তীব্র গরমে লিচুর ফলনে বিপর্যয়ের শঙ্কা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কুষ্টিয়া
প্রকাশিত: ০৮:২৭ এএম, ০৪ মে ২০২১

কুষ্টিয়ার খোকসায় তীব্র দাবদাহে লিচু ফলনে মারাত্মক বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। ফলে ক্ষতির মুখে পড়েছেন লিচু চাষি ও ব্যবসায়ীরা।

ব্যবসায়ীরা বলছেন, চলতি মৌসুমের শুরুতে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় উপজেলার গোপগ্রাম, সাতপখিয়া, বড়ই চারা, বসোয়া, দশকাহুনিয়া, মানিকাট গ্রামের বাগানে প্রচুর লিচুর গুটি দেখা দেয়। কিন্তু বিগত কয়েক মাস বৃষ্টির দেখা না মেলায় লিচুর গুটি ঝরে যায়। ফল রক্ষায় কৃষকরা প্রথম দিকে বিভিন্ন প্রকার কীটনাশক ও বাগানে পানি সেচ দেয়া শুরু করেন। কিন্তু তাতেও কোনো লাভ হয়নি। বাগানের অধিকাংশ গাছই এখন ফল শূন্য হয়ে পড়েছে।

তবে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, এ মৌসুম উপজেলায় প্রায় ১০৩ হেক্টর জমিতে লিচু আবাদ হয়েছে।

গোপগ্রাম ইউনিয়নের বাগান মালিক তৌহিদুর রহমান রাজু জানান, যখন লিচু গাছে মুকুল আসে তখন আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় প্রতিটি গাছে প্রচুর ফল ছিল। অনাবৃষ্টি ও প্রচণ্ড দাবদাহে লিচু গাছের ফল ঝরে পড়েছে। ২০ বিঘা জমিতে প্রায় ৫শ গাছ থাকলেও শেষ পর্যন্ত ১৫-১৬ টা গাছে লিচু রক্ষা করা গেছে। গত বছর এ বাগান থেকে প্রায় সাড়ে তিন লাখ টাকার লিচু বিক্রি হয়েছে। কিন্তু এ বছর সব মিলিয়ে ২০ হাজার টাকার ফলও বিক্রি হবে না।

লিচু ব্যবসায়ী হারেজ আলী জানান, এক লাখ ৮০ হাজার টাকায় তিনি দশকাহুনিয়া গ্রামে একটি লিচুর বাগান ইজারা নিয়েছিলেন। প্রথম দিকে তার বাগানে প্রচুর ফল ছিল। কিন্তু অতিরিক্ত গরমে বাগানে ৬৮ গাছের একটিতেও ফল নেই।

এ বিষয়ে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সবুজ কুমার সাহা জানান, প্রচণ্ড গরমে কিছু ফলন নষ্ট হতে পারে। তবে চলতি বছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে অধিক লিচু আবাদ হয়েছে।

আল-মামুন সাগর/আরএইচ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]