চাঁপাইনবাবগঞ্জে চালু হয়নি করোনায় বন্ধ হওয়া পাঁচ জোড়া ট্রেন

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি চাঁপাইনবাবগঞ্জ
প্রকাশিত: ১০:০১ পিএম, ০২ অক্টোবর ২০২২

করোনায় চাঁপাইনবাগঞ্জ থেকে বন্ধ হয়ে হওয়া পাঁচ জোড়া ট্রেন ৩০ মাসেও চালু হয়নি। এতে দুর্ভোগে পড়ছেন যাত্রীরা। ট্রেনগুলো বন্ধ থাকায় তাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিকল্প যানবাহনে যাতায়াত করতে হচ্ছে। আর কবে এই ট্রেন চালু হবে তাও জানে না স্থানীয় রেল বিভাগ।

রোববার (২ অক্টোবর) দুপুরে চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে গিয়ে জানা যায়, উত্তরের এই জেলা থেকে প্রতিদিন দেশের বিভিন্ন স্থানে রেলে যাতায়াত করতেন প্রায় আড়াই থেকে তিন হাজার যাত্রী। করোনাকালের আগে শাটল ১, ২, ৩, ৪ ও একটি লোকায় ট্রেন চাঁপাইনবাবগঞ্জে আসতো। করোনাকালে বন্ধ হয়ে যায় এই পাঁচ জোড়া ট্রেন। দীর্ঘ আড়াই বছর ধরে ট্রেনগুলো বন্ধ থাকায় চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন বিভিন্ন গন্তব্যে যাওয়া যাত্রীরা। তাদের দাবি- বন্ধ ট্রেনগুলো দ্রুত চালু করবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।

আশরাফুল আলম নামে এক বাস যাত্রী বলেন, আমি রাজশাহীতে একটি প্রাইভেট কোম্পানিতে চাকরি করি। কিন্তু আমার পরিবার থাকে চাঁপাইনবাবগঞ্জে। তাই ছুটির দিনে বাসায় আসতে হয়। কিন্তু শাটল ১ ও ৩ ট্রেন বন্ধ থাকায় আশা-যাওয়া করতে ভোগান্তি পোহাতে হয়। এর আগে ২০১৯ সালে অনেক দিন বাড়ি থেকেও ট্রেনে রাজশাহীতে গিয়ে অফিস করেছি। কিন্তু এখন আর হচ্ছে না। তাই সরকারের কাছে আমার আবেদন যে ট্রেনগুলো চালু করা হয়। এতে ভোগান্তি কমে আসবে সাধারণ মানুষের।

আসমা নামে আরেক নারী বলেন, আমার মেয়ের বিয়ে দিয়েছি রাজশাহীতে। তাই রাজশাহীতে মাঝে মাঝে যেতে হয়। আগে সকাল সাড়ে ৮টার লোকায় ট্রেনে করে যেতে পারতাম মাত্র ২০ টাকায়। কিন্তু এখন বাসে যেতে গুনতে হচ্ছে ৯০ টাকা। আমরা গরিব মানুষ এত টাকা কোথায় পাব?

আনারুল নামে এক স্থানীয় দোকানদার বলেন, যখন ট্রেনগুলো চালু ছিল সকাল ৮টার ট্রেনে উঠে রাজশাহী যেতাম ২০ টাকা দিয়ে। করোনার সময় থেকে ট্রেনগুলো বন্ধ হওয়াতে বাসে যেতে হচ্ছে ৯০ টাকায়। এতে আমাদের ব্যাপক অর্থ নষ্ট হচ্ছে। তাই আমাদের দাবি ট্রেনগুলো চালু করা হোক।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ নাগরিক কমিটির সদস্য সচিব মুনিরুজ্জামান মুনির বলেন, বিরতিহীনভাবে ট্রেনগুলো অবিলম্বে চালুর দাবিতে নাগরিক কমিটি একাধিকবার মানববন্ধনসহ বিভিন্ন দপ্তরে স্মারকলিপি দিলেও কোনো কাজ হয়নি। প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া ট্রেনগুলো কেন এখনো চালু হচ্ছে না এটাও প্রশ্নবিদ্ধ।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ রেলস্টেশন মাস্টার শহিদুল ইসলাম বলেন, কী কারণে ট্রেনগুলো বন্ধ রয়েছে জানা নেই। আর কবে নাগাদ চালু হবে এ বিষয়ে কোনো তথ্য আমাদের কাছে নেই।

জানতে চাইলে পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালুকদার জাগো নিউজকে বলেন, আগের যে ট্রেনের ইঞ্জিনগুলো ছিল সেগুলোর অনেকগুলোই নষ্ট হয়ে গেছে। কিছু কিছু মেরামতের যোগ্যও না। আর কিছু ইঞ্জিন মেরামত করা হয়েছে। সেগুলো অন্য রুটে চলছে। এজন্যই মূলত বন্ধ রয়েছে এই পাঁচ জোড়া ট্রেন।

জানা গেছে, ২০২০ সালের ২৪ মার্চ করোনা পরিস্থিতির মধ্যে বন্ধ করা হয় এই পাঁচ জোড়া ট্রেন। সেই হিসাবে ৩০ মাস আট দিন ধরে বন্ধ রয়েছে ট্রেনগুলো।

মো. সোহান মাহমুদ/এমআরআর/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।