বৈরি আবহাওয়া কেড়ে নিল হাতিয়া দ্বীপের আলো!

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নোয়াখালী
প্রকাশিত: ০২:৩২ এএম, ৩১ জুলাই ২০২১

সাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের কারণে টানা ভারি বর্ষণ ও বৈরি আবহাওয়ার কারণে সোলার প্যানেল বন্ধ হয়ে নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়া এখন অন্ধকারে নিমজ্জিত।

শুক্রবার (৩০ জুলাই) রাতে খবর নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার পাঁচ লাখ অধিবাসীর মাত্র দুই শতাংশ জেনারেটরের আলো পেতো। বাকিদের একটি বড় অংশ সোলার প্যানেলের সাহায্যে আলোর ব্যবস্থা ছিল। কিন্তু টানা পাঁচদিন সূর্যের দেখা না পাওয়ায় তাও বন্ধ হয়ে সমগ্র হাতিয়া দ্বীপ এখন ভুতুড়ে এলাকায় পরিণত হয়েছে।

উপজেলার তমরদ্দি ইউনিয়নের বাসিন্দা হাকিম সর্দার বলেন, টানা বৃষ্টিতে সোলার অকেজো হয়ে গেছে। সন্ধ্যা হলেই অন্ধকার নেমে আসে ঘরে ঘরে। কুপি জ্বালিয়ে পড়াশোনা করতে হচ্ছে দ্বীপের শিক্ষার্থীদেরকে।

jagonews24

হাতিয়া পৌরসভার বাসিন্দা আরিফুর রহমান বলেন, হাতিয়ায় বিদ্যুতের অভাবে জনগণ নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত। যাও সোলারে সামান্য আলো দিতো বৃষ্টিতে তাও বন্ধ হয়ে গেছে।

নিঝুম দ্বীপের বাসিন্দা সবুজ মিয়া বলেন, সকাল-সন্ধ্যা জেনারেটর দিতো। গত কয়েকদিন তাও দিচ্ছে না। নিঝুম দ্বীপে পর্যটকরাসহ স্থানীয়রা মোবাইলও চার্জ দিতে পারছে না। এতে সব দিকের যোগাযোগ ব্যবস্থাও ভেঙে পড়েছে।

জেলা আবহাওয়া অধিদফতরের কর্মকর্তা মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, বর্তমানে উপকূলীয় এলাকায় ৩ নম্বর সিগন্যাল রয়েছে। দু-এক দিনের মধ্যে আবহাওয়া স্বাভাবিক হওয়ার আশা প্রকাশ করেন এ কর্মকর্তা।

jagonews24

হাতিয়া উপজেলা চেয়ারম্যান মাহবুব মোর্শেদ লিটন বলেন, এ দ্বীপে সরকার ১৫ মেগাওয়াটের একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে। প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে দ্বীপটি শতভাগ বিদ্যুতায়নের আওতায় আসবে। তিনি দ্রুত এ প্রকল্প বাস্তবায়নের দাবি জানান।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. ইমরান হোসেন বলেন, হাতিয়ায় বিশাল একটা অংশ বিদ্যুৎ সেবার বাইরে রয়েছে। এ বিষয়ে সরকারিভাবে বিভিন্ন উদ্যোগ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। দ্বীপের উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে।

ইকবাল হোসেন মজনু/এমআরআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]