কম্প্যাক্ট টাউনশিপ নির্মাণের পরিকল্পনা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:১৭ এএম, ১৪ জুন ২০১৯

ঢাকা শহরের জলাবদ্ধতা নিরসনে ও সৌন্দর্য বৃদ্ধিকরণে হাতিরঝিল, গুলশান, বনানী, উত্তরা, কুড়িল ও পূর্বাচল এলাকায় ৩৯ কিলোমিটার খাল খনন করা হয়েছে। ভবিষ্যতে আরও ৫৫ কিলোমিটার খাল খনন করার পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান অর্থমন্ত্রী।

এ ছাড়া তুরাগ নদী নদীর বন্যাপ্রবাহ অঞ্চলের ৯ হাজার ১২৫ একর এলাকায় ৬২ শতাংশ জায়গা জলধারা হিসেবে সংরক্ষিত রেখে অবশিষ্ট এলাকায় কম্প্যাক্ট টাউনশিপ নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদ ভবনে বাজেট অধিবেশন বক্তব্যে এ প্রস্তাব পেশ করা হয়। বাজেট বক্তব্যে বলা হয়, ঢাকার পূর্বাচল নতুন শহরের পিপিপি পদ্ধতিতে ৬০ হাজার ফ্ল্যাট নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। দেশের আবাসন খাত দীর্ঘদিন যাবৎ প্রায় স্থবির হয়ে আছে।

এ খাতটি বিকশিত না হওয়ার অন্যতম কারণ স্ট্যাম্প ডিউটি ও রেজিস্ট্রেশন ফি অনেক বেশি। ফলে সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে আর ও অপ্রদর্শিত আয়ের পরিমাণও বাড়ছে। এ সব ফি যৌক্তিক পর্যায়ে নামিয়ে আনার উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে। এতে করে একদিকে আবাসন খাতের সম্প্রসারণ হবে, অন্যদিকে রাজস্ব বাড়বে। একই সঙ্গে অপ্রদর্শিত আয় প্রবণতাও কমে যাবে।

২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেট উপস্থাপন শুরু হয় দুপুরে। এটি দেশের ৪৮তম এবং বর্তমান সরকারের তৃতীয় মেয়াদের প্রথম বাজেট। ‘সমৃদ্ধ আগামীর পথযাত্রায় বাংলাদেশ : সময় এখন আমাদের, সময় এখন বাংলাদেশের’ শিরোনামে প্রস্তাবিত বাজেটের আকার ধরা হয়েছে পাঁচ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকা। দেশের ৪৮ বছরের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় বাজেট।

বৃহস্পতিবার বেলা ৩টায় স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হয়। বাজেট পেশ করছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। নতুন অর্থমন্ত্রী হিসেবে এটি তার প্রথম বাজেট।

এএস/এমআরএম

আপনার মতামত লিখুন :