মোহনগঞ্জে টিসিবির পচা পেঁয়াজে উপকারভোগীদের ক্ষোভ

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নেত্রকোনা
প্রকাশিত: ১০:০১ পিএম, ০৮ আগস্ট ২০২২

নেত্রকোনার মোহনগঞ্জে ভর্তুকি মূল্যে দেওয়া ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) পণ্যের মধ্যে পচা পেঁয়াজ বিক্রির অভিযোগ উঠেছে। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন কার্ডধারী উপকারভোগীরা। তাদের অনেকে পণ্য না নিয়েই চলে গেছেন বলেও জানা গেছে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, সোমবার উপজেলার তেঁতুলিয়া ইউনিয়নে ৬৫০ জন কার্ডধারী ও পৌর শহরের বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে পৌরসভার দুই ওয়ার্ডের ( ৩ ও ৮) ৯৮৮ জন কার্ডধারীর মাঝে টিসিবির পণ্য বিক্রি করা হয়। প্রত্যেক কার্ডধারী ২০ টাকা কেজি দরে দুই কেজি পেঁয়াজ, ১১০ টাকা লিটার দরে দুই লিটার সয়াবিন তেল, ৫৫ টাকা কেজি দরে এক কেজি চিনি ও ৬৫ টাকা কেজি দরে দুই কেজি ডাল পাবেন। প্রতি পরিবার ৪৪৫ টাকায় একটি প্যাকেজ কিনতে পারবেন।

পাইকুড়া বাজারে অবস্থিত তেঁতুলিয়া ইউনিয়ন পরিষদ ভবন ও পৌর শহরের বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এসব পণ্য বিক্রি করা হয়।

পৌরসভার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর কামাল হোসেন রতন বলেন, অন্য সব পণ্য ঠিক থাকলেও পেঁয়াজগুলো একেবারে পচা। এগুলো কার্ডধারীরা নিতে চায়নি। তাদের কথা ছিল- টাকা দিয়ে এমন পচা পেঁয়াজ নেবে না। পরে অনেক কষ্টে তাদের বুঝিয়ে শুনিয়ে দিয়েছি।

তেঁতুলিয়া গ্রামের হৃদয় মিয়া অভিযোগ করে বলেন, আমরা একই এলাকার ২৫ জন নৌকা ভাড়া করে টিসিবির পণ্য আনতে তেঁতুলিয়া থেকে পাইকুড়া বাজারে যাই। কিন্তু পেঁয়াজ পচা দেখে পণ্য না নিয়েই ফিরে আসি। এসব পেঁয়াজ খাওয়ার অনুপযোগী।

পাইকুড়া গ্রামের রিয়াদ হাসান বলেন, অনেক কার্ডধারী পেঁয়াজ পচা দেখে পণ্য না নিয়েই চলে গেছে। পরে চেয়ারম্যান কার্ডধারী নয় এমন পরিচিত একেক জনকে ৭-৮টি করে প্যাকেজ দিয়ে কোনোরকম পণ্য বিক্রি শেষ করেছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে তেঁতুলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম জহর বলেন, পেঁয়াজ খুব ভালোমানের ছিল। কোনো ধরনের পচা পেয়াজ বিক্রি করা হয়নি। কার্ডধারী সবাই পণ্য নিয়েছেন। কেউ পণ্য না নিয়ে যাননি। এমনকি বিনা কার্ডধারী কাউকে পণ্যও দেওয়া হয়নি।

তবে কার্ডধারীদের অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে একপর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি বলেন, পচা পেঁয়াজ না ভালো পেয়াজ দেওয়া হয়েছে এসব নিয়ে নিউজ করা সাংবাদিকের কাজ নয়।

তবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাব্বির আহম্মেদ আকুঞ্জি বলেন, আজকে টিসিবির পণ্যের মধ্যে পেঁয়াজগুলো পচা ছিল। অনেক জায়গা থেকেই আমার কাছে এ বিষয়ে অভিযোগ এসেছে। খবর নিয়ে সত্যতা পেয়েছি। টিসিবির পণ্য তো ময়মনসিংহ থেকে আসে পরে তাদের ফোন করে বিষয়টি জানিয়েছি। পরের বার এমন পচা পেঁয়াজ না দেওয়ার জন্য বলেছি। এছাড়া ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকেও বিষয়টি জানিয়েছি।

এইচ এম কামাল/এমআরআর/এএসএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।