এডিস মশার লার্ভা নির্মূলে ডিএনসিসির অভিযান-জরিমানা

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮:১১ পিএম, ২২ আগস্ট ২০১৯

রাজধানীতে এডিস মশার লার্ভা ধ্বংসে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি)। বৃহস্পতিবার (২২ আগস্ট) ডিএনসিসির আওতাধীন বিভিন্ন এলাকায় এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। একই সঙ্গে গুলশান-বাড্ডা লিংক রোড এলাকায় এডিস মশার প্রজননস্থল ধ্বংসকরণ ও বিশেষ পরিচ্ছন্নতা অভিযান চালানো হয়েছে।

ডিএনসিসির চিরুনি অভিযানে ২৬১টি বাড়ির মধ্যে ১৮ বাড়িতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গেছে। পরে এসব বাড়ির সামনে ‘সাবধান, এ বাড়িতে/প্রতিষ্ঠানে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া গিয়েছে’ লেখা স্টিকার লাগানো হয়।

গুলশান-বাড্ডা লিংক রোডের ১১৩ নম্বর সড়কে একটি নির্মাণাধীন ভবনে এবং ‘হাশেম ইলেকট্রিক’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের ছাদে এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সাজিদ আনোয়ার প্রত্যেককে ১ লাখ টাকা করে জরিমানা করেন। এছাড়া ১১৫ নম্বর সড়কে ‘হারমোনি হোল্ডিংস’র ছাদে এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় ২ লাখ টাকা জরিমানা করা হয়।

dn

বারিধারা জে ব্লকে গালফ অটো কারস লিমিটেডে এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় প্রতিষ্ঠানটির মালিককে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. সগীর হোসেন ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন। মিরপুরের টোলারবাগে পরিত্যক্ত টায়ারে এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় এক দোকানের মালিককে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সালেহা বিনতে সিরাজ।

ভাষানটেকে ৪টি দোকানে এডিস মশার লার্ভা পাওয়ায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এস এম শফিউল আজম প্রত্যেককে ১০ হাজার টাকা করে মোট ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

dn

এছাড়া নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবদুল হামিদ মিয়া বারিধারা ‘জে’ ব্লকে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ১৩টি দোকানের ট্রেড লাইসেন্স না থাকায় এবং ফুটপাত দখল করে ব্যবসা করার অপরাধে ১ লাখ ৫ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

২০ থেকে ২২ আগস্ট তিনদিনে গুলশান-বনানীর ১৯নং ওয়ার্ডের মোট ৬৫৮টি বাড়িতে এ অভিযান চালায় ডিএনসিসি। এদের মধ্যে ৫৬টি বাড়িতে এডিস মশার লার্ভা পাওয়া যায়। ডিএনসিসির নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটরা জানান, ডিএনসিসির এ ভ্রাম্যমাণ আদালত অব্যাহত থাকবে।

এএস/আরএস/এমকেএইচ