নৌকার পরাজিত প্রার্থীসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক বগুড়া
প্রকাশিত: ০৫:১২ পিএম, ০১ ডিসেম্বর ২০২১

বগুড়ার ধুনট উপজেলায় নৌকার পরাজিত প্রার্থীসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) রাতে নৌকার সমর্থকের ভাই আব্দুল কাদির জিলানী ও স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থীর ছেলে রাসেদুজ্জামান সবুজ বাদী হয়ে মামলা দুটি করেন।

বুধবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে ধুনট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কৃপা সিন্ধু বালা জাগো নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, মামলার আসামিদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, নৌকার সমর্থককে মারধরের মামলায় উপজেলার চিকাশি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি আলেফ বাদশাসহ আটজনকে আসামি করা হয়েছে। অজ্ঞাত আসামি আছেন আরও সাতজন।

অন্যদিকে নির্বাচনে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাসুদুল হক বাচ্চু (ঘোড়া প্রতীক) ও তার সমর্থকদের মারধরের মামলায় নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতা সামছুল বারীসহ ২১জনকে আসামি করা হয়েছে। অজ্ঞাত আসামি আছেন আরও ১৫ জন।

এছাড়া আলেফ বাদশা তার জামাতা স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকের পক্ষে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নেন। নৌকার বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ায় আলেফ বাদশাকে আওয়ামী লীগের দলীয় পদ থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি টিআইএম নুরুন্নবী তারিক ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকন স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, স্কুল শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুন এবং ব্যবসায়ী ইমা করিম চিকাশি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার সমর্থক ছিলেন। এ কারণে আওয়ামী লীগ নেতা আলেফ বাদশা তাদের ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন। মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে তারা মোটরসাইকেলযোগে চিকাশি থেকে ধুনট বাজারের উদ্দেশ্যে রওনা হয়।

এ সময় চিকাশী মফিজ মোড় এলাকায় পৌঁছালে আওয়ামী লীগ নেতা আলেফ বাদশার নেতৃত্বে ২০-২২ জনের একটি দল তাদের উপর হামলা করে। এ সময় তাদের পিটিয়ে আহত করা হয়। পরে স্থানীয় লোকজন এগিয়ে এসে তাদের উদ্ধার করে। আহতরা ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

অন্যদিকে, ২৮ নভেম্বর ইউপি নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষে বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার গোসাইবাড়ি ইউনিয়নের জোড়খালী সিনিয়র ফাজিল ডিগ্রি মাদরাসা কেন্দ্র পরিদর্শনে যান স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাসুদুল হক বাচ্চু (ঘোড়া প্রতীক)। এ সময় নৌকার প্রার্থী সামছুল হক ও তার সমর্থকরা মাসুদুল হকের ওপর হামলা চালায়।

হামলায় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাসুদুল হক ও তার সমর্থকসহ পাঁচজন আহত হন। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে প্রথমে ধুনট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করান। সেখানে মাসুদুল হকের অবস্থার অবনতি হলে তাকে উন্নত চিকিৎসার বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তিনি বর্তমানে সেখানে চিকিৎসাধীন রয়েছে। নির্বাচনে গোসাইবাড়ি ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মাসুদুল হক ৫ হাজার ১০১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন।

ধুনট উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাই খোকন বলেন, নির্বাচনে চিকাশি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলেফ বাদশা নৌকার বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশ নিয়েছেন। নৌকার প্রার্থীর এমন অভিযোগের ভিত্তিতে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে দলীয় পদ থেকে সাময়িক অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

আওয়ামী লীগ নেতা আলেফ বাদশা বলেন, তার বিরুদ্ধে মারধরের মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে মামলা করা হয়েছে। দলীয় পদ থেকে অব্যাহতির বিষয়ে এখনো কোন চিঠি হাতে পাননি।

গোসাইবাড়ি ইউনিয়নের নৌকার প্রার্থী সামছুল বারী বলেন, ভোটকেন্দ্রের বাইরে মাসুদুল হকের সঙ্গে তার সমর্থকদের হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। তার বিরুদ্ধে মামলার অভিযোগ সঠিক নয়।

এসজে/এএসএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]