সিরিয়ায় বাসে হামলায় নিহত অন্তত ১৩

আন্তর্জাতিক ডেস্ক
আন্তর্জাতিক ডেস্ক আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২:৫৭ এএম, ২১ জুন ২০২২

সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলের রাক্কা ও হোমস শহরকে সংযোগকারী হাইওয়েতে একটি বেসামরিক বাসকে লক্ষ্য করে হামলা চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা। এতে কমপক্ষে ১১ সৈন্য ও দুজন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরও তিন সেনা সদস্য আহত হয়েছেন।

সোমবার (২০ জুন) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে এ হামলার ঘটনা ঘটে। সিরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

বিবৃতিতে সিরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, আজ (সোমবার) সকাল সাড়ে ৬টার দিকে আল-জিরা এলাকায় রাক্কা-হোমস মহাসড়কে একটি বেসামরিক বাস সন্ত্রাসী হামলার শিকার হয়েছে। এতে ১৩ জন নিহত এবং তিনজন আহত হয়েছেন।

তবে সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস (এসওএইচআর) হামলার শিকার হওয়া বাসটিকে সামরিক যান বলে উল্লেখ করেছে। যুদ্ধ-বিগ্রহ পর্যবেক্ষক এ সংস্থাটি জানিয়েছে, ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্ট (আইএসআইএল) বা আইএসআইএসের সদস্যরা আল-রাক্কা মরুভূমির জাবাল আল-বাশারি এলাকায় ওই সামরিক যানে হামলা করেছে।

এ ঘটনায় বেশ কিছু লোক গুরুতর আহত হওয়ায় মৃতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে এসওএইচআর।

যদিও এখনো পর্যন্ত কেউ এই হামলার দায় স্বীকার করেনি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, আইএসআইএল-ই এ হামলা করেছে। কারণ এর আগে জোরপূর্বক ওই এলাকাটি নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নেয় সশস্ত্র এই গোষ্ঠী। তিন বছর আগে সংঘটিত এক যুদ্ধে এ গোষ্ঠীর পরাজয়ের পর থেকেই তারা সেখানে নির্লজ্জের মতো আক্রমণ চালিয়ে যাচ্ছে।

মূলত রাক্কা শহরটি সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠীদের স্বঘোষিত খিলাফতের রাজধানী এবং সিরিয়া কর্তৃপক্ষ নিয়মিত এই ধরনের হামলার জন্য তাদের দায়ী করে থাকে।

সিরিয়ায় গত ১১ বছরের সংঘাত দেশটিকে বিভিন্ন অংশে বিভক্ত করে রেখেছে। সেখানের বেশিরভাগ অঞ্চল সরকারী সৈন্য ও মিত্র যোদ্ধারা নিয়ন্ত্রণ করছে। তবে দেশটির পূর্ব, উত্তর ও মধ্যভাগে আইএসআইএল গোষ্ঠী সক্রিয় রয়েছে।

সিরিয়ায় এর আগেও এ ধরনের অনেক হামলা হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ ছিল ২০২০ সালের ডিসেম্বরের ঘটনা। তখন সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় দেইর আয-যোর প্রদেশের প্রধান হাইওয়েতে একটি বাসে সন্ত্রাসীদের হামলায় ২৮ জন নিহত হয়েছিল।

এমপি/

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]