বাবার মরদেহ বাড়িতে রেখে পরীক্ষা দিলো নমিতা

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি নীলফামারী
প্রকাশিত: ০৯:৫১ পিএম, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২

নীলফামারীর ডোমারে বাবার মরদেহ বাড়িতে রেখেই এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে নমিতা রানী ঝাঁ নামে এক পরিক্ষার্থী। মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের বাকডোকরা শিয়ালডাঙ্গা গ্রামে।

শনিবার (২৪ সেপ্টেম্বর) সকাল ৬টার দিকে নমিতা রানীর বাবা সুনীল চন্দ্র ঝাঁ মারা যান। এদিন বেলা ১১টায় পরীক্ষায় অংশ নেন নমিতা রানী। পরীক্ষা শেষে বাড়িতে এসে বাবার শেষকৃত্য অনুষ্ঠানে যোগ দেয় সে।

নমিতা রানী উপজেলার নিমোজখানা বাকডোকরা স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। তার পরীক্ষা কেন্দ্র ডোমার বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়।

স্থানীয়রা জানায়, শনিবার সকাল ৬টার দিকে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান নমিতার বাবা সুনিল চন্দ্র ঝাঁ। বাবাকে হারিয়ে ভেঙে পড়েন নমিতা রানী। এদিকে চলতি এসএসসি পরীক্ষার রুটিন অনুযায়ী বেলা ১১টায় ইতিহাস ও বিশ্ব সভ্যতা পরীক্ষা ছিল নমিতার। তবে বার বার জ্ঞান হারানোয় পরীক্ষা দেওয়ার জন্য অনুপোযোগী হয়ে পড়ে সে। পরে পরিবারের লোকজন বুঝিয়ে তাকে পরীক্ষা কেন্দ্রে নিয়ে যায়।

নমিতা রানীর চাচাতো ভাই বিপুল কুমার ঝাঁ বলেন, সকার ৬টার দিকে কাকা মারা যায়। এতে পরিবারের সবাই ভেঙে পড়ে। পরিবারের ছোট মেয়ে নমিতা বেশি কান্না কাটির পাশাপাশি বার বার জ্ঞান হারায়। পরে পরিবারের সবাই বুঝিয়ে তাকে পরীক্ষা কেন্দ্রে নিয়ে যায়।

ডোমার বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী প্রধান শিক্ষক রুহুল আমিন বলেন, এমন ঘটনায় আমরা শোকাহত। এ অবস্থায় নমিতার পরীক্ষা দেওয়া অনেকটা কষ্টের। আমরা তাকে সহমর্মিতা জানাই।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রমিজ আলম বলেন, বিষয়টি অত্যান্ত বেদনাদায়ক। বাবার মরদেহ রেখে পরীক্ষা দেওয়াটা আসলে সহজ নয়। বিষয়টি অনেক খারাপ লেগেছে। আমি শোনামাত্র কেন্দ্রে গিয়ে তাকে সহমর্মিতা জানায়। এছাড়াও বিকেলে নমিতার বাড়ি গিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরাসহ সার্বিক সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দিয়েছি।

এএইচ/জেআইএম

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।