ঘুসের টাকা ফেরত দিলেন প্রিসাইডিং অফিসার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি লক্ষ্মীপুর
প্রকাশিত: ০৬:১৮ পিএম, ২৪ নভেম্বর ২০২১

লক্ষ্মীপুরের কমলনগরে সুষ্ঠুভোটের আশ্বাস দিয়ে প্রার্থীর কাছ নেওয়া ঘুসের ৭৫ হাজার টাকা ফেরত দিয়েছেন উপজেলার চরলরেন্স ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ড কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিসাইডিং অফিসার মমতাজ উদ্দিন মিয়াজি।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয়ভাবে তোলপাড় শুরু হয়। মমতাজ উদ্দিন উপজেলা দারিদ্র্য বিমোচন কর্মকর্তা। তবে ওই কর্মকর্তা কোনো ঘুসের টাকা নেননি জানিয়ে টাকা ফেরত দেওয়ার কোনো প্রশ্নই আসে না বলে দাবি করেছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত ১১ নভেম্বর দ্বিতীয় ধাপে কমলনগর উপজেলার তিন ইউনিয়নের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এর মধ্যে চরলরেন্স ইউনিয়নে বিনা ভোটে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ায় সেখানে সদস্য ও সংরক্ষিত সদস্য পদে ভোট হয়। ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কেন্দ্র শহীদ নগর আদর্শ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রিসাইডিং অফিসার ছিলেন মমতাজ উদ্দিন মিয়াজি। এ ওয়ার্ডে বিনা ভোটে মেম্বার প্রার্থী নির্বাচন হওয়ায় শুধু সংরক্ষিত সদস্যপদে ভোট হয়।

অভিযোগকারী পান্না আক্তার ইউনিয়নের ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য প্রার্থী (সূর্যমুখী) ছিলেন। তিনি বলেন, জনগণ তাকে উৎসবমুখর পরিবেশে ভোট দিয়েছেন। কিন্তু প্রতিপক্ষ প্রার্থীর কাছ থেকে টাকা নিয়ে প্রিসাইডিং কর্মকর্তা আমার ভোট গণনায় কূটকৌশলের আশ্রয় নিয়েছে। এ কেন্দ্রে তার শুধু আটটি ভোট দেখানো হয়েছে। সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণের আশ্বাসে ওই কর্মকর্তা তার কাছ থেকে ভোটের আগের রাতে এক লাখ ৩০ হাজার টাকা নিয়েছে। ছয়দিন আগে এক ইউপি চেয়ারম্যানের মধ্যস্থতায় তিনি ৭৫ হাজার টাকা ফেরত দিয়েছেন। বাকি টাকা পরে ফেরত দিবেন বলে আশ্বাস দেন।

নির্বাচনের ১৩ দিন পরে এ অভিযোগ দেওয়ার কারণ জানতে চাইলে পান্না বলেন, ভোটের ফলাফল শুনে আমি বাড়িতে এসে চরম অসুস্থ হয়ে পড়ি। পরে আমি এনিয়ে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণের কথা চিন্তা করিনি। আমার স্বামী শাহ আলম আমাকে মামলা করতে বলেছিলেন। কিন্তু এক মেম্বারের মধ্যস্ততায় ৭৫ হাজার টাকা ফেরত পেয়েছি। বাকি টাকা পরে দেওয়া হবে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে সন্ধ্যা ৫টার দিকে প্রিজাইডিং কর্মকর্তা মমতাজ উদ্দিন মিয়াজি বলেন, টাকা নেওয়ার অভিযোগ সত্য নয়। টাকা ফেরত দেওয়ার বিষয়টি সাজানো। আমি কোনো টাকা নিইনি ফেরত দেবো কেনো। আমার কেন্দ্রে সুষ্ঠুভাবে ভোটগ্রহণ হয়েছে।

উপজেলা রিটানিং কর্মকর্তা ও উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. জায়েদুল হোসেন চৌধুরী বলেন, বিষয়টি আমার জানা নেই। এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

কাজল কায়েস/আরএইচ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]