কুমিল্লার দুই মামলায় খালেদার জামিনের রুল শুনানি ১৬ জুলাই

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩:৩৭ পিএম, ১২ জুলাই ২০১৮
ফাইল ছবি

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানায় করা হত্যা ও নাশকতার অভিযোগে পৃথক দুই মামলায় কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিন প্রশ্নে জারি করা রুলের শুনানির জন্য আগামী ১৬ জুলাই ধার্য করেছেন হাইকোর্ট।

এ সংক্রান্ত বিষয়ে শুনানিতে বৃহস্পতিবার নির্ধারিত দিনে হাইকোর্টের বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ পরবর্তী এই দিন ধার্য করেন।

আদালতে খালেদা জিয়ার পক্ষে আইনজীবী ছিলেন- অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন, সঙ্গে ছিলেন একেএম এহসানুর রহান, অ্যাডভোকেট মাসুদ রানা, সালমা সুলতানা সোমা প্রমুখ। অন্যদিকে, রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুর্টি অ্যার্টনি জেনারেল ড. বশির উল্লাহ।

এর আগে গত ২ জুলাই কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানায় করা হত্যা মামলায় খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া ৬ মাসের জামিন স্থগিত করেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। সঙ্গে সঙ্গে, জামিন নিয়ে জারি করা হাইকোর্টের রুল চার সপ্তাহের মধ্যে নিষ্পত্তি করার নির্দেশ দেন আপিল বিভাগ।

রাষ্ট্রপক্ষের করা লিভ টু আপিল নিষ্পত্তি করে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বিভাগের বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আপিল বিভাগের নির্দেশনা অনুযায়ী হাইকোর্টে রুল শুনানির জন্য ১০ জুলাই দিন ঠিক করেন। পরে তা পিছিয়ে ১২ জুলাই দিন ঠিক করেন। আজ নির্ধারিত দিনে তা পিছিয়ে ১৬ জুলাই পরবর্তী শুনানির দিন ঠিক করেন।

গত ২৮ মে কুমিল্লার নাশকতার দুই মামলায় ৬ মাসের জামিন পান বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন। কিন্তু হত্যার অভিযোগে করা মামলায় খালেদার জামিন মঞ্জুর করেননি হাইকোর্ট।

এরপর রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পর গত ২৯ মে আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালত খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিনাদেশ স্থগিত করেন এবং ৩১ মে আপিল বিভাগের পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির আদেশ দেন।

৩১ মে শুনানির পর আপিল বিভাগ খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন স্থগিত রাখেন এবং রাষ্ট্রপক্ষকে লিভ টু আপিল করতে আদেশ দেন। ২৪ জুন এ বিষয়ে শুনানি শেষে ২ জুলাই আদেশের দিন ধার্য করা হয়। ২ জুলাই কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম থানায় করা হত্যা মামলায় খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেয়া ছয় মাসের জামিন স্থগিত করেন আপিল বিভাগ। একইসঙ্গে, এ মামলায় জামিন বিষয়ে হাইকোর্টের জারি করা রুল চার সপ্তাহের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে বলা হয়।

২০১৫ সালের শুরুর দিকে ২০ দলীয় জোটের অবরোধ চলাকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চৌদ্দগ্রামে দুষ্কৃতিকারীদের ছোড়া পেট্রোল বোমায় অগ্নিদগ্ধ হয়ে আইকন পরিবহনের একটি বাসের সাতজন যাত্রীর মৃত্যু হয়। আহত হন আরও ২০ জন।

এ ঘটনায় একটি হত্যা মামলা করা হয়। একই ঘটনাই বিস্ফোরক দ্রব্যের আইনে অপর একটি মামলা করা হয়। ওই মামলা পরর্বতীতে ধারা পরিবর্তন করে নাশকতার মামলা করা হয় বলে জানান আইনজীবী ব্যারিস্টার একেএম এহসানুর রহমান।

এফএইচ/এমআরএম/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :