১০ নারী মুক্তিযোদ্ধাকে ঈদ শুভেচ্ছা

জাগো নিউজ ডেস্ক
জাগো নিউজ ডেস্ক জাগো নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৯:৩০ পিএম, ০২ জুন ২০১৯

মুক্তিযুদ্ধে নির্যাতিত নারীদের সম্মানে স্মৃতিস্তম্ভ করার দাবি জানিয়েছেন নারী নেতারা। সেইসঙ্গে গণভবনসহ রাষ্ট্রীয় যেকোনো অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা মায়েদের অতিথি করারও আহ্বান জানানো হয়। স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন উইয়ের (উই আর দ্য আর্থ-ডাব্লিউই) উদ্যোগে ১০ নারী মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা দেয়া হয়।

রোববার রাজধানীর কাঁটাবনে কবিতা ক্যাফের মিলনায়তনে দশ নারী মুক্তিযোদ্ধাকে ঈদের শুভেচ্ছা জানায় সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন সাবেক সংসদ সদস্য কবি কাজী রোজী, বাংলাদেশ নারী সাংবাদিক কেন্দ্রের সভাপতি নাসিমুন আরা মিনু, বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক বিষয়ক সম্পাদক রোকেয়া প্রাচী এবং কবি ও শিক্ষক ঝরনা রহমান।

উইয়ের প্রধান নির্বাহী শরীফা বুলবুলের সভাপতিত্বে বক্তারা বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধে নির্যাতিত নারীদের কাছে আমরা ঋণী। তবে দুঃখের বিষয়, আজও তাদের অনেকেই সমাজে অবহেলা আর বঞ্চনা নিয়ে পড়ে আছেন। অনেকেই ঘরহারা-বাড়িহারা অসহায় অবস্থায় দিন যাপন করছে। তাদের পাশে দাঁড়ানো, তাদের মুখে হাসি ফোটানো আমাদের দায়িত্ব।

সাংবাদিক নাসিমুন আরা মিনু বলেন, একাত্তরে ভয়াবহ নারী নির্যাতনের সব ইতিহাস আমরা আজও জানি না। একাত্তরের মতোই এখনো নারী নিপীড়ন, যৌন হয়রানি চলছে। এসব বন্ধে নারীদেরই সাহসী ভূমিকা রাখতে হবে।

অনুষ্ঠান শেষে মুক্তিযোদ্ধা রিজিয়া বেগম, রাজিয়া বেগম, লুৎফা বেগম, নূরজাহান বেগম, রঙ মালা, সাবিহা বেগম, স্বর্ণলতা ফলিয়া, আনোয়ারা বেগম, নাজমা বেগম ও রেজিয়া বেগমের হাতে ঈদের নতুন কাপড় ও নগদ অর্থ তুলে দেন অতিথিরা।

এ সময় মুক্তিযোদ্ধা মায়েরা বলেন, নারীদের সম্মান রক্ষায় ও দেশের প্রয়োজনে এখনও আমরা জীবন দিতে প্রস্তুত। অনুষ্ঠানের শুরুতে মহান মুক্তিযোদ্ধাদের স্মরণ করে গাওয়া হয়, দাম দিয়ে কিনেছি বাংলা, কারো দানে পাওয়া নয়...।

বলাকা প্রকাশনের সহযোগিতায় অনুষ্ঠান আয়োজন করে উই। শুরুতে স্বাগত বক্তব্য দেন উইয়ের নির্বাহী প্রধান শরীফা বুলবুল। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন কবি ও গল্পকার মোর্শেদা নাসির।

এমআরএম/পিআর

আপনার মতামত লিখুন :