মা অনশনে, বাচ্চাটার কী হবে

মুরাদ হুসাইন
মুরাদ হুসাইন , নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪:০০ পিএম, ০৯ জানুয়ারি ২০১৮ | আপডেট: ০৪:০৫ পিএম, ০৯ জানুয়ারি ২০১৮
মা অনশনে, বাচ্চাটার কী হবে

স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষকদের চলমান আন্দোলনে নারী শিক্ষকদের সঙ্গে রয়েছে তাদের ছোট শিশুরাও। গত ৯ দিন ধরেই এসব শিশুর দিন কাটছে শীতের মধ্যে ব্যস্ত সড়ক তোপখানা রোডে বসে মায়ের কোলে।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনের এ রাস্তা দিয়েই চলছে হাজারো গাড়ি ও পথচারী। যাত্রী ও পথচারীরা উৎসুক চোখে দেখছেন শিক্ষকদের মধ্যে অবস্থানরত এ ছোট শিশুদের। এ শিশুরা একদিকে যেমন শব্দ দূষণের শিকার হচ্ছে, তেমনি নগরীর বায়ূ দূষণও তাদের রেহাই দিচ্ছে না।

শিশুদের মায়েদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, তাদের সন্তানদের বাসায় একা রাখার মতো অবস্থা নেই বিধায় বাধ্য হয়ে আন্দোলনে বাচ্চাদেরও সঙ্গে আনতে হয়েছে।

এ আন্দোলনে ভোলা থেকে এসেছেন কামরুন নাহার। তিনি ঢালী বাড়ি স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষক। সঙ্গে তার চার বছরের সন্তান আশিকুর রহমান। দীর্ঘ ২০ বছর বিনা বেতনে শিক্ষকতা করে আসছেন তিনি। পরিবারে স্বামী-স্ত্রী ও চার সন্তান। স্বামী একটি বেসরকারি কোম্পানিতে চাকরি করেন। ছোট শিশুটি শিক্ষকদের আমরণ অনশনে মধ্যে মায়ের কোলে বসে কখনও কাঁদছে, আবার কখনও মায়ের কাছে নানা বায়না ধরছে। তার মা সন্তানের কান্না থামানোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

কামরুন নাহার জাগো নিউজকে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে বিনা বেতনে শিক্ষকতা করতে হয়েছে। বর্তমানে ১ হাজার টাকা বেতনে চাকরি করতে হচ্ছে। এভাবে ২০ বছর কেটে গেছে। স্বামীর বেতন দিয়ে অনেক কষ্টে পরিবার চালাতে হচ্ছে।

তিনি বলেন, পরিবারে আমার তিন মেয়ে ও ছেলে। ছেলেটি ছোট। তাই বাসায় একা রাখা সম্ভব না বলে সঙ্গে নিয়ে এসেছি।

বরিশাল করিবাহির চর স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসার শিক্ষক জেমমিন আক্তার। তিনিও ১৮ বছর ধরে শিক্ষকতা করে যাচ্ছেন। পরিবারে রয়েছে স্বামী-স্ত্রী ও দুই ছেলে সন্তান। গত ৯ দিন ধরে এ আন্দোলনের সঙ্গে রয়েছেন তিনি। সঙ্গে এনেছেন চার বছরের ছোট ছেলে আবিদকে।

teacher1

জেসমিন আক্তার বলেন, অনেক কষ্ট হলেও আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি। ঘরে সাত বছরের সন্তান ও স্বামী রেখে এসেছেন। গত আটদিন ধরে অনেক কষ্টে সঙ্গে আনা সন্তানকে নিয়ে দিন পার করতে হচ্ছে। আমি অসুস্থ হয়ে গেলে কে দেখবে আমার সন্তানকে। এ বলে তিনি কান্নায় ভেঙে পড়েন।

এ শিক্ষক প্রশ্ন রাখেন, জানি না আর কতদিন এভাবে না খেয়ে রাস্তায় বসে আন্দোলন চালিয়ে যেতে হবে? পরিবার ছাড়া আমি ও আমার সন্তানকে থাকতে হবে।

টানা আটদিন অবস্থান কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার পরও সরকারের কাছ থেকে কোনো আশ্বাস না পেয়ে আজ থেকে আমরণ অনশনে বসেছেন স্বতন্ত্র ইবতেদায়ি মাদরাসা শিক্ষকরা। মঙ্গলবার বেলা ১১টা থেকে রাজধানীর প্রেস ক্লাবের সামনে এ অনশন শুরু করেছেন তারা।

এমএইচএম/এনএফ/এমএস