‘মুলামুলির সময় নাই, এক দাম এক রেট’

বিশেষ সংবাদদাতা
বিশেষ সংবাদদাতা বিশেষ সংবাদদাতা
প্রকাশিত: ০৪:৪৩ পিএম, ৩১ মে ২০১৯

বিকেল সাড়ে ৩টা। রাজধানীর নিউ সুপার মার্কেটের দোতলায় শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত মার্কেটে হাই ভলিউমে হিন্দি গান বেজে চলেছে। দোকানের কর্মচারী গানের তালে তালে শরীর দুলিয়ে একদাম ৩৫০ টাকা। নিলেই জিতবেন বলে ক্রেতাদের ডাকছেন।

Eid-Kenakata

বাইরে প্রচণ্ড গরম থেকে এসে অসংখ্য ক্রেতা এসিতে খানিকটা গা জুড়ানোর জন্য হলেও দোকানের সামনে দাঁড়াচ্ছেন। একদাম দেখে কেউ কেউ দাম কমানোর কথা বলতেই দোকানির নগদ জবাব, মুলামুলির সময় নাই, এক দাম এক রেট। এ দৃশ্যপট আজ শুক্রবার ঈদবাজারের।

Eid-Kenakata

রাজধানীর কলাবাগানের বাসিন্দা নিলুফার ইয়াসমিন বলেন, সপ্তাহখানেক আগেও তিনি কেনাকাটা করতে এ সব দোকানে এসেছেন কিন্তু এক দামের সাইনবোর্ড দেখেননি। কিন্তু আজ অনেক দোকানে এক দামের সাইনবোর্ড দেখছেন। তবে জিনিস দেখে নিতে পারলে অপেক্ষাকৃত কম দামে শার্ট, প্যান্ট, সালোয়ার কামিজও প্রসাধনী কেনার জন্য এ মার্কেটই ভালো বলে মন্তব্য করেন।

সরেজমিন দেখা গেছে, শুক্রবার ছুটির দিনে নিউ মার্কেটের প্রায় সব দোকানে বিভিন্ন বয়সী নারী , পুরুষ ও শিশুর উপচে পড়া ভিড়। গরম উপেক্ষা করে ধনী-গরিব নির্বিশেষে সাধ্যমতো কেনাকাটা করছেন। বেচাকেনা বাড়ায় দোকানিদের চোখে মুখে হাসির ঝিলিক দেখা গেছে।

Eid-Kenakata

নিউ সুপার মার্কেটের একাধিক দোকানি জাগো নিউজের এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, কয়েকদিন আগেও ক্রেতাদের কাছে পণ্য বিক্রি করতে অনেক কথা বলতে হতো। কিন্তু এখন দম ফেলার ফুসরত নেই। দামাদামির ঝামেলা এড়াতে অনেকে এক দামে পণ্য বিক্রির সাইন বোর্ড ঝুলিয়েছেন বলে জানান।

এমইউ/জেএইচ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]