টিকিট না থাকায় ছাত্রদের মারধর, সোনার বাংলার ৩ টিটিই বরখাস্ত

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি কুমিল্লা
প্রকাশিত: ০১:৩২ এএম, ১৭ আগস্ট ২০২২

চট্টগ্রাম থেকে ঢাকার কমলাপুর রেলওয়ে স্টেশনের উদ্দেশ্যে ছেড়ে আসা বিরতিহীন আন্তঃনগর সোনার বাংলা এক্সপ্রেস ট্রেনে শিক্ষার্থীদের মারধর ও হেনস্তার অভিযোগ উঠেছে। ট্রেনের টিটিই’র বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ করে ট্রেনটি কুমিল্লার লাকসাম রেলওয়ে জংশনে আটকে রাখেন চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার (১৬ আগস্ট) রাত পৌনে ৮টা থেকে সোয়া ৯টা পর্যন্ত ট্রেনটি আটকে রাখা হয়। পরে রেল কর্তৃপক্ষ, লাকসাম উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশের মধ্যস্থতায় দেড় ঘণ্টা পরে ট্রেনটি ছেড়ে দেন শিক্ষার্থীরা। এরপর ওই রুটে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।

এদিকে, এ ঘটনায় টিটিই আমিনুল ইসলাম ও তার দুই সহকারীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানিয়েছে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

jagonews24

শিক্ষার্থীরা জানান, তারা চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যায়ে ভর্তি পরীক্ষা শেষে বাড়ি ফেরার জন্য সোনার বাংলা এক্সপ্রেসে ওঠেন। স্টেশনে এসে অনেকেই টিকেট পাননি। পরে ট্রেনটি ছেড়ে দেওয়ায় তারা বিনা টিকেটে ট্রেনে উঠে পড়েন।

তাদের অভিযোগ, ট্রেনের টিটিই আমিনুল ইসলাম (ভারপ্রাপ্ত জেআরআই) টিকিট চেকিংয়ের সময় শিক্ষার্থীদের কাছে ৪০৫ টাকার ভাড়া ৮১০ টাকা দাবি করেন। এ নিয়ে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে টিটিই আমিনুলের বাগবিতণ্ডা হয়। পরে দুই ছাত্রকে মারধরও করেন তিনি। রাত পৌনে ৮টার দিকে ট্রেনটি লাকসাম রেলওয়ে জংশন স্টেশনে থামিয়ে টিটিই ১০-১২ জন ছাত্রকে ধাক্কা দিয়ে প্ল্যাটফর্মে নামিয়ে দেন।

এ ঘটনার জেরে শতাধিক শিক্ষার্থী ট্রেন থেকে নেমে রেললাইনে শুয়ে পড়েন। এতে সোনার বাংলা এক্সপ্রেস ট্রেনটি অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। এসময় তারা টিটিই’র হাতে মারধর ও হেনস্তার শিকার হওয়ার অভিযোগ তুলে তার বিচার দাবি করে স্লোগান দেন।

খবর পেয়ে লাকসাম উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মাহফুজা মতিন, রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের ডিআরএম আবুল কালাম চৌধুরী, কুমিল্লার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (লাকসাম সার্কেল) মুহিতুল ইসলাম, লাকসাম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেজবাহ উদ্দিন, রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জসীম উদ্দীন খন্দকার ঘটনাস্থলে আসেন। তারা শিক্ষার্থীদের সঙ্গে দুই দফা বৈঠক করেন।

পরে জড়িত টিটিই’র বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দেন তারা। এছাড়া টিটিই আমিনুল ইসলাম হাতজোড় করে ক্ষমা প্রার্থনা করলে রাত সোয়া ৯টার দিকে শিক্ষার্থীরা অবরোধ তুলে নেন। এরপর ঢাকার উদ্দেশ্যে যাত্রা করে সোনার বাংলা এক্সপ্রেস।

রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের ডিআরএম আবুল কালাম চৌধুরী জাগো নিউজকে বলেন, ‘টিটিই আমিনুল ইসলাম ও তার দুই সহকারীকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

জাহিদ পাটোয়ারী/এএএইচ

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।