সিঙ্গারায় কেন তিন কোণা?

ফিচার ডেস্ক
ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ০১:২৬ পিএম, ০৯ জুলাই ২০১৮

সকাল-বিকেল-সন্ধ্যার যে কোনো আড্ডা বা মেহমানদারিতে সিঙ্গারার জুড়ি নেই। বর্ষাকালে বৃষ্টি-বাদলের সময়ও সিঙ্গারা হাতে হাতে থাকলে মজাই আলাদা। শীতের কুয়াশামাখা ক্ষণেও সিঙ্গারা রীতিমতো ইতিহাস। কিন্তু কখনো কি ভেবেছি- সিঙ্গারার কোণা তিনটি হয় কেন? কারা এর আবিষ্কারক? না জানলে এখনই জেনে নেওয়া যায়-

singara-in

আবিষ্কার: সিঙ্গারা বাঙালি বা ভারতীয়দের সৃষ্টি নয়। ইতিহাস বলছে, ইরান থেকেই নাকি এদেশে এসেছে সিঙ্গারা। ইরানি ইতিহাসবিদ আবুল ফজল বায়হাকি তার ‘তারিখ-এ-বেহাগি’ বইয়ে উল্লেখ করেছিলেন ‘সাম্বোসা’র। এই ‘সাম্বোসা’ই সিঙ্গারার আদি রূপ। তবে দ্বাদশ শতাব্দী থেকেই মোটামুটি ভারত উপমহাদেশের মাটিতে পরিচিত নাম সিঙ্গারা। আমির খসরুর রচনায় এর উল্লেখ আছে।

singara-in

তিন কোণা: সিঙ্গারা কী কারণে তিন কোণা হলো, তার কোনো নির্দিষ্ট উত্তর নেই। তবে ‘ইয়াহু’তে এই প্রশ্ন ভেসে আসার পরে কেউ কেউ উত্তর দিয়েছেন, ‘আটা বা ময়দার তৈরি সিঙ্গারার শরীরে তরকারির পুর ভরা হয়। এক্ষেত্রে গোল বা চৌকো না হয়ে ত্রিকোণাকার হওয়াই স্বাভাবিক।’ অন্য একজন লিখেছেন, ‘কেবল বেসনে ভাজাই হয় না সিঙ্গারাকে। তার মধ্যে পুরও ভরা হয়। ফলে ওই আকৃতি লাভ করে। গোল, চৌকো বা ডিম্বাকৃতি নয়, তিন কোণা হওয়াই স্বাভাবিক।’

অমীমাংসিত: তবে এমনও হতে পারে যে, সিঙ্গারা যখন তৈরি হয়, তখন ওই রকম আকারের কোনো স্ন্যাক্স হয়তো ছিল না, তাই ওই রকম আকার দেওয়া হয়েছিল। সবচেয়ে মজার বিষয় হচ্ছে- যদি জানতে চাওয়া হয়, রুটি কেন গোল? এর উত্তর কী হতে পারে? আর আপনি যদি অন্য আকারের বানান, তাহলে শাশুড়িই বা কী বলবেন?

এসইউ/জেআইএম