‘ডিজিটালাইজড’ হলো ফেনী জেলা আইনজীবী সমিতি

জেলা প্রতিনিধি
জেলা প্রতিনিধি জেলা প্রতিনিধি ফেনী
প্রকাশিত: ০১:৩৬ পিএম, ২৮ নভেম্বর ২০২২

ফেনী জেলা আইনজীবী সমিতির কার্যক্রম গতিশীল করতে ডিজিটাল ডাটা সফটওয়্যার ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের আওতায় আনা হয়েছে। এতে সব ধরনের জাল-জালিয়াতি যেমন বন্ধ হবে তেমনি দালালের খপ্পরে না পড়ে বিচারপ্রার্থীরা পাবেন হয়রানি বিহীন সেবা।

আইনজীবী সমিতি সূত্রে জানা যায়, ডিজিটাল কার্যক্রমে হিসাব-নিকাশ, পাঠাগারসহ যাবতীয় কার্যক্রম রয়েছে। এছাড়া ওকালতনামা, বেইলবন্ড, রিলিজ পেপার, হাজিরাসহ অন্যান্য কাগজাদি ডিজিটালকরণ করা হয়েছে। উল্লেখিত কাগজাদিতে ছবিসহ আইডি প্রিন্ট থাকবে। সমিতির ভেনাবোলেন্ট ফান্ডসহ অন্যান্য হিসাবাদি ডিজিটালভাবে সংরক্ষিত থাকবে। প্রতি মাসে সাধারণ আইনজীবীদের কাগজাদি বিক্রির হিসাবও এসএমএস এর মাধ্যমে জানানো হবে। প্রতিজন আইনজীবীর ছবি, সমিতিতে তার সদস্য নম্বর থাকবে। আরও রাখা হচ্ছে কিউআর কোড। কিউআর কোডটি স্ক্যান করলে যেকেউ তাৎক্ষণিকভাবে ওই আইনজীবীর নাম-ঠিকানা জানতে পারবেন। ওই আইনজীবী কবে বার কাউন্সিলে নিবন্ধিত হয়েছেন, সেটিও জানা যাবে।

jagonews24

আরও জানা যায়, ডিজিটাল পদ্ধতি চালুর ফলে এখন থেকে বিচারপ্রার্থীদের ভোগান্তি কমবে। যে কেউ ইচ্ছে করলে ওকালতনামা কিনতে পারবে না। আইনজীবীর মাধ্যমে কিনতে হবে। ১৯৮৪ সালে প্রতিষ্ঠিত ফেনী জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য সংখ্যা ৩৯৮ জন। সফটওয়্যারে সব আইনজীবীর তথ্যসংবলিত ডিজিটাল ডাটাবেইস তৈরি করা হয়েছে।

রোববার (২৭ নভেম্বর) বিকেলে আইনজীবী সমিতি ভবনে আয়োজিত অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন সদর আসনের সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী।

বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা ও দায়রা জজ আবু সালেহ মোহাম্মদ রুহুল ইমরান। সমিতির সভাপতি নুরুল ইসলামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিনের পরিচালনায় আরও বক্তব্য রাখেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ ওসমান হায়দার, পাবলিক প্রসিকিউটর হাফেজ আহম্মদ, জিপি প্রিয়রঞ্জন দত্ত, সমিতির সাবেক সভাপতি মীর হোসেন মীরু, এএসএম আনোয়ারুল করিম ফারুক।

অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ সৈয়দ কায়সার মোশাররফ ইউসুফ ও রেজাউল করিম, সমিতির সাবেক সভাপতি ফরিদ আহম্মদ হাজারী, নুর হোসেন, সাহাব উদ্দিন আহমেদসহ বিপুল সংখ্যক আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন।

জেলা ও দায়রা জজ আবু সালেহ মোহাম্মদ রুহুল আমিন বলেন, বিচারপ্রার্থী জনগণের শেষ আশ্রয়স্থল আদালত। তাদের গ্রাহক হিসেবে বিবেচনা না করে মানবিক দৃষ্টিভঙ্গিতে দেখতে হবে। আদালতে এজলাস সংকট রয়েছে। একই এজলাসে একাধিক বিচারককে বিচারকাজ চালাতে হচ্ছে। সচিবের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এজলাস তৈরির জন্য প্রস্তাবনা পাঠিয়েছি। দ্রুত এটি সমাধান হবে।

jagonews24

সংসদ সদস্য নিজাম উদ্দিন হাজারী বলেন, সীমিত সাধ্যের ভিতরে আইনজীবীদের কল্যাণে সর্বোচ্চ কাজ করার চেষ্টা করি। কোভিডের সময় সারা পৃথিবী স্থবির হয়ে গিয়েছিল। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধে অর্থনৈতিক অবস্থা সংকটাপন্ন। অতি অল্পসময়ের মধ্যে জুডিশিয়াল ভবন নির্মাণের চেষ্টা করবো। ডিসেম্বর মাসে আদালত বন্ধ থাকে। বন্ধের মধ্যে এর সুফল পাওয়া যাবে। সরকার থেকে নিতে না পারলে আমি ব্যক্তিগত উদ্যোগে হলেও এই ভবন করে দেবো।

তিনি আরও বলেন, ফার্নিচার সংকট সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নেওয়া হবে। বিচারপ্রার্থীরা যাতে কোনো কষ্ট না পায় সেজন্য সুন্দর পরিবেশ সৃষ্টি করে দেবো। কে কোন দল করেন এটা বিষয় নয়। আমরা উন্নয়নের পক্ষে সবাই ঐক্যবদ্ধ থাকবো।

আবদুল্লাহ আল-মামুন/জেএস/জিকেএস

পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected] ঠিকানায়।