দেশের ১০৪ উপজেলায় স্কুল ফিডিং চলমান

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৪২ পিএম, ২৪ জুলাই ২০১৯

‘দারিদ্র্যপীড়িত এলাকায় স্কুল ফিডিং কর্মসূচির (তৃতীয় সংশোধিত)’ আওতায় দেশের ১০৪ উপজেলায় স্কুল ফিডিং কার্যক্রম চলমান বলে জানিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

বুধবার (২৪ জুলাই) সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির তৃতীয় বৈঠকে এ তথ্য জানানো হয়। মোস্তাফিজুর রহমানের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য মো. জাকির হোসেন, ইসমাত আরা সাদেক, আলী আজম, মো. নজরুল ইসলাম বাবু, শিরীন আখতার ও ফেরদৌসী ইসলাম অংশ নেন।

বৈঠকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন, গুণগতমান ও অগ্রগতি সম্পর্কে আলোচনা হয়। ‘বান্দরবান জেলার লামা, আলীকদম ও থানচি উপজেলার অফ গ্রিড স্কুলসমূহে সোলার সিস্টেম স্থাপন ও নিরাপদ পানি সরবরাহের সম্ভাব্যতা/সমীক্ষা প্রকল্প'র আওতায় ১০ জুন ২০১৯ থেকে লামা উপজেলায় ডিপ টিউবওয়েল স্থাপনের কাজ শুরু হয়েছে। ইতোমধ্যে লামার ১১ বিদ্যালয়ে সোলার স্থাপনের জন্য ডিপ টিউবওয়েলের বোরিংয়ের কাজ শেষ হয়েছে। এ ছাড়া অন্য বিদ্যালয়ে বোরিংয়ের কাজ চলমান।

‘ডিজিটাল প্রাথমিক শিক্ষা প্রকল্প’র আওতায় নির্বাচিত ৫০৯ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম কেন্দ্রীয় পর্যায়ে মনিটরিংয়ের জন্য বায়োমেট্রিক উপস্থিতি ডিভাইস, ওয়াই-ফাই ক্লাউড ক্যামেরা ও ওয়াই-ফাই রাউটার যন্ত্রাংশ/মালামাল/সেবা ই-জিপি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ক্রয়ের জন্য পাঁচটি লটে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে।

এছাড়া ‘নগরবস্তি আনন্দস্কুল কার্যক্রম’র আওতায় ১০ সিটি কর্পোরেশনে আরবান স্লাম আনন্দ স্কুল কার্যক্রম চলছে, যাতে ৪০ হাজার ১০০ শিক্ষার্থী অধ্যয়ন করছে। ‘প্রি-ভোকেশনাল স্কিলস প্রশিক্ষণ কর্মসূচি’র আওতায় বিভিন্ন ট্রেডে ১৬ হাজার ৫০০ শিক্ষার্থী প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছে। যার মধ্যে আট হাজার ১২৫ প্রশিক্ষণার্থীর কর্মসংস্থান হয়েছে।

২০১৯-২০ সালে কক্সবাজারের আট উপজেলা ও বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় ৮ হাজার ৫০০ জনকে প্রি-ভোকেশনাল প্রশিক্ষণ দেয়া হবে। চলমান প্রকল্পসমূহের অধিকতর সুষ্ঠু বাস্তবায়নে সকলকে স্বচ্ছতার সঙ্গে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান।

বৈঠকে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব, মন্ত্রণালয় ও অধিদফতরের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এইচএস/এএইচ/পিআর

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]