ব্যাংকিং খাতে উৎপাদনশীলতা উন্নয়ন কৌশল প্রয়োগের পরামর্শ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৫:৪২ পিএম, ২০ জানুয়ারি ২০১৯

ব্যাংকিং খাতকে দেশের অর্থনীতির প্রাণশক্তি হিসেবে উল্লেখ করে ভারপ্রাপ্ত শিল্প সচিব আবদুল হালিম বলেছেন, এ খাতে দক্ষতা বাড়াতে উৎপাদনশীলতা উন্নয়নের বিভিন্ন কৌশল প্রয়োগে এগিয়ে আসতে হবে।

তিনি বলেন, ব্যাংকিং খাত যত দক্ষ হবে, তহবিলের পরিচালন ব্যয় তত কমে আসবে। ফলে বিনিয়োগ বাড়বে এবং চাঙা হবে শিল্পখাত।

রোববার (২০ জানুয়ারি) শিল্প মন্ত্রণালয়ে ‘ব্যাংকিং খাতে উৎপাদনশীলতা উন্নয়ন কৌশল’ শীর্ষক কর্মশালার উদ্বোধনকালে তিনি এ মন্তব্য করেন। শিল্প মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন ন্যাশনাল প্রোডাক্টিভিটি অর্গানাইজেশন (এনপিও) দিনব্যাপী এ কর্মশালার আয়োজন করে।

এনপিও পরিচালক এস.এম. আশরাফুজ্জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব লুৎফুন নাহার বেগম বিশেষ অতিথি ছিলেন।

ভারপ্রাপ্ত শিল্প সচিব বলেন, উৎপাদনশীলতা একটি ব্যাপক ধারণা এবং এটি বৃদ্ধির মাধ্যমে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জন সম্ভব। এসডিজি লক্ষ্য নির্ধারণের ক্ষেত্রে পৃথিবীর কোনো ধরনের নেতিবাচক পরিবর্তন ছাড়াই টেকসই উন্নয়নের কথা বলা হয়েছে। এ বিবেচনায় ব্যাংক ও আর্থিক খাতে গুণগত পরিবর্তন আনতে হবে। বিশেষ করে, শিল্পখাতে পুঁজি প্রবাহ বাড়াতে ব্যাংকিং খাতে উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধির প্রয়াস জোরদার করতে হবে। এ জন্য ব্যাংকারদের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন জরুরি বলে জানান তিনি।

রাজধানীর মতিঝিলে এনপিও সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এ কর্মশালায় বাংলাদেশ ব্যাংক, বিভিন্ন সিডিউল ও নন-সিডিউল ব্যাংক, ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশসহ ব্যাংক সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রায় অর্ধশত কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন। এতে উৎপাদনশীলতার মৌলিক ধারণা, মূল্য সংযোজিত উৎপাদনশীলতার পরিমাপ, আর্থিক প্রতিষ্ঠানের বেস্ট প্রাকটিস, উৎপাদনশীলতা বিষয়ক জাপানি কৌশল ‘ফাইভ এস এবং গুড হাউজ কিপিং বিষয়ে ধারণা দেয়া হয়।

এসআই/এএইচ/জেআইএম