নৌকার প্রচারণা করে সমালোচনার শিকার মীর সাব্বির যা বললেন

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬:০৪ পিএম, ১৮ জানুয়ারি ২০২১

বরগুনা পৌরসভা নির্বাচনে আটঘাট বেঁধে নৌকা প্রতীকের প্রচারণায় নেমেছেন জনপ্রিয় অভিনেতা ও নির্মাতা মীর সাব্বির। এতে চটেছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। এক সময় ছাত্রদল মনোনীত প্রার্থী হয়ে বরগুনা সরকারি কলেজ ছাত্র সংসদে বিপুল ভোটের ব্যবধানে নাট্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে নির্বাচিত এই জনপ্রিয় তারকা আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর প্রচারণায় নামায় বিএনপি নেতাকর্মীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে একাধিক পোস্ট দিয়েছেন ফেসবুকে।

সেসব পোস্টে তার রাজনৈতিক নীতিনৈতিকতা নিয়ে প্রশ্ন তোলা হয়েছে। সেই সঙ্গে ৯০ শতাংশ লোক জাতীয়তাবাদী আদর্শ ধারণ করা বরগুনার ঐতিহ্যবাহী মীর পরিবারের সন্তান হিসেবে মীর সাব্বির নৌকার প্রচারণা করছেন দেখে অনেকে অবাক ও বিস্মিত হয়েছেন বলেও দাবি করেন।

এদিকে নন্দিত অভিনেতা ও পরিচালক মীর সাব্বির এসব অভিযোগ আমলে না নেয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, ‘তারা ছাত্রদলের হয়ে নির্বাচনের ব্যাপারে যা বলছে তা সত্য। নির্বাচন আমি করেছিলাম। তবে এখানে অনেক রঙ মেশানো কথাও আছে, যা আমাকে ছোট করতেই বলা হচ্ছে। যারা অভিযোগ করছেন তারা খুব ভালো করেই জানেন, আমি কখনো কোনো দিন মন থেকে ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলাম না। পরিস্থিতি ও স্থানীয় রাজনীতির শিকার ছিলাম।’

আমি কৈশোর থেকেই থিয়েটার, গান-সংস্কৃতির সঙ্গে জড়ি। অভিনয় করতাম, গান করতাম। খেলাঘরসহ বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম। সে সুবাদে এলাকা ও কলেজে আলাদা জনপ্রিয়তা ছিল আমার। সেই জনপ্রিয়তা কাজে লাগাতে কলেজের ছাত্রদল আমাকে ব্যবহার করেছিল।

দেখবেন, কলেজে এগুলো হরহামেশাই হয়। কোনো ছাত্র জনপ্রিয় হলে তার সেই জনপ্রিয়তা কাজে লাগাতে বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠন তাকে দলে টানার চেষ্টা করে। আমার বিষয়টিও তাই। আমাকে যারা ছোট থেকেই চেনেন তারাও বিষয়টি জানেন। আমি নিজে যখন জীবনবোধ, মূল্যবোধ, স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধকে উপলব্ধি করতে শিখেছি তখন থেকেই আমি মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে লালন করেছি। একটি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ প্রত্যাশা করেছি।

সেই তাগিদ থেকেই গত জাতীয় নির্বাচনে স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের শক্তি আওয়ামী লীগের হয়ে প্রচারণা চালিয়েছি। তখন কিন্তু কেউ কোনো সমালোচনা করেনি। এখন স্থানীয়ভাবে যখন বরগুনার একজন নৌকার প্রার্থীর জন্য ভোট চাচ্ছি তখন কেন সবাই অপপ্রচার চালাচ্ছেন- তা সহজেই বোধগম্য। তারা আসলে নিজেদের পরাজয় দেখতে পারছেন। কিন্তু সেটা মেনে নিতে পারছেন না। এজন্যই পুরোনো ছেলেমানুষি ঘটনা টেনে আলোচনায় আনতে চাইছেন।

এই অভিনেতা ও পরিচালক আরও বলেন, “এটাও বলতে চাই যে তারা ‘মীর’ পরিবার নিয়ে যে তথ্য দিয়েছে সেটা নিতান্তই মনগড়া। এই পরিবারের ৯০ শতাংশ মানুষ কখনো জাতীয়তাবাদী আদর্শ ধারণ করেনি। বরং ৫০ শতাংশেরও বেশি মানুষকে ছোটবেলা থেকেই আওয়ামী লীগ ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের রাজনীতি করতে দেখেছি। সুতরাং বোঝা যাচ্ছে তারা আমাকে হেয় করতে গিয়ে একটি সমৃদ্ধ, ঐতিহ্যবাহী পরিবার নিয়ে মিথ্যাচার করছে।

আমি সবাইকে বলবো এসব নিয়ে বিভ্রান্ত হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। আমি অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের স্বপ্নে বিভোর মুক্তিযুদ্ধ ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর চেতনাকে লালন করা একজন মানুষ।”

প্রসঙ্গত, অভিনয়ের পাশাপাশি একজন নাট্য নির্মাতা হিসেবেও জনপ্রিয় মীর সাব্বির। সম্প্রতি তিনি হাত দিয়েছেন সিনেমা নির্মাণে। সরকারি অনুদানপ্রাপ্ত ‘রাত জাগা ফুল’ নামে সিনেমা নির্মাণ করছেন তিনি। এখানে কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন জান্নাতুল ফেরদৌস ঐশী ও আবু হুরায়রা তানভীর। আরও অভিনয় করবেন দিলারা জামান, আবুল হায়াৎ, শর্মিলী আহমেদ, ফজলুর রহমান বাবু, ডা. এজাজুল ইসলাম, নাজনীন চুমকী ও জয়রাজসহ অনেকে। দেখা যাবে মীর সাব্বিরকেও।

পরিচালনার পাশাপাশি সিনেমাটির কাহিনি, সংলাপ, চিত্রনাট্য করেছেন মীর সাব্বির। এরই মধ্যে এর শুটিং শেষ হয়েছে।

এলএ/এমকেএইচ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]