বিনিয়োগ আকর্ষণে নীতি কাঠামোর সংস্কার চান ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:৩৭ পিএম, ১২ জুলাই ২০২০

বেসরকারি ও বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণে সামগ্রিক নীতির সংস্কার ও দীর্ঘমেয়াদি কর কাঠামো চালু প্রয়োজন। একই সঙ্গে করোনা (কোভিড-১৯) পরবর্তী নতুন নতুন সম্ভাবনা খুঁজে বের করে, দেশের স্বাভাবিক উন্নয়ন কৌশলের সাথে তাল মিলিয়ে সংস্কার কার্যক্রম গ্রহণ জরুরি বলে মনে করছেন উদ্যোক্তা, ব্যবসায়ী ও নীতি নির্ধারকরা।

রোববার রিসারজেন্ট বাংলাদেশ আয়োজিত তৃতীয় সংলাপ ‘অনিশ্চিত সময়ে বেসরকারি বিনিয়োগ : বাংলাদেশে কোভিডের প্রভাব এবং নীতিমালার প্রয়োগ’ সংক্রান্ত আলোচনায় এসব মতামত দেন তারা। জুম ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে এ প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হয়। রিসারজেন্ট বাংলাদেশ হলো এমসিসিআই, ডিসিসিআই, চট্রগ্রাম স্টক এক্সচেঙ্গ লিমিটেড, বিল্ড ও পলিসি এক্সচেঞ্জের যৌথ উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত একটি প্ল্যাটফর্ম। এমসিসিআই সভাপতি ব্যারিস্টার নিহাদ কবির আলোচনাটি সঞ্চালনা করেন।

অনুষ্ঠানে তারা বলেন, বিনিয়োগ স্থবিরতা দূরীকরণে করোনার নানামুখী প্রভাব পর্যালোচনার স্বার্থে বাংলাদেশের দ্রুত নতুন নীতিমালা প্রণয়নসহ প্রয়োজনীয় বাণিজ্য নীতিমালা সংস্কার দরকার। করোনা পরবর্তী নতুন নতুন সম্ভাবনা খুঁজে বের করতে হবে। দেশের স্বাভাবিক উন্নয়ন কৌশলের সাথে তাল মিলিয়ে নীতি সংস্কার কার্যক্রম, ইউরোপ ও দক্ষিণ এশিয়া থেকে নতুন নতুন বিনিয়োগ আকর্ষণে কার্যকর উদ্যোগ নিতে হবে। পাশাপাশি সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারকদের পরিকল্পনার সঙ্গে বাস্তবায়নের সংগতি রেখে কর ও বৈদেশিক মুদ্রা আহরণের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতা দূর করার দাবি জানান তারা।

চট্রগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান এবং রিসারজেন্ট বাংলাদেশের স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য আসিফ ইব্রাহীম বলেন, করোনা থেকে উত্তোরণে, ব্যবসার পরিবেশ উন্নয়নে ও বাংলাদেশের উন্নয়ন লক্ষমাত্রা বাস্তবায়নে বেসরকারি বিনিয়োগ বাড়ানো জরুরি।

মূল প্রবন্ধে পলিসি এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান ড. মাসরুর রিয়াজ বলেন, করোনায় অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বিশ্বে শিল্প উৎপাদন খাতে যে পরিবর্তন এসেছে, বিনিয়োগকারীদের অগ্রাধিকার যাচাই এবং তাদের দৃষ্টিতে ভবিষৎ বিনিয়োগ পরিস্থিতি, সুযোগ, সংশ্লিষ্ট নীতি কাঠামো ইত্যাদি বিষয়গুলোকে প্রাধান্য দিতে হবে। চলমান এ অবস্থা থেকে অর্থনৈতিক উত্তরণের জন্য বেসরকারি ও বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণের কোনো বিকল্প নেই বলে জানান তিনি।

কাস্টমস ও লজিস্টিক বিষয়ের দূর্বলতাগুলো সমাধান, বৈদেশিক মুদ্রা পরিস্থিতি পর্যালোচনা, স্থানীয় ও বিদেশি বেসরকারি বিনিয়োগকারিদের বিনিয়োগের জন্য প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করার পরামর্শ দেন এপেক্স ফুটওয়্যারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর।

ইউনিলিভার বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও কাদের লেলে বলেন, দক্ষিণ এশিয়ায় আঞ্চলিক বাণিজ্যের সুযোগ সুবিধা গ্রহণের উপর ও বিনিয়োগ সম্ভাবনা খুঁজে বের করার ওপর জোর দেন।

গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ইয়াসের আজমান বলেন, সামগ্রিক নীতি কাঠামোর সংস্কার ও দীর্ঘমেয়াদি কর কাঠামো ব্যবসার পরিবেশ উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সাবেক চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূইয়া নীতি নির্ধারকদের সাথে ব্যবসায়ী মহলের নিয়মিত আলোচনার তাগিদ দেন। এনবিআরের আরও একজন সাবেক চেয়ারম্যান ড. নাসিরউদ্দিন আহমেদ দীর্ঘমেয়াদি উন্নয়ন কৌশল যথা অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা বাস্তবায়নে এনবিআর ও কর কাঠামের আধুনিকায়নের পরামর্শ দেন।

বিজনেস ইনিশিয়েটিভ লিডিং ডেভেলপমেন্টের (বিল্ড) চেয়ারম্যান আবুল কাসেম খান চীন ও ভারতের বিশাল বাজারের সুবিধা গ্রহণের পরামর্শ প্রদান করেন। স্প্যানিশ চেম্বারের সভাপতি নুরিয়া লোপেজ, ফরেন চেম্বারের নির্বাহি পরিচালক নূরুল কবির, ইকোনমিক রিপোটার্স ফোরামের সেক্রেটারি জেনারেল রাশিদুল ইসলাম অন্যান্যদের মাঝে বক্তব্য প্রদান করেন।

ঢাকা চেম্বারের সভাপতি শামস মাহমুদ বলেন, বেসরকারি বিনিয়োগ আকর্ষণের সাথে যেসব সরকারি সংস্থাসমূহ জড়িত তারা যেন আগ্রহী বিনিয়োগকারীদের সার্বিক সহায়তা প্রদান করে ও কোনোরকম হয়রানি না করে সে বিষয়ে নজরদারি জোরদার করতে হবে। শুধুমাত্র বিদেশি বিনিয়োগই নয়, স্থানীয় বিনিয়োগ আকর্ষণেও সম্ভব সকল কিছু করতে তিনি সরকারের সহায়তা কামনা করেন।

সংসদ সদস্য ও পররাষ্ট্র বিষয়ক সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নাহিম রাজ্জাক বলেন, বাণিজ্য ও বিনিয়োগকে উৎসাহ প্রদানের লক্ষ্যে পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে একটি সুনির্দিষ্ট ইউনিট স্থাপন করা হয়েছে।

করোনার প্রভাব মোকাবিলায় সরকারের বিভিন্নমুখী প্রকল্প ও কর্মকৌশলের প্রতি সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করে আওয়ামী লীগের অর্থ ও পরিকল্পনা কেন্দ্রীয় কমিটির সচিব ওয়াসেকা আয়শা খান বলেন, সহজে ব্যবসা করার সূচকে উন্নতির জন্য ও বাংলাদেশের ইতিবাচক ব্র্যান্ডিংয়ের জন্য প্রয়োজনীয় নীতিমালা সংস্কারের প্রয়োজন আছে।

বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষের (বেপজা) নির্বাহী চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল সালাউদ্দিন ইসলাম বলেন, প্রণোদনা ও প্রতিযোগী শ্রমবাজার বাংলাদেশে বেসরকারি বিনিয়োগ আকর্ষণে সাহায্য করবে।

বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম বলেন, সরকার খেলাপি ঋণ হ্রাস ও কাস্টমস আইন যুগোপযোগীকরণের ক্ষেত্রে যথাযথ নীতি সংস্কারের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। প্রযুক্তিতে উৎকর্ষ সাধনের মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট দফতরসমূহের যথাযথ সমন্বয়ের মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের ওয়ান স্পট সার্ভিসের সুবিধা আরও সুন্দরভাবে প্রদান করা যাবে বলে জানান তিনি।

এসআই/এমএসএইচ/এমএস

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

২,০৮,০৭,০০০
আক্রান্ত

৭,৪৭,২৫৮
মৃত

১,৩৭,০৬,৬৮৫
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ২,৬৬,৪৯৮ ৩,৫১৩ ১,৫৩,০৮৯
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ৫৩,৬০,৩০২ ১,৬৯,১৩১ ২৮,১২,৬০৩
ব্রাজিল ৩১,৭০,৪৭৪ ১,০৪,২৬৩ ২৩,০৯,৪৭৭
ভারত ২৩,৯৫,৪৭১ ৪৭,১৩৮ ১৬,৯৫,৮৬০
রাশিয়া ৯,০২,৭০১ ১৫,২৬০ ৭,১০,২৯৮
দক্ষিণ আফ্রিকা ৫,৬৮,৯১৯ ১১,০১০ ৪,৩২,০২৯
পেরু ৪,৯৮,৫৫৫ ২১,৭১৩ ৩,৪১,৯৩৮
মেক্সিকো ৪,৯৮,৩৮০ ৫৪,৬৬৬ ৩,৩৬,৬৩৫
কলম্বিয়া ৪,২২,৫১৯ ১৩,৮৩৭ ২,৩৯,৭৮৫
১০ চিলি ৩,৭৮,১৬৮ ১০,২০৫ ৩,৫১,৪১৯
১১ স্পেন ৩,৭৬,৮৬৪ ২৮,৭৫২ ১,৯৬,৯৫৮
১২ ইরান ৩,৩৩,৬৯৯ ১৮,৯৮৮ ২,৯০,২৪৪
১৩ যুক্তরাজ্য ৩,১৩,৭৯৮ ৪৬,৭০৬ ৩৪৪
১৪ সৌদি আরব ২,৯৩,০৩৭ ৩,২৬৯ ২,৫৭,২৬৯
১৫ পাকিস্তান ২,৮৫,৯২১ ৬,১২৯ ২,৬৩,১৯৩
১৬ আর্জেন্টিনা ২,৬৮,৫৭৪ ৫,২১৩ ১,৮৭,২৮৩
১৭ ইতালি ২,৫১,৭১৩ ৩৫,২২৫ ২,০২,৬৯৭
১৮ তুরস্ক ২,৪৪,৩৯২ ৫,৮৯১ ২,২৭,০৮৯
১৯ জার্মানি ২,২০,৮৫০ ৯,২৭৬ ২,০০,৮০০
২০ ফ্রান্স ২,০৬,৬৯৬ ৩১,০১৭ ৮৩,৪৭২
২১ ইরাক ১,৬০,৪৩৬ ৫,৫৮৮ ১,১৪,৫৪১
২২ ফিলিপাইন ১,৪৩,৭৪৯ ২,৪০৪ ৬৮,৯৯৭
২৩ ইন্দোনেশিয়া ১,৩০,৭১৮ ৫,৯০৩ ৮৫,৭৯৮
২৪ কানাডা ১,২০,৮৪৪ ৯,০০৬ ১,০৭,১৪৮
২৫ কাতার ১,১৩,৯৩৮ ১৯০ ১,১০,৬২৭
২৬ কাজাখস্তান ১,০১,৩৭২ ১,২৬৯ ৭৬,৭৫৬
২৭ ইকুয়েডর ৯৭,১১০ ৫,৯৮৪ ৭৮,৮৮৭
২৮ মিসর ৯৫,৯৬৩ ৫,০৮৫ ৫৫,৯০১
২৯ বলিভিয়া ৯৫,০৭১ ৩,৮২৭ ৩২,৮৩০
৩০ ইসরায়েল ৮৮,১৫১ ৬৩৯ ৬২,১০৯
৩১ চীন ৮৪,৭৫৬ ৪,৬৩৪ ৭৯,৩৯৮
৩২ ইউক্রেন ৮৪,৫৪৮ ১,৯৭০ ৪৫,৬৮৬
৩৩ সুইডেন ৮৩,৪৫৫ ৫,৭৭৪ ৪,৯৭১
৩৪ ওমান ৮২,২৯৯ ৫৩৯ ৭৭,০৭২
৩৫ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ৮২,২২৪ ১,৩৭১ ৪৭,০৯৫
৩৬ পানামা ৭৭,৩৭৭ ১,৭০৩ ৫১,৫৯৭
৩৭ বেলজিয়াম ৭৫,৬৪৭ ৯,৯০০ ১৭,৮৮৩
৩৮ কুয়েত ৭৩,৭৮৫ ৪৮৯ ৬৫,৪৫১
৩৯ বেলারুশ ৬৯,১০২ ৫৯৫ ৬৫,৮৯৩
৪০ রোমানিয়া ৬৫,১৭৭ ২,৮০৭ ৩১,০৪৮
৪১ সংযুক্ত আরব আমিরাত ৬৩,২১২ ৩৫৮ ৫৭,১৯৩
৪২ নেদারল্যান্ডস ৬০,৬২৭ ৬,১৬১ ২৫০
৪৩ গুয়াতেমালা ৫৯,০৮৯ ২,২৬৭ ৪৭,৩৯৪
৪৪ সিঙ্গাপুর ৫৫,৩৯৫ ২৭ ৫০,৫২০
৪৫ পোল্যান্ড ৫৩,৬৭৬ ১,৮৩০ ৩৭,৬১১
৪৬ পর্তুগাল ৫৩,২২৩ ১,৭৬৪ ৩৮,৯৪০
৪৭ জাপান ৫০,২১০ ১,০৫৯ ৩৪,৮৮৮
৪৮ হন্ডুরাস ৪৮,৬৫৭ ১,৫৩৩ ৬,৯৪৫
৪৯ নাইজেরিয়া ৪৭,৭৪৩ ৯৫৬ ৩৩,৯৪৩
৫০ বাহরাইন ৪৫,২৬৪ ১৬৬ ৪১,৮৩৬
৫১ ঘানা ৪১,৫৭২ ২২৩ ৩৯,৩২০
৫২ আর্মেনিয়া ৪০,৭৯৪ ৮০৬ ৩৩,৪৯২
৫৩ কিরগিজস্তান ৪০,৭৫৯ ১,৪৮৪ ৩২,৯৯৭
৫৪ আফগানিস্তান ৩৭,৩৪৫ ১,৩৫৪ ২৬,৬৯৪
৫৫ সুইজারল্যান্ড ৩৭,১৬৯ ১,৯৯১ ৩২,৭০০
৫৬ আলজেরিয়া ৩৬,৬৯৯ ১,৩৩৩ ২৫,৬২৭
৫৭ মরক্কো ৩৬,৬৯৪ ৫৫৬ ২৫,৬৭৭
৫৮ আজারবাইজান ৩৩,৮২৪ ৪৯৭ ৩১,০৫৮
৫৯ উজবেকিস্তান ৩২,৬৫৪ ২১১ ২৫,৬৫৯
৬০ ভেনেজুয়েলা ২৯,০৮৮ ২৪৭ ২১,০৪২
৬১ সার্বিয়া ২৮,৭৫১ ৬৫৮ ১৮,৯৬৫
৬২ মলদোভা ২৮,৬৯৭ ৮৬৩ ১৯,৯৯৮
৬৩ কেনিয়া ২৮,১০৪ ৪৫৬ ১৪,৬১০
৬৪ আয়ারল্যান্ড ২৬,৮৩৮ ১,৭৭৪ ২৩,৩৬৪
৬৫ ইথিওপিয়া ২৫,১১৮ ৪৬৩ ১১,০৩৪
৬৬ কোস্টারিকা ২৫,০৫৭ ২৬৩ ৮,১৮৯
৬৭ নেপাল ২৪,৪৩২ ৯১ ১৬,৭২৮
৬৮ অস্ট্রিয়া ২২,৪৩৯ ৭২৪ ২০,২৬৮
৬৯ অস্ট্রেলিয়া ২২,৪১৭ ৩৬১ ১২,৭৭৯
৭০ এল সালভাদর ২১,৬৪৪ ৫৭৭ ১০,০৫৬
৭১ চেক প্রজাতন্ত্র ১৯,০৭৫ ৩৯১ ১৩,৪০৭
৭২ ক্যামেরুন ১৮,২৬৩ ৪০১ ১৫,৩২০
৭৩ আইভরি কোস্ট ১৬,৮৪৭ ১০৫ ১৩,৩২১
৭৪ ফিলিস্তিন ১৫,১৮৪ ১০৫ ৮,৩৬৯
৭৫ ডেনমার্ক ১৫,০৭০ ৬২১ ১৩,০৬৬
৭৬ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ১৪,৯৬১ ৪৫৩ ৮,৮২৭
৭৭ দক্ষিণ কোরিয়া ১৪,৭৭০ ৩০৫ ১৩,৮১৭
৭৮ বুলগেরিয়া ১৩,৮৯৩ ৪৮২ ৮,৪৭৯
৭৯ মাদাগাস্কার ১৩,৩৯৭ ১৫৬ ১১,৫২৯
৮০ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ১২,২১৭ ৫৩০ ৮,৪৮৭
৮১ সুদান ১২,০৩৩ ৭৮৬ ৬,২৮২
৮২ সেনেগাল ১১,৫৮৭ ২৪২ ৭,৫২৩
৮৩ নরওয়ে ৯,৭৮৩ ২৫৬ ৮,৮৫৭
৮৪ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ৯,৫৩৮ ২২৫ ৮,৪২১
৮৫ মালয়েশিয়া ৯,১১৪ ১২৫ ৮,৮১৭
৮৬ জাম্বিয়া ৮,৫০১ ২৪৬ ৭,২৩৩
৮৭ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ৮,৪২৩ ৫০ ৭,৭১৩
৮৮ গিনি ৮,১১৬ ৫০ ৭,০৬০
৮৯ গ্যাবন ৮,০৭৭ ৫১ ৫,৯২০
৯০ প্যারাগুয়ে ৮,০১৮ ৯৩ ৫,৩৮৪
৯১ তাজিকিস্তান ৭,৯১২ ৬৩ ৭,২৩৫
৯২ হাইতি ৭,৭৪৩ ১৮৭ ৫,১২৩
৯৩ ফিনল্যাণ্ড ৭,৬৪২ ৩৩৩ ৭,০৫০
৯৪ লেবানন ৭,৪১৩ ৮৯ ২,৪০৭
৯৫ লুক্সেমবার্গ ৭,৩০০ ১২২ ৬,২৬২
৯৬ আলবেনিয়া ৬,৮১৭ ২০৮ ৩,৫৫২
৯৭ মৌরিতানিয়া ৬,৬২২ ১৫৭ ৫,৭৪১
৯৮ লিবিয়া ৬,৬১১ ১৩২ ৭৭৮
৯৯ গ্রীস ৬,১৭৭ ২১৬ ৩,৮০৪
১০০ ক্রোয়েশিয়া ৫,৮৭০ ১৬০ ৫,০২৪
১০১ মালদ্বীপ ৫,৩৬৬ ২১ ২,৮৮৪
১০২ জিবুতি ৫,৩৫৮ ৫৯ ৫,১৫০
১০৩ জিম্বাবুয়ে ৪,৮৯৩ ১২২ ১,৬২০
১০৪ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ৪,৮২১ ৮৩ ২,১৮২
১০৫ হাঙ্গেরি ৪,৭৬৮ ৬০৫ ৩,৫২৯
১০৬ মালাউই ৪,৭৫২ ১৫২ ২,৫২৯
১০৭ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ৪,৬৫২ ৬১ ১,৭২৮
১০৮ হংকং ৪,২৪৪ ৬৩ ৩,১৮৯
১০৯ নিকারাগুয়া ৪,১১৫ ১২৮ ২,৯১৩
১১০ মন্টিনিগ্রো ৩,৮১৩ ৭৩ ২,৬৩৮
১১১ কঙ্গো ৩,৭৪৫ ৬০ ১,৬২৫
১১২ ইসওয়াতিনি ৩,৫২৫ ৬৩ ১,৯১০
১১৩ নামিবিয়া ৩,৪০৬ ২২ ৮৩৫
১১৪ থাইল্যান্ড ৩,৩৫৬ ৫৮ ৩,১৬৯
১১৫ সোমালিয়া ৩,২২৭ ৯৩ ১,৭২৮
১১৬ কিউবা ৩,১২৮ ৮৮ ২,৫০৪
১১৭ মায়োত্তে ৩,০৯১ ৩৯ ২,৮৩৫
১১৮ কেপ ভার্দে ৩,০০০ ৩৩ ২,১৭২
১১৯ শ্রীলংকা ২,৮৮১ ১১ ২,৬৩৮
১২০ স্লোভাকিয়া ২,৬৯০ ৩১ ১,৮৮৪
১২১ সুরিনাম ২,৬৫৩ ৩৯ ১,৭৮৯
১২২ মালি ২,৫৮২ ১২৫ ১,৯৭৭
১২৩ মোজাম্বিক ২,৫৫৯ ১৯ ৯৫১
১২৪ দক্ষিণ সুদান ২,৪৭৭ ৪৭ ১,১৭৫
১২৫ লিথুনিয়া ২,৩০৯ ৮১ ১,৬৮৩
১২৬ স্লোভেনিয়া ২,৩০৩ ১২৯ ১,৯৬০
১২৭ রুয়ান্ডা ২,১৮৯ ১,৫২৪
১২৮ এস্তোনিয়া ২,১৭৪ ৬৯ ১,৯৭৫
১২৯ গিনি বিসাউ ২,০৮৮ ২৯ ১,০১৫
১৩০ বেনিন ২,০১৪ ৩৮ ১,৬৮১
১৩১ আইসল্যান্ড ১,৯৭২ ১০ ১,৯০৭
১৩২ সিয়েরা লিওন ১,৯৩৭ ৬৯ ১,৪৮৩
১৩৩ ইয়েমেন ১,৮৪১ ৫২৮ ৯৩৭
১৩৪ তিউনিশিয়া ১,৭৮০ ৫২ ১,২৭৮
১৩৫ অ্যাঙ্গোলা ১,৭৬২ ৮০ ৫৭৭
১৩৬ নিউজিল্যান্ড ১,৫৮৯ ২২ ১,৫৩১
১৩৭ গাম্বিয়া ১,৪৭৭ ৩৩ ২৪৭
১৩৮ উরুগুয়ে ১,৩৯৩ ৩৭ ১,১৬৩
১৩৯ উগান্ডা ১,৩৩২ ১,১৩৯
১৪০ সিরিয়া ১,৩২৭ ৫৩ ৩৮৫
১৪১ লাটভিয়া ১,৩০৩ ৩২ ১,০৭৮
১৪২ জর্ডান ১,৩০৩ ১১ ১,২১৫
১৪৩ সাইপ্রাস ১,২৯১ ২০ ৮৭০
১৪৪ জর্জিয়া ১,২৭৮ ১৭ ১,০৫৮
১৪৫ লাইবেরিয়া ১,২৫২ ৮২ ৭৩৮
১৪৬ বুর্কিনা ফাঁসো ১,২১৩ ৫৪ ৯৯৫
১৪৭ মালটা ১,১৯০ ৬৯৫
১৪৮ নাইজার ১,১৬১ ৬৯ ১,০৭৫
১৪৯ টোগো ১,০৯২ ২৬ ৭৮২
১৫০ বতসোয়ানা ১,০৬৬ ৮০
১৫১ জ্যামাইকা ১,০৪৭ ১৪ ৭৫৩
১৫২ বাহামা ১,০৩৬ ১৫ ১২২
১৫৩ এনডোরা ৯৭৭ ৫৩ ৮৫৫
১৫৪ চাদ ৯৪৯ ৭৬ ৮৫৯
১৫৫ ভিয়েতনাম ৮৮৩ ১৮ ৪৫১
১৫৬ আরুবা ৭৯৮ ১১৪
১৫৭ লেসোথো ৭৯৮ ২৪ ১৭৫
১৫৮ রিইউনিয়ন ৭৩৪ ৬৩১
১৫৯ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১৩ ৬৫১
১৬০ সান ম্যারিনো ৬৯৯ ৪৫ ৬৫৭
১৬১ গায়ানা ৬২৩ ২৩ ১৯১
১৬২ চ্যানেল আইল্যান্ড ৬০৩ ৪৮ ৫৫৫
১৬৩ তানজানিয়া ৫০৯ ২১ ১৮৩
১৬৪ তাইওয়ান ৪৮১ ৪৫০
১৬৫ বুরুন্ডি ৪০৯ ৩১৫
১৬৬ কমোরস ৩৯৯ ৩৭৯
১৬৭ গুয়াদেলৌপ ৩৬৭ ১৪ ২৮৯
১৬৮ মায়ানমার ৩৬১ ৩১৮
১৬৯ মরিশাস ৩৪৪ ১০ ৩৩৪
১৭০ ফারে আইল্যান্ড ৩৩৯ ২২৫
১৭১ মার্টিনিক ৩৩৬ ১৬ ৯৮
১৭২ আইল অফ ম্যান ৩৩৬ ২৪ ৩১২
১৭৩ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ৩২৬ ১৩৯
১৭৪ মঙ্গোলিয়া ২৯৩ ২৬৯
১৭৫ পাপুয়া নিউ গিনি ২৮৭ ৭৮
১৭৬ ইরিত্রিয়া ২৮৫ ২৪৮
১৭৭ কম্বোডিয়া ২৬৮ ২২০
১৭৮ সিন্ট মার্টেন ২৪৮ ১৭ ১০২
১৭৯ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড ২৪১ ৪৬
১৮০ বেলিজ ২১০ ৩২
১৮১ জিব্রাল্টার ২০৩ ১৮৭
১৮২ কেম্যান আইল্যান্ড ২০৩ ২০২
১৮৩ বারমুডা ১৫৯ ১৪৫
১৮৪ বার্বাডোস ১৪৪ ১১৫
১৮৫ ব্রুনাই ১৪২ ১৩৮
১৮৬ মোনাকো ১৪১ ১১৪
১৮৭ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ১৩৯ ৬৪
১৮৮ সিসিলি ১২৭ ১২৬
১৮৯ ভুটান ১১৩ ৯৭
১৯০ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ৯২ ৭৬
১৯১ লিচেনস্টেইন ৯০ ৮৭
১৯২ সেন্ট মার্টিন ৮৪ ৪৪
১৯৩ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড ৫৭ ৫২
১৯৪ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ ৫৪
১৯৫ ম্যাকাও ৪৬ ৪৬
১৯৬ কিউরাসাও ৩২ ৩০
১৯৭ ফিজি ২৭ ১৮
১৯৮ সেন্ট লুসিয়া ২৫ ২৫
১৯৯ পূর্ব তিমুর ২৫ ২৪
২০০ গ্রেনাডা ২৪ ২৩
২০১ নিউ ক্যালেডোনিয়া ২৩ ২২
২০২ লাওস ২০ ১৯
২০৩ ডোমিনিকা ১৮ ১৮
২০৪ সেন্ট কিটস ও নেভিস ১৭ ১৭
২০৫ গ্রীনল্যাণ্ড ১৪ ১৪
২০৬ মন্টসেরাট ১৩ ১৩
২০৭ সেন্ট বারথেলিমি ১৩
২০৮ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস ১৩
২০৯ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড ১৩ ১৩
২১০ ভ্যাটিকান সিটি ১২ ১২
২১১ পশ্চিম সাহারা ১০
২১২ জান্ডাম (জাহাজ)
২১৩ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন
২১৪ এ্যাঙ্গুইলা
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।
করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]