যোগ্য প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির সিদ্ধান্ত হয়েছে : শিক্ষামন্ত্রী

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১০:০৪ পিএম, ২৪ জুন ২০১৯

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, সম্পদ সীমিত হওয়া সত্ত্বেও চারটি ক্রাইটেরিয়ার ভিত্তিতে বিবেচিত সকল প্রতিষ্ঠানকে, আমি আবারও বলছি- যোগ্য বিবেচিত সকল প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে শেখ হাসিনার সরকার।

সোমবার জাতীয় সংসদে বাজেট আলোচনায় দাঁড়িয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, আমাদের সকলের কাছে খুব একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলো এমপিও। এমপিওর জন্য চাকরির ক্রাইটেরিয়া ধরে গত বছর আমাদের যে নীতিমালা হয়েছে এবং নীতিমালার আলোকে সবার কাছ থেকে অনলাইনে আবেদন আহ্বান করা হয়েছিল। ক্রাইটেরিয়াগুলো হলো- স্বীকৃতি থাকা, শিক্ষার্থীর সংখ্যা, পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এবং পরীক্ষায় উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থীর সংখ্যা।

তিনি বলেন, একজন শিক্ষক ভালো কি না; তার পরিচয় কী? বলা হয় বৃক্ষ তোমার নাম কী, ফলে পরিচয়। শিক্ষক খুব যোগ্য হলে নিশ্চয় তার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী থাকবে, পরীক্ষার্থী থাকবে এবং তাদের ফলাফল ভালো হবে। আর শিক্ষক যদি অযোগ্য হয়, তাহলে বিপরীত অবস্থা হবে।

তিনি আরও বলেন, আমরা আজকাল শুনতে পাই কোনো কোনো শিক্ষক, পত্রিকায় রিপোর্ট হয়, টাকার বিনিময়ে বিভিন্ন প্রকাশনার বই বিভিন্ন সময় শিক্ষার্থীদের কিনতে বাধ্য করা হয়। না পড়িয়ে শিক্ষার্থীদের বাধ্য করে কোচিংয়ে পড়তে। এমন অনেক কারণেই দেখা যায় কোথাও কোথাও শিক্ষার্থীদের ফলাফল খারাপ হয়। যেসব শিক্ষক এ ধরনের কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকবে, নিশ্চয় তাদেরকে আমরা রিউয়ার্ড করতে চাই না। কাউকে বঞ্চিত করা আমাদের উদ্দেশ্য নয়, আমাদের উদ্দেশ্য শিক্ষার উপযুক্ত পরিবেশ তৈরি করে, শিক্ষার মান উন্নয়ন করা।

দীপু মনি বলেন, যেসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনলাইনে তথ্য-উপাত্ত ইনপুট দিয়েছে- সেই ভিত্তিতে সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে যোগ্য প্রতিষ্ঠানের তালিকা হয়েছে। এখানে কারও হস্তক্ষেপের সুযোগ নেই। যেগুলো যোগ্য বিবেচিত হতে পারেনি, সেগুলো নিয়ে আসুন আমরা সবাই মিলে চেষ্টা করি কীভাবে সেগুলো উন্নত এবং যোগ্য করে তোলা যায়। কেউ কেউ বলতে পারেন এমপিও দিলে তখন যোগ্য হবে। তাহলে যারা এমপিও ছাড়াই নিজেদের যোগ্য করেছেন তাদের প্রতিও অবিচার হয়। যোগ্য আর অযোগ্য সবাইকে সমান দেবেন, তাহলে যোগ্যতার কদর কোথায় থাকে?

এমপিদের প্রতি স্পিকারের মাধ্যমে অনুরোধ জানিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, যেসকল প্রতিষ্ঠান যোগ্য বিবেচিত হয়নি সেগুলোর দিকে আমরা সবাই যদি নজর দেই, তাহলে সেগুলো যোগ্য হয়ে উঠবে এবং আমাদের দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানই যোগ্য হয়ে উঠবে।

এইচএস/বিএ/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :