‘হয়রানি’ বন্ধের দাবি নোয়াখালী বিএনপির

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নোয়াখালী
প্রকাশিত: ০৩:১১ পিএম, ২৬ অক্টোবর ২০২১

নোয়াখালীতে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনায় দলীয় নেতাকর্মীদের ‘হয়রানি’ বন্ধের দাবি জানিয়েছে জেলা বিএনপি।

মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহানের বাসভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানিয়ে বক্তব্য দেন জেলা বিএনপির সভাপতি গোলাম হায়দার ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুর রহমান।

এ সময় গোলাম হায়দার বলেন, ‘হামলার ঘটনায় নোয়াখালীতে অনেকগুলো মামলা হয়েছে। প্রত্যেক মামলায় বিএনপির নেতাকর্মীদের আসামি করা হয়েছে। এদের অনেকেই ঘটনার সময় এলাকায়ও ছিলেন না। বেগমগঞ্জের সাবেক সংসদ সদস্য ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলুকে হুকুমের আসামি করা হয়েছে। যা অত্যন্ত নিন্দনীয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘এসব মামলায় বেগমগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মাহফুজুল হক আবেদ, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক নুরুল আলম সিকদার, হাতিয়া পৌর বিএনপির সভাপতি কাজী আবদুর রহিম, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সদস্য শিল্পপতি মো. ফখরুল ইসলাম, জেলা বিএনপির উপদেষ্টা হুমায়ুন কবির, জেলা যুবদল সভাপতি মঞ্জুরুল আজিম সুমন, বেগমগঞ্জ উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক রুস্তম আলী, সদস্য সচিব মহিউদ্দিন রাজু, যুগ্ম আহ্বায়ক খুরশেদ আলম, চৌমুহনী পৌর যুবদলের আহ্বায়ক জায়ের আলম লিটন, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক মো. বাহার, হাতিয়া উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক আরিফিন আলী, চৌমুহনী পৌর ছাত্রদলের আহ্বায়ক তারেক আজিজ রনি, জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সম্পাদক মো. আলী, চৌমুহনী এসএ কলেজ ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক টি আই সুজন, চৌমুহনী পৌর ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক মো. আরমান আরাফাত, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদল নেতা জাহেদ হোসেন সাহেদসহ অসংখ্য নেতাকর্মীকে আসামি করা হয়েছে।

জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবদুর রহমান বলেন, ‘ধর্মীয় সহিংসতাকে পূঁজি করে রাজনৈতিক হয়রানি বন্ধ করতে হবে। বাড়ি বাড়ি তল্লাশির নামে হয়রানি বন্ধ করতে হবে। গ্রেফতার নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে। অন্যথায় গণ-আন্দোলনের ডাক দেওয়া হবে।’

ইকবাল হোসেন মজনু/ইউএইচ/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]