গাবতলীতে মানুষের উপচেপড়া ভিড়


প্রকাশিত: ০৯:৪৪ এএম, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৫

স্বজনদের সঙ্গে ঈদ আনন্দ শেষে ফিরতে শুরু করেছেন রাজধানী ছেড়ে গ্রামের বাড়িতে যাওয়া মানুষ। ছুটি কাটিয়ে রাজধানীর কর্মব্যস্ত জীবনে ফিরছেন তারা। মঙ্গলবার সকালে রাজধানীর গাবতলী ও কল্যাণপুর বাস টার্মিনালে ছিলো ঈদ ফেরত মানুষের উপচেপড়া ভিড়।

মহাসড়কে যানজট না থাকায় স্বস্তিতেই ফিরছেন সাধারণ মানুষ। মঙ্গলবার গাবতলী ও কল্যাণপুর বাস টার্মিনালে এসে পৌঁছানো বাসেও ছিলো যাত্রীদের চাপ। বাস টার্মিনালে হাজার হাজার যাত্রীকে নামতে দেখা গেছে। বাসে অতিরিক্ত যাত্রী পরিহনের পাশাপাশি ছাদে চড়েও রাজধানীতে ফিরছেন মানুষ। পরিবহন সংশ্লিষ্টরা জানান, গণপরিবহনে ক্রমেই যাত্রীর চাপ বাড়ছে, সপ্তাহজুড়ে এ চাপ থাকবে।

ঈদের ছুটিতে গ্রামে ফেরার সময় বৃষ্টির কারণে ভোগান্তি ও যানজটের কারণে বিড়ম্বনায় পড়তে হয় লাখো যাত্রীকে। তবে রাজধানীতে ফেরার পথে তেমন কোনো সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন না তারা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এবার প্রত্যেকটি বাসের সিডিউলে বিপর্যয় ঘটলেও ঈদুল আযহার ছুটি শেষে রাজধানীতে যাত্রী নিয়ে যানজট ছাড়াই যাতায়াত করছে হানিফ, শ্যামলী, এসআর, দেশ ট্রাভেলস, ন্যাশনাল, ডিপজল, পাবনা এক্সপ্রেস, নাবিল, কেআর, টিআর, শাহ ফতেহ আলীসহ সিটিং ঈদ সার্ভিসের বাস।

সকালে গাবতলী আন্তঃজেলা বাস টার্মিনালে ঈদ ফেরত যাত্রীরা জানান, রাস্তায় যানজট না থাকায় নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই ফিরতে পারছেন তারা। ঠাকুরগাঁও থেকে শ্যামলী পরিবহনের একটি রাতের বাসে চড়ে সকাল ১১টায় গাবতলীতে নামেন আসিফ নামে একজন বেসরকারি কর্মকর্তা। তিনি জানান, রাত ১২টায় বাসে উঠেছি। রাস্তায় কোনো যানজট পাইনি।

ঈদের ছুটি শেষে লোকজন আবারো ঢাকায় আসতে শুরু করলেও রাজধানীতে পুরো কর্মচাঞ্চল্য আসতে আরো ২/৩ দিন সময় লাগবে বলে জানান ডিএমপির’র ট্রাফ্রিক উত্তরের উপ-কমিশনার(ডিসি) প্রবীর কুমার রায়।

তিনি বলেন, রাজধানীর প্রধান সড়কগুলোতে এখনো মানুষ ও যানবাহনের চলাচল সীমিত। সব হোটেল, রেস্টুরেন্ট এখনো খুলেনি। জনবহুল এলাকাগুলোতে ফেরেনি কোলাহল।

কল্যাণপুরে কেয়া পরিবহনের ইনচার্জ আরিফুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, আমাদের সকাল থেকে রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ রুটে চলাচলকারী দুই ডজন বাস রাজধানীতে পৌঁছেছে। রাস্তায় যানজটের কোনো খবর আমরা এখনো পাইনি।

শ্যামলী পরিবহনের কাউন্টার কর্মকর্তা আশরাফ আলী জানান, ৯টি রুটে সকাল থেকে শ্যামলী পরিবহনের বাস ফিরছে। এখন পর্যন্ত বড় যানজটের খবর পাইনি।

এসআর পরিবহনের কাউন্টার ম্যানেজার শহিদুল ইসলাম জানান, উত্তরবঙ্গে বিভিন্ন জেলায় চলাচলকারী এসআরের বাসের চলতি সপ্তাহের ঈদ ফেরত অগ্রীম টিকিট বিক্রি শেষ হয়েছে। সময় মতো বাস আসছে বলেও জানান তিনি।

পরিবহন সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, এবার পবিত্র ঈদুল আযহায় রাজধানী ছেড়ে গ্রামে ফিরেছিলেন প্রায় ৫০-৬০ লাখ মানুষ। এ কারণে কয়েকদিন ধরে যানজট ছিল না নগরীতে।

# ঈদের পঞ্চম দিনেও ঢাকায় ফেরা মানুষের ঢল

জেইউ/এসআইএস/পিআর