৭৮ ঘণ্টায়ও সন্ধান মেলেনি জামালপুরে নিখোঁজ তিন মাদরাসাছাত্রীর

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি জামালপুর
প্রকাশিত: ০২:২৫ পিএম, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১

জামালপুরের ইসলামপুরে দারুত তাকওয়া মহিলা কওমি মাদরাসার তিন শিশু শিক্ষার্থী নিখোঁজের ৭৮ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও এখনও তাদের সন্ধান মেলেনি। এ ঘটনায় আটক চার শিক্ষককে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে চালান এবং মাদরাসার পাঠদান বন্ধ রেখেছে পুলিশ।

নিখোঁজ শিক্ষার্থীরা হলো-উপজেলার গাইবান্ধা ইউনিয়নের পোড়ারচর সরদারপাড়া গ্রামের মাফেজ শেখের মেয়ে মীম আক্তার (৯), গোয়ালেরচর ইউনিয়নের সভুকুড়া মোল্লাপাড়া গ্রামের মনোয়ার হোসেনের মেয়ে মনিরা খাতুন (১১) ও সুরুজ্জামানের মেয়ে সূর্য ভানু (১০)।

নিখোঁজের তিনদিন পেরিয়ে গেলেও সন্তানের সন্ধান না পাওয়ায় অভিভাবকদের মাঝে চরম উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) ফজরের সময় থেকে তারা নিখোঁজ হয়।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, উপজেলার গোয়ালেরচর ইউনিয়নের মেজর জেনারেল খালেদ মোশাররফ বীরউত্তম সেতুর পূর্বপাড়ার বাংলাবাজার এলাকায় অবস্থিত দারুত তাকওয়া মহিলা কওমি মাদরাসা। মাদরাসাটির দ্বিতীয় শ্রেণির ওই শিক্ষার্থীরা শনিবার (১১ সেপ্টেম্বর) রাতে মাদরাসার আবাসিক কক্ষে ঘুমিয়ে পড়ে। রোববার ভোররাতে শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের ফজরের নামাজ পড়ার জন্য ঘুম থেকে ডেকে তোলেন। অন্য ছাত্রীদের মতোই নিখোঁজ শিশুরাও নামাজের প্রস্তুতি নেয়। নামাজের পর তাদের আর কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।

এ ঘটনায় পরদিন সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) বিকেলে মাদরাসার মুহতামিম (প্রধান শিক্ষক) মাওলানা মো. আসাদুজ্জামান ইসলামপুর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। জিডি নম্বর ৫১১।

সহকারী পুলিশ সুপার (ইসলামপুর সার্কেল) মো. সুমন মিয়া জাগো নিউজকে বলেন, নিখোঁজ শিক্ষার্থীদের সন্ধান পেতে পুলিশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। এ ঘটনায় নিখোঁজ তিন ছাত্রীর অভিভাবকদের অভিযোগের ভিত্তিতে মাদরাসার চার শিক্ষককে গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে চালান করা হয়েছে।

গ্রেফতার শিক্ষকরা হলেন-মাদরাসার মুহতামিম মাওলানা মো. আসাদুজ্জামান, রাবেয়া আক্তার, শুকরিয়া আক্তার ও ইলিয়াস হোসেন।

এসআর/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]