১৬তম শিক্ষক নিবন্ধন সার্কুলার নিয়ে রুল

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১৫ পিএম, ২৮ জুলাই ২০১৯

উত্তীর্ণদের নিয়োগ না দিয়ে বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগ ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) জারি করা ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার সার্কুলার কেন বেআইনি ও অবৈধ ঘোষণা করা হবে না- তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব, একই মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের জ্যেষ্ঠ সহকারী সচিব, এনটিআরসির চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্টদের এ রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত এক রিটের প্রাথমিক শুনানিতে রোববার (২৮ জুলাই) বিচারপতি তারিক উল হাকিম ও বিচারপতি মো. সোহরাওয়ারদীর সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ রুল জারি করেন। আদালতে রিটকারীদের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী শারফ উদ্দীন আবেদ।

রিট আবেদনে বলা হয়, এনটিআরসিএ ঘোষিত জাতীয় মেধা তালিকায় উত্তীর্ণদের নিয়োগ না দিয়ে নতুন করে ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার সার্কুলার জারি করা হয়। ওই সার্কুলারে শূন্যপদের সংখ্যা নির্ধারণ না করায় তা ২০০৬ সালের বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা গ্রহণ ও প্রত্যয়ন বিধিমালা ৩(ক) এর লঙ্ঘন হয়েছে।

তাই গত ২৩ মে জারি করা এনটিআরসিএর ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধনের সার্কুলার আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ও আইনগতভাবে অকার্যকর ঘোষণা চেয়ে নাটোরের মো. জাহাঙ্গীর আলমসহ ২২ জন হাইকোর্টে রিট করেন। ওই রিটের শুনানি নিয়ে আদালত এ রুল জারি করেন।

রিটকারী মো. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘প্রত্যেকের শিক্ষক নিবন্ধন সার্টিফিকেটে স্পষ্টভাবে লেখা আছে উত্তীর্ণ প্রার্থী সহকারী শিক্ষক বা প্রভাষক পদে দেশের যে কোনা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগযোগ্য হবেন। এ ছাড়াও এনটিআরসিএর আইনে রয়েছে, প্রতিবছর শিক্ষকদের শূন্যপদের সংখ্যা প্রকাশ করে, সেই শূন্য পদ অনুযায়ী শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষা নেয়ার এবং শূন্যপদে নিয়োগ প্রদান করার কথা। কিন্তু শিক্ষকদের শূন্যপদ না থাকা সত্ত্বেও পুনরায় ১৬তম নিবন্ধন পরীক্ষার সার্কুলার জারি করা পুরোপুরি অবৈধ। তাই ১৬তম সার্কুলারের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে আমরা রিট করেছি।’

এফএইচ/এনডিএস/জেআইএম