তনু ইস্যুতে বেকায়দায় সরকার


প্রকাশিত: ১২:১১ এএম, ৩০ মার্চ ২০১৬
ফাইল ছবি: সোহাগী জাহান তনু

শাহবাগ থেকে কুমিল্লার ভিক্টোরিয়া। সর্বত্রই দ্রোহের আগুন যেন দাউ দাউ করে জ্বলছে। ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ছে গোটা দেশে। গণমাধ্যম, টকশো, পড়ার টেবিল, চায়ের দোকান সব জাগাতেই আলোচনার কেন্দ্রে নিহত কলেজ ছাত্রী সোহাগী জাহান তনু।

তনু হত্যার বিচারের দাবিতে সারাদেশ ফুঁসে উঠেছে। রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে তনু ইস্যুতে আন্দোলনে নেমেছে শিক্ষার্থীরা। নারী নির্যাতনের বিরুদ্ধে সর্বাত্মক আন্দোলনের ঘোষণা দিয়ে শাহবাগে টানা কর্মসূচি পালন করছে গণজাগরণ মঞ্চ।

তনু ইস্যুতে সাধারণ মানুষের এমন আন্দোলনে বেকায়দায় পড়েছে সরকার। এমন সময়ে তনু হত্যার বিচারের দাবিতে সর্বসাধারণের এই আন্দোলন সরকারের জন্য কোনোভাবেই শুভকর নয় বলে বিশ্লেষকরা মনে করছেন।

অভিযোগ উঠেছে, সরকার তনুর পরিবারকে ম্যানেজ করার জোর চেষ্টা চালাচ্ছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ইতোমধ্যেই তনুর পরিবারকে তুলে নিয়ে দফারফার চেষ্টা করেছে বলে প্রচার রয়েছে। এতে আন্দোলনে আরো নতুন মাত্রা যোগ হয়েছে।

আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত না করলেও পরিস্থিতি সামাল দিতে সরকার বিভিন্ন কৌশল অবলম্বন করে যাচ্ছে বলে গুঞ্জন উঠেছে। তনুর লাশ উত্তোলনের ঘটনাও এমন কৌশলের অংশ বলে কেউ কেউ মনে করছেন।

বিষয়টি নিয়ে কথা হয় সমাজ বিজ্ঞানী ড. মীজানুর রহমান শেলীর সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘একটি ঘটনার মধ্য দিয়ে আরেকটি ঘটনা চাপা পড়ে যাচ্ছে। বিচারহীনতা সর্বত্রই। রাষ্ট্র, সমাজ, প্রতিষ্ঠানের কোথাও জবাবদিহিতা নেই। এ কারণেই এমন নির্মতা।’

তিনি বলেন, ‘ক্যান্টনমেন্টের মতো সুরক্ষিত জায়গায় একজন ধর্ষিত তরুণীর লাশ জাতিকে অবাক করেছে। এর দায় সরকার কোনোভাবেই এড়াতে পারে না।’

গণজাগরণ মঞ্চের মুখপাত্র ড. ইমরান এইচ সরকার বলেন, আজ দেশের মানুষ মৌলিক অধিকারের দাবিতে কথা বলতে পারে না। লুটেরারা সাধারণ মানুষের হাজার হাজার কোটি টাকা লুট করে নিয়ে যাচ্ছে। ধর্ষকদের সঙ্গে এবং ব্যাংক থেকে হাজার হাজার কোটি টাকা লুটকারীদের সঙ্গে আমরা আপস করতে করতে আমাদের পিঠ আজ দেয়ালে ঠেকে গেছে। একটি সভ্য সমাজে এমন অরাজকতা চলবে আর সরকার ধামাচাপার রাজনীতি করবে, তা মানুষ সহ্য করবে না।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এক সদস্য নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘সম্প্রতি বেশ কয়েকটি ঘটনায় সরকার বিব্রত। নারী নির্যাতন, শিশু নির্যাতনের যে চিত্র উঠে এসেছে, তা অতীতের বর্বরতাকে হার মানাচ্ছে। সরকার সুষ্ঠু তদন্ত করে ঘটনার বিচার করলে এমন অপরাধ কমানো যেত। আর এর সঙ্গে যদি অন্য কোনো ষড়যন্ত্র থেকে থাকে, তাও বের করা উচিত বলে মনে করি।’

এএসএস/এসএইচএস/বিএ