সরকারি রাস্তায় বাড়ি করেছেন দুইজন, ভুগছে ৫০ পরিবার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি চাঁপাইনবাবগঞ্জ
প্রকাশিত: ০৯:৫০ পিএম, ১৪ জুন ২০২১ | আপডেট: ১২:৩৪ পিএম, ১৫ জুন ২০২১

চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোলে আধা কিলোমিটার সরকারি রাস্তা দখল করে বাড়ি নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে। সরকারি রাস্তা অবরুদ্ধ করে ঘর নির্মাণ করায় ৫০টি পরিবার অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। রাস্তা পুনরুদ্ধারের জন্য অভিযোগ করেও দখলমুক্ত হয়নি রাস্তাটি। ফলে কৃষিপণ্য পারাপার ও চলাচল করতে বিপাকে পড়েছে পরিবারগুলো।

ভুক্তভোগীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত ২১ মার্চ কসবা গ্রামের ৫০টি অবরুদ্ধ পরিবারেরগুলোর পক্ষে নুরুল ইসলামসহ ৫০ জনের স্বাক্ষরিত একটি আবেদনপত্র চাঁপাইনবাবগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) বরাবর দেয়া হয়। তারা আবেদনপত্রে সরকারি রাস্তার ওপর নির্মিত বাড়ি উচ্ছেদ করে রাস্তা পুনরুদ্ধারের দাবি জানান।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, প্রায় পাঁচ বছর আগে উপজেলার কসবা ইউনিয়নের ইদ্রিস আলী এবং আব্দুল খালেক সরকারি রাস্তা অবরুদ্ধ করে ঘরবাড়ি নির্মাণ করেন। ফলে ওই গ্রামের হাটখোলা থেকে বিজয় কর্মকারের বাড়ি পর্যন্ত ৫০টি পরিবার অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। ফলে ওই এলাকার প্রায় ৫০০ বিঘা জমির ধান কৃষককে মাথায় করে তুলতে আনতে হয়।

পরিবারগুলোর আবেদন পেয়ে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক তাৎক্ষণিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন। ইউএনও গত ২২ মার্চ কসবা ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তাকে তদন্ত করে ব্যবস্থা নিয়ে প্রতিবেদন দিতে বলেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে কসবা ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা ১৭ এপ্রিল সরেজমিনে তদন্ত করে প্রতিবেদন দিয়েছেন।

কসবা গ্রামের ভুক্তভোগী মাসুদ রানা জাগো নিউজকে বলেন, ‘রহস্যজনক কারণে প্রতিবেদন দাখিল হলেও নির্মিত বাড়িগুলো উচ্ছেদ করে সরকারি রাস্তাটি উদ্ধার করা হয়নি। দুইবার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেও ঘরবাড়ি উচ্ছেদ করে রাস্তাটি দখলমুক্ত করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।’

ভুক্তভোগী আব্দুর রহিম জাগো নিউজকে বলেন, ‘বাড়ির সামনে রাস্তা না থাকার কারণে আমরা পড়েছি বিপাকে। আমাদের পরিবারের কেউ অসুস্থ হলে নিয়ে যেতে হয় কাঁধে করে। সময়মতো চিকিৎসা দিতে না পেরে গ্রামের অনেক মানুষ মারা গেছেন। রাস্তা না থাকায় আমরা সুচিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হচ্ছি।’

মারুফ হোসেন নামের একজন বলেন, ‘আমরা গ্রামের মানুষ একটু বৃষ্টি হলে বাড়ির বাইরে বের হতে পারি না। বের হলে হাঁটু কাদায় ডুবতে হয়। এই রাস্তা দিয়ে প্রায় ৫শ বিঘা জমির ধান গ্রামবাসীর ঘরে ওঠে। সব মাথায় করে নিয়ে আসতে হয়। ধান বিক্রি করতে পারি না। যানবাহন না আসতে পারায় ক্রেতাও আসেন না।’

রাস্তায় বাড়ি নির্মাণকারী আব্দুল খালেক বলেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে বাড়ি বানিয়ে বসবাস করে আসছি। যখন বাড়ি করি তখন আমরা জানতাম না এখানে সরকারি রাস্তার জামি আছে।’

jagonews24

এখন তো জানেন, তবে বাড়ি ভাঙছেন না কেন? এমন প্রশ্নের জবাবে খালেক বলেন, ‘এই সরকারি রাস্তার ওপরে তো আরও বাড়ি আছে, তারা ভাঙলে আমিও ভেঙে নেব।’

রাস্তার ওপর বাড়ি নির্মাণকারী করেছেন ইদ্রিস আলী নামের আরেকজন। তিনি বলেন, ‘আমরা না বুঝে বাড়ি করে ফেলেছি। এখন শুনছি আমার বাড়ির মধ্যে দিয়ে সরকারি জমি আসে। আগে জানলে রাস্তার ওপর বাড়ি আমি করতাম না। তবে আরও যাদের রাস্তার ওপর বাড়ি আছে তারা ভেঙে নিলে আমিও ভেঙে নেব।’

কসবা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান বলেন, ‘করোনার জন্য বিষয়টি আটকে আছে। কয়েক দিনের মধ্যেই বাড়িটি উচ্ছেদ করে রাস্তাটি মুক্ত করা হবে।’

নাচোল সহকারী কমিশনার (ভূমি) খাদিজা বেগম বলেন, ‘করোনাকালে দেশে লকডাউন থাকায় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের আদেশ কার্যকর করা সম্ভব হয়নি। তবে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে রাস্তাটি অবমুক্ত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এসআর/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]