শিল্প খাতের সমস্যা রাতারাতি সমাধান সম্ভব নয় : শিল্পমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৫০ পিএম, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

শিল্প খাতের সমস্যা রাতারাতি সমাধান সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেছেন শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। তিনি বলেন, শিল্প খাতে বিরাজমান পুঞ্জীভূত সমস্যা রাতারাতি সমাধান সম্ভব নয়। বর্তমানে আমলাতান্ত্রিক জটিলতা থেকে বেরিয়ে ব্যবসাবান্ধব করতে হবে। এজন্য ব্যবসা সহজীকরণের লক্ষ্যে এক জায়গায় বসেই সব কাজ সম্পূর্ণ করা যায় এমন ব্যবস্থা চালু করতে চাচ্ছি।

মঙ্গলবার শিল্প মন্ত্রণালয়ে ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম অব বাংলাদেশ (আইবিএফবি) এর একটি প্রতিনিধিদলের সঙ্গে বৈঠককালে শিল্পমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

বৈঠকে সরকারের ইশতেহার এবং টেকসই উন্নয়ন অভীষ্ট (এসডিজি) অর্জনে একটি সমন্বিত জাতীয় শিল্পনীতি প্রণয়নের তাগিদ দিয়েছে আইবিএফবি। এ নীতিতে নতুন অগ্রাধিকার খাত চিহ্নিত করে রফতানি আয় বৃদ্ধির সুযোগ বের করতে হবে। পাশাপাশি একে কাগজে সীমাবদ্ধ না রেখে একটি আইনি ভিত্তিতে রূপ দেয়ার দাবি জানান ব্যবসায়ীরা।

আইবিএফবি’র নেতারা ব্যবসা ও বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ সৃষ্টিতে কয়েকটি প্রস্তাব তুলে ধরেন। তারা বলেন, শিল্পখাতে স্থানীয় ও বৈদেশিক বিনিয়োগ বাড়াতে ব্যবসার সুযোগ সহজ করতে হবে। শিল্প কারখানা স্থাপনে ভিন্ন ভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকে অনুমোদনের পরিবর্তে শুধুমাত্র শিল্প মন্ত্রণালয় থেকে সব বিষয়ে অনুমোদনের ব্যবস্থা করতে হবে। এজন্য তারা শিল্প মন্ত্রণালয়ে একটি ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালুর পরামর্শ দেন।

ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগ প্রসার এবং রুগ্ন শিল্প পুনরুদ্ধারে সংগঠনের পক্ষ থেকে অ্যাডভোকেসি ও গবেষণা সেবা প্রদানের আগ্রহ প্রকাশ করেন। তারা প্রবাসী বাংলদেশিদের জন্য বিনিয়োগ সহায়ক নীতিমালা গ্রহণের পরামর্শ দেন।

শিল্পমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকার ব্যবসাবান্ধব সরকার। দেশে শিল্পায়ন ও ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারে সরকারের নীতি সহায়তা অব্যাহত থাকবে। শিল্পায়নে বেসরকারিখাতের ভূমিকা মুখ্য। বেসরকারিখাত নতুন নতুন বিনিয়োগ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে সরকারের ইশতেহার বাস্তবায়ন করতে পারে।

এ ছাড়া ব্যবসা সহজীকরণে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেয়া হবে জানিয়ে শিল্পমন্ত্রী বলেন, এ খাতে বিরাজমান পুঞ্জীভূত সমস্যা রাতারাতি সমাধান সম্ভব নয়। পর্যায়ক্রমে এগুলোর বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে প্রতিনিধিদলকে আশ্বস্ত করেন তিনি।

বৈঠকে সংগঠনের সভাপতি হুমায়ুন রশীদ, সাবেক সভাপতি হাফিজুর রহমান খান, পরিচালক মতিউর রহমান, লুৎফুন্নিসা সাউদিয়া খান, আলী আফজাল, মুস্তাফিজুর রহমান, মুজিবুর রহমান, আনোয়ার শহিদ, ইকবাল হোসেন, সাজেদুর সিরাজ, তৌহিদা সুলতানা, উৎপল কুমার দাস, অজয় সংকর পারিয়াল, মোহাম্মদ আলী দ্বীন, হেলাল আহমেদ চৌধুরী ও প্রীতি চক্রবর্তী উপস্থিত ছিলেন।

এসআই/এমবিআর/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :