অপরাধে জড়িত যুক্তরাষ্ট্রের ৫ শীর্ষ শহর

ফিচার ডেস্ক
ফিচার ডেস্ক ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:১৬ এএম, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বড় শহরগুলোতে মে-জুন মাসে হত্যার পরিমাণ ৩৭ শতাংশ বেড়েছে। যা ২০১৯ সালের তুলনায় ৩০ শতাংশ বেশি। বলা যায়, ১৯৯০ সালের শিকাগোর চেয়েও বিপজ্জনক অবস্থা ধারন করেছে।

ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, অপরাধের ভিত্তিতে যুক্তরাষ্ট্রের কিছু শহরের উপর নিরীক্ষা চালানো হয়। এতে হত্যা, ধর্ষণ, ডাকাতি ও হামলা বিগত বছরগুলো থেকে বেড়েছে।

আসুন জেনে নেই অপরাধে জড়িত শহরগুলোর পরিচয়-

jagonews24

ডেট্রয়েট শহর: ডেট্রয়েট হলো যুক্তরাষ্ট্রের মিশিগান রাজ্যের একমাত্র শহর। যেখানে সহিংস অপরাধের হার প্রতি ১০ লাখে ২ হাজার ছাড়িয়েছে। জাতীয় গড়ের চেয়ে ৪২৮% বেশি। শহরে বড় বড় স্থান অবৈধ কাজের সাথে জড়িত। এমনকি ভবনগুলো মাদক ব্যবসা এবং জঘন্য অপরাধের প্রজনন ক্ষেত্র হিসাবে কাজ করে।

jagonews24

লিটল রক শহর: লিটল রক হলো যুক্তরাষ্ট্রের কম শিক্ষিত জনগোষ্ঠীর নিম্নমানের একটি শহর। যেখানে ১,৯৭,৩৭১ জন মানুষের বসবাস। যা আরাকানসাসের একমাত্র বৃহত্তম শহর। কিন্তু এখানে প্রতি ১ লাখ বাসিন্দার ১ হাজার ৪৪৬ জন অপরাধের (চুরি, হত্যা ইত্যাদি) সাথে জড়িত। এমনকি মার্কিন শহরগুলোর মধ্যে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে।

jagonews24

স্টকটন শহর: ক্যালিফোর্নিয়ার স্টকটন শহরটি সর্বাধিক জনবহুল। যার মোট জনসংখ্যা ৩,১৬,৯৯৬ জন। এর বেশিরভাগ জনতাই হিংসাত্মক অপরাধে জড়িত। তথ্য অনুযায়ী, শহরের প্রতি ১০ লাখ বাসিন্দার ১ হাজার ৩৮৬ জন সহিংস অপরাধে জড়িত।

jagonews24

মিলওয়াকি শহর: মিলওয়াকির জনসংখ্যা ৫,৯৪,০০০ জন। যা উইসকনসিন রাজ্যের বৃহত্তম শহর হিসাবে পরিচিত। কিন্তু এ শহরের প্রতি ১ লাখ জনসংখ্যার ১ হাজার ৪১৩ জন সহিংস অপরাধের সাথে জড়িত। যা উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে। এমনকি যুক্তরাষ্ট্রকেও বিপজ্জনক করে তুলেছে।

jagonews24

ক্লিভল্যান্ড শহর: খুন, হামলা ও ধর্ষণের সাথে জড়িত থাকা এ শহরের জনসংখ্যা ৩,৭৯,২৩৩ জন। এ শহরের প্রতি ১ লাখ বাসিন্দার ১ হাজার ৪৪৯ জন অপরাধের সাথে জড়িত। এমনকি অপরাধের হার অনুযায়ী লিটল রক শহরের একটু উপরে অবস্থিত ক্লিভল্যান্ড।

এসইউ/এএ/জেআইএম

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]