বাংলাদেশের সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্ক সম্প্রসারণে আগ্রহী সৌদি বাদশাহ

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১১:৫৯ পিএম, ০৭ মার্চ ২০১৯

বাংলাদেশের সঙ্গে অধিকতর অর্থনৈতিক সম্পর্ক সম্প্রসারণে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সউদ।

বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বাংলাদেশে সফররত সৌদি আরবের বাণিজ্য ও বিনিয়োগমন্ত্রী ড. মাজিদ বিন আবদুল্লাহ আল কুশইবি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎকালে এ কথা জানান।

বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম সৌদি মন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে সাংবাদিকদের একথা জানান। বৈঠকে সফররত বাণিজ্য ও বিনিয়োগমন্ত্রীর সঙ্গে সৌদি আরবের অর্থ ও পরিকল্পনামন্ত্রী মোহাম্মেদ বিন মাজিদ আল তাবিজরিও উপস্থিত ছিলেন।

ড. মাজিদ বলেন, ‘আমি বাংলাদেশে আসার আগে গত সোমবার মহামান্য বাদশাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ করি। সে সময় তিনি বাংলাদেশের সঙ্গে অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদারের আগ্রহ প্রকাশ করেন।’

প্রেস সচিব বলেন, বৈঠকে তারা সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সউদ ও যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমানের শুভেচ্ছা প্রধানমন্ত্রীকে পৌঁছে দেন। তারা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশের বিশাল অগ্রগতির ভূয়সী প্রশংসা করেন। দুই মন্ত্রীর মাধ্যমে সৌদি বাদশাহকে তার শুভেচ্ছা জানান প্রধানমন্ত্রী।

দুই মন্ত্রী বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রশংসা করে বাংলাদেশকে এশিয়ান টাইগার হিসেবে অভিহিত করেন। তারা দ্রুত দারিদ্র্য হ্রাসেরও প্রশংসা করে বলেন, এ ক্ষেত্রে তারা যে সাফল্য দেখছেন তা তাদের প্রত্যাশারও বাইরে।

দুই দেশের বিদ্যমান ভ্রাতৃত্বপূর্ণ সম্পর্ককে তারা নতুন উচ্চতায় নিয়ে যেতে চান জানিয়ে সৌদি মন্ত্রী বলেন, তারা বাংলাদেশে রেলওয়ে, বিমান চলাচল এবং ডাক ও যোগাযোগসহ সাতটি খাত চিহ্নিত করেছেন। এসব খাতে সৌদি বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগে আগ্রহী।

সৌদি আরবের দুই মন্ত্রীকে বাংলাদেশে স্বাগত জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, সৌদি আরবের সঙ্গে আমাদের ঐতিহ্যগত সম্পর্ক রয়েছে। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে দেশের আরও উন্নয়ন। যদিও বাংলাদেশ আয়তনে ছোট দেশ এবং জনসংখ্যাও অনেক বেশি।

সৌদি বিনিয়োগ প্রত্যাশা করে শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশে অধিক শিল্পায়ন ও কর্মসংস্থানের জন্য তার সরকার ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করছে। শিল্প স্থাপনে আগ্রহী উদ্যোক্তাদের পছন্দে আমরা জমি দিচ্ছি। বাংলাদেশে রয়েছে বিশাল অভ্যন্তরীণ বাজার।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সরকার লালমনিরহাটে একটি এভিয়েশন অ্যান্ড এয়ারোনটিক্স বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করছে, এ লক্ষ্যে আইনও পাস হয়েছে।

সাক্ষাৎ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী দুই মন্ত্রীকে আরবি ভাষায় অনুদিত বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনীর বই উপহার দেন।

সাক্ষাৎকালে আরও উপস্থিত ছিলেন অর্থমন্ত্রী এ এইচ এম মুস্তফা কামাল, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন, বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি, পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-ইলাহি চৌধুরী, বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব মো. নজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসান, সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত ও ঢাকায় নিযুক্ত সৌদি আরবের রাষ্ট্রদূত।

এইউএ/বিএ

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]