থেকে গত মার্চ মাস পর্যন্ত হাসপাতালের ইউজার ফি’র (রোগী ভর্তি ফি, ওটি চার্জ, চিকিৎসা ফি, প্যাথলজি, অ্যাম্বুলেন্স, কেবিন ফিসহ বিভিন্ন খাতের) ২১ মাসের ৭০ লাখ টাকা সোনালী ব্যাংকে জমা না দেয়ার অভিযোগ ওঠে। বিষয়টি তদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের পাঁচ চিকিৎসককে সদস্য করে গত ৭ এপ্রিল একটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়। পরে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে ৪৮ লক্ষাধিক টাকা আত্মসাতের ঘটনা ঘটেছে বলে জানানো হয়।

প্রসঙ্গত, ইতোপূর্বে সদর হাসপাতালে এক কোটি ৭০ লাখ টাকার ইউজার ফি আত্মসাতের ঘটনায় আগের হিসাবরক্ষক মাহফুজুর রহমানের বিরুদ্ধে মামলাটি দুদকে বিচারাধীন।

নড়াইল সোনালী ব্যাংকের ম্যানেজার মো. আবু সেলিম বলেন, হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ আমাদের কাছে যে ৪৩টি চালান প্রদর্শন করেন তার মধ্যে ৯টি চালান সঠিক এবং বাকি চালানের সিল ও স্বাক্ষর জাল। এসব চালানে মোট ১৩ লাখ ১২ হাজার ৫২০ টাকা ব্যাংকে জমা পড়েছে। বিষয়টি হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে গত সোমবার লিখিতভাবে জানানো হয়েছে।

jagonews24

এ ব্যাপারে তদন্ত কমিটির সদস্য সচিব ডা. আ ফ ম মশিউর রহমান বাবু জানান, তদন্ত প্রতিবেদনে ৩৪টি জাল চালান এবং ৪৮ লাখ ১৭ হাজার ৯১২টাকা আত্মসাৎ হয়েছে বলে প্রমাণ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় হাসপাতালের হিসাবরক্ষক জাহান আরা লাকিকে দায়ী করা হয়েছে।

৪৮ লাখ ১৭ হাজার ৯১২ টাকা আত্মসাতের ঘটনায় বুধবার দুপুরে সদর থানায় একটি মামলা হয়েছে বলে জানান সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. আব্দুর শাকুর। তিনি জানান, এ ঘটনায় মাগুরা সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. স্বপন কুমার কুন্ডুকে প্রধান করে তিন সদস্যের একটি নতুন কমিট গঠন করা হয়েছে। আগামী ১৯ এপ্রিলের মধ্যে কমিটি প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে।

সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. ইলিয়াছ হোসেন জানান, সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক টাকা আত্মসাতের ঘটনায় একটি অভিযোগ করেছেন। আমরা অভিযোগটিকে জিডি হিসেবে গ্রহণ করে দুদুকে পাঠিয়েছি।

হাফিজুল নিলু/এসআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]