মারা গেলেন বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক পুরুষ

ফিচার ডেস্ক
ফিচার ডেস্ক ফিচার ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:৩৯ পিএম, ১৯ জানুয়ারি ২০২২

বিশ্বের সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি স্প্যানিয়ার্ড স্যাটার্নিনো দে লা ফুয়েন্তে ১১২ বছর ৩৪১ দিন বয়সে মারা গেছেন। ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে স্প্যানিয়ার্ড স্যাটার্নিনো জীবিত সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি (পুরুষ) হিসেবে রেকর্ড করেন। তখন তার বয়স ছিল ১১২ বছর ২১১ দিন।

স্যাটার্নিনোর ১১৩ তম জন্মদিনের আর মাত্র তিন সপ্তাহ বাকি ছিল। আরেকটি রেকর্ড গড়ার সম্ভাবনা ছিল তার। তবে তার আগেই স্পেনের নিজ শহর লিওনের বাড়িতে মারা যান তিনি।

cover-(2).jpg

স্যাটার্নিনো ১৯০৯ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি লিওনে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি এল পেপিনো নামেও পরিচিত। পেপিনো ছিল স্যাটার্নিনোর মায়ের নাম। তাই তাকে সবাই ভালোবেসে লিটল পেপিনো ডাকত। ১৯৩৩ সালে আন্তোনিনা ব্যারিও গুটিয়েরেজকে বিয়ে করেন তিনি। তার সাত সন্তান, ১৪ নাতি নাতনী এবং তাদের ঘরে আরও ২২ জন সন্তানাদি রয়েছে।

তার উচ্চতা ছিল ১.৫০ মিটার (৪.৯২ ফুট)। স্যাটার্নিনো ১৯৩৬ সালের স্প্যানিশ গৃহযুদ্ধের পর জুতা তৈরির ব্যবসা শুরু করেন। এটিই শেষ সময় পর্যন্ত তার পেশা ছিল। তিনি সেনাবাহিনীর সৈন্যদের জুতা তৈরি করতেন। সে কারণে তিনি সব জায়গায় বেশ পরিচিত ছিলেন। একসময় এলাকার একজন বিখ্যাত কারিগরে পরিণত হন।

cover-(2).jpg

তার আরেকটি ভালোবাসার জায়গা ছিল ফুটবল। লিওনের দল কালচারাল লিওনেসার সমর্থক ছিলেন। পুয়েন্তে কাস্ত্রোর স্থানীয় দলের সহ-প্রতিষ্ঠাতাও ছিলেন স্যাটার্নিনো। তার ১১০ তম জন্মদিনে শুভেচ্ছা জানাতে তার ক্লাবের সদস্যরা এসেছিলেন। এমনকি তিনিই ছিলেন সেই ক্লাবের সবচেয়ে বয়স্ক সদস্য।

স্যাটার্নিনোর আগে গিনেস রেকর্ডে সবচেয়ে বয়স্ক ব্যক্তি ছিলেন ফ্রান্সের জ্যাঁ লুইস কালমেন্ট। তিনি ১৯৯৭ সালে ১২২ বছর ১৬৪ দিন বয়সে মারা যান। তিনি ১৮৭৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে জন্ম নিয়েছিলেন।

সূত্র: গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস

কেএসকে/এমএস

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]