এক হাত বদলেই সবজির দাম দ্বিগুণ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০২:৫১ পিএম, ১৪ জুন ২০১৯

দেশি শাক-সবজিতে রমরমা কারওয়ান বাজার। অনেকটা সহনীয় দামেই এসব সবজি পাইকারি বিক্রি করছেন আড়তদাররা। তবে এখান থেকে কিনে এসব সবজি খুচরা বাজারে কোনো কোনো ক্ষেত্রে বিক্রি করা হচ্ছে দ্বিগুণেরও বেশি দামে।

মাত্র এক হাত বদলের পর শবজির এমন দামের চিত্র শুক্রবার (১৪ জুন) রাজধানীর কারওয়ান বাজার ও এর পার্শ্ববর্তী এলাকা ঘুরে দেখা যায়।

কলাবাগান এলাকার এক খুচরা বিক্রেতা জানান, চিচিঙ্গা ৪০ টাকা, ঝিঙে ৪০, ঢেঁড়স ৪০, করলা ৫০, বরবটি ৫০, পটর ৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি করছেন। এসব সবজিই কারওয়ান বাজারে ১২ থেকে ১৫ টাকা কেজিতে পাইকারি বিক্রি হচ্ছে বলে জানিয়েছেন বিক্রেতারা।

অর্থাৎ পাইকারি দামের চেয়ে অধিকাংশ সবজি কেজিতে প্রায় ২৫ টাকা বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে।

কারওয়ান বাজার থেকে পাইকারি কিনে ওই বাজারের পাশেই খুচরা সবজি বিক্রি করেন আব্দুর রাজ্জাক। তিনি জানান, বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) শসা পাইকারি কেনেন ১৮ টাকা কেজি, আর খুচরা বিক্রি করেন ২৫ থেকে ৩০ টাকায়। তবে শুক্রবার সেই শসা ৩০ টাকার উপরে পাইকারি কিনে খচরা বিক্রি করছেন ৩৫ থেকে ৪০ টাকায়।

শসা ছাড়া অন্যান্য সবজির দাম বাড়েনি বলেও জানান আব্দুর রাজ্জাক। তিনি জানান, শুক্রবার পটল পাইকারি কিনেছেন ১২ টাকায়, খুচরা বিক্রি করছেন ২০ টাকায়। করলা ২৫ টাকায় পাইকারি কিনে খুচরা বিক্রি করছেন ৩৫ থেকে ৪০ টাকায়। ঢেঁড়স পাইকারি কিনেছেন ১৫ টাকা কেজি, বিক্রি করছেন ৩০ টাকায়। ঝিঙা ১৫ টাকায় পাইকারি কিনে, বিক্রি করছেন ২০ টাকায়। চিচিঙ্গা ১৫ টাকা কেজি পাইকারি কিনেছেন, খচরা বিক্রি করছেন ২০ থেকে ২৫ টাকায়। বরবটি ২৫ টাকায় পাইকারি কিনে খুচরা বিক্রি করছেন ৩০ টাকায়।

তিনি প্রতি কেজি সবজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা করে লাভ করছেন। অন্যদিকে কারওয়ান বাজারের বাইরে রাজধানীর অন্যান্য খুচরা বাজারে এই দাম আরও বেড়ে যায়।

হাত বদলে চালের বাড়তি দাম ১৫ টাকা

কারওয়ান বাজারের চালের আড়তদার মো. জাহাঙ্গীর জানান, চালের দাম ঈদের আগে যা ছিল, এখনও তাই আছে। তিনি জানান, মিনিকেট চাল ৪০ টাকায়, আটাশ ৩০, পাইজন ২৫ ও স্বর্ণা ২৩ টাকা কেজি পাইকারি বিক্রি করছেন।

কলাবাগান এলাকার এক খুচরা বিক্রেতা জানান, তিনি পাইজন ও স্বর্ণা বিক্রি করেন না। তবে মিনিকেট চাল ৫৫ থেকে ৫৬, আটাশ ৪৫ টাকায় বিক্রি করছেন। অর্থাৎ কারওয়ান বাজার থেকে প্রায় ১৫ মিনিট পথের (হেঁটে) দূরুত্বের খুচরা বাজারে সেই চাল ১৫ থেকে ১৬ টাকা বাড়তি দরে বিক্রি হচ্ছে।

পিডি/জেডএ/এমকেএইচ

আপনার মতামত লিখুন :