জামালপুরে শিশুর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় কিশোর গ্রেফতার

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি জামালপুর
প্রকাশিত: ০১:৫৬ পিএম, ২৫ নভেম্বর ২০২১

জামালপুরের মেলান্দহে ধানক্ষেত থেকে তোবা (৭) নামে এক শিশুর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় নাঈম (১৩) নামে এক কিশোরকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার (২৫ নভেম্বর) দুপুরে আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়। গ্রেফতার নাঈম ইসলামপুর উপজেলার মোখলেস মিয়ার ছেলে।

নিহত তোবার বাবার অভিযোগ, চিপস খাওয়ানোর প্রলোভন দেখিয়ে ধান ক্ষেতে নিয়ে তাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে নাঈম। পরে তাকে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী ঘটনাটি ভিন্নভাতে নিতে দিনভর অপচেষ্টা চালান এবং পুলিশ মামলা নিতেও গড়িমসি করে।

এর আগে মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) রাতে উপজেলার নাংলা ইউনিয়নের দেওলাবাড়ি এলাকায় ধানক্ষেত থেকে ওই শিশুকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে এলাকাবাসী। পরে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত শিশু ওই গ্রামের রোকনুজ্জামান উকিলের মেয়ে এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জিন্নাহর ভাতিজি।

এলাকাবাসী জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যার পর থেকে শিশুটিকে কোথাও খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না। খোঁজাখুঁজির একপর্যায়ে বাড়ির পাশের ধানক্ষেত থেকে তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্য চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহত শিশুর চাচা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জিন্নাহ জাগো নিউজকে জানান, যে ছেলেটাকে গ্রেফতার করা হয়েছে তার বাড়ি ইসলামপুর উপজেলায়। পড়ালেখার সুবাদে ছেলেটি তোবার পাশের বাড়িতে থাকে। সম্পর্কে মেয়ের বাবার আত্মীয়।

মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম ময়নুল ইসলাম জাগো নিউজকে জানান, ধানক্ষেত থেকে শিশুর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় বুধবার (২৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় নাঈম (১৩) নামে একজনকে গ্রেফতার করা হয়। শিশুর বাবা বাদী হয়ে ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য সকালে মর্গে পাঠানো হয়েছে, এখনও তদন্ত রিপোর্ট আসেনি।

আসামি নাঈমকে আজ দুপুরে কোর্টে সোপর্দ করা হয় বলেও জানান তিনি।

নাসিম উদ্দিন/এফএ/জিকেএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]