করোনায় দিক হারা শিক্ষা খাত

সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা
সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা , প্রধান সম্পাদক, গ্লোবাল টিভি।
প্রকাশিত: ০৯:৪০ এএম, ০১ মে ২০২১

অতিমারির সব ক্ষতি আর্থিক নয়। কিছু ক্ষতি তার চেয়েও বেশি। করোনা মহামারিতে প্রায় ১৪ মাস ধরে কওমি মাদ্রাসা ছাড়া সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। বন্ধ আছে বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষা। থমকে আছে বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্যক্রম। তবে শিক্ষাকার্যক্রম চালিয়ে নিতে অনলাইনে ও দূরশিক্ষণ পদ্ধতির পাঠদান চলছে কিছু কিছু ক্ষেত্রে।। স্কুল-কলেজে অভ্যন্তরীণ কিছু পরীক্ষা নেওয়া হচ্ছে অনলাইনে। কিন্তু তাতে বলা যাচ্ছে না যে শিক্ষা কার্যক্রম চলছে। অনিশ্চয়তা বাড়ছে। দফায় দফায় পিছিয়ে যাচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার তারিখ। সবমিলে পৌনে ৪ কোটি ছাত্রছাত্রীর শিক্ষাজীবন এখন বিপর্যস্ত।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক থেকে শিক্ষার্থী, সবার জন্যই বড় চাপ এখন এই বন্ধ সময়। করোনার সাথে যুদ্ধ, তার সাথে সিলেবাস বনাম সময়ের যুদ্ধ। সময় নষ্ট না করতে, নতুন পথে ভাবতে হচ্ছে শিক্ষক-ছাত্র সবাইকেই। এই পরিস্থিতিতে একমাত্র রাস্তা সিলেবাস কমাও, পুরোদস্তুর অনলাইনে যাও। কিন্তু শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, শিক্ষকশিক্ষিকা বা ছাত্রছাত্রীদের জন্য এই অনলাইন শিক্ষা পদ্ধতি কি দীর্ঘমেয়াদি সুফল বয়ে আনবে? এবং সবার পক্ষে কি অনলাইনে শিক্ষা সম্ভব? নাকি আমরা শিক্ষা ক্ষেত্রে আরও বড় করছি ধনী ও গরিব বিভাজন, শহর ও গ্রাম বিভাজন বা ডিজিটাল বিভাজন? কারণ অনলাইনের সুযোগ সবাই পাচ্ছে না বড় একটি অংশ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় জানিয়ে দিয়েছে, ১৭ মে তার আবাসিক হল খুলছে না। এবং নিশ্চয়ই এ্ পথ ধরবে বাকিরাও। স্কুল বা কলেজ কবে খুলবে বা আদৌ খুলবে কিনা, সেটা পরিষ্কার করছে না শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সরকারি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা বেতন পাচ্ছেন, বোনাস পাচ্ছেন। বেসরকারি পর্যায়ে পরিচালিত স্কুলের শিক্ষক ও উদ্যোক্তারা বলতে হবে এখন মৃত প্রায়। ধনিক শ্রেণির ইংলিশ মিডিয়াম আর প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় সমূহের কার্যক্রম – পুরোটাই চলছে অনলাইনে। নানা উদ্ভাবনী পদ্ধতিতে তাদের চেষ্টা আছে সময় নষ্ট না করার।

পুরো চিত্রটা যে সমস্যা সামনে আনল তা হল— ডিজিটাল সেবা নেওয়ার ক্ষেত্রে ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে সুযোগসুবিধার বৈষম্য। গত বছর ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্তের পর ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। এ বছর ৩০ মার্চ খুলে দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় ছুটি ২২ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। শিক্ষার বিভিন্ন স্তরের জন্য অনলাইনে ও দূরশিক্ষণ পদ্ধতিতে বিকল্প পাঠদান পদ্ধতি প্রবর্তন করা হয়েছে। কিন্তু অবকাঠামোগত সীমাবদ্ধতার কারণে সব শিক্ষার্থীর কাছে তা পৌঁছাচ্ছে না। গণসাক্ষরতা অভিযানের (ক্যাম্পে) গত জানুয়ারিতে প্রকাশিত সমীক্ষা বলছে, প্রায় ৩০ শতাংশ শিক্ষার্থী দূরশিক্ষণে অংশ নিয়েছে। ব্র্যাকের সমীক্ষা মতে, টেলিভিশন পাঠদানে ৫৬ শতাংশ শিক্ষার্থী অংশ নিয়েছে। অর্থাৎ অন্তত অর্ধেক শিক্ষার্থীই দূরশিক্ষণ কার্যক্রমের বাইরে। যদিও শিক্ষা মন্ত্রণালয় বলছে, ৯২ শতাংশ শিক্ষার্থী দূরশিক্ষণের অধীনে এসেছে। আর স্কুল শিক্ষকদের মাধ্যমে অ্যাসাইনমেন্ট দিয়ে ৮৫ শতাংশকে লেখাপড়ার মধ্যে নিয়ে আসা হয়েছে। সরকার ভাবছে হয়তো লকডাউন উঠে যাওয়ার পরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুললেও ক্যাম্পাসে কি যথাযথ ভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করা যাবে?

করোনায় শিক্ষার ক্ষতি হয়েছে সবচেয়ে বেশি। এর প্রভাব দীর্ঘমেয়াদি এবং অত্যন্ত সুদূরপ্রসারী। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও শিক্ষকরাও নাজুক পরিস্থিতির মধ্যে পড়েছেন। তাই সার্বিক শিক্ষা পুনরুদ্ধারে সুচিন্তিত পরিকল্পনা নিতে হবে জরুরি ভিত্তিতে। আমরা বুঝতে পারছি করোনা দীর্ঘকালীন ভাবে জীবনযাত্রার সঙ্গী হয়ে পড়বে। সে ক্ষেত্রে আর বন্ধ করে রাখা সম্ভব হচ্ছে না। একবারও কি ভাবছি যে, শিক্ষা ও জ্ঞানের প্রসার স্তব্ধ হয়ে যাচ্ছে? আসলে এই নতুন জটিলতার সঙ্গে মানিয়ে নিয়ে শিক্ষাদানের নতুন পদ্ধতি খুঁজে নেওয়াই হবে এর সমাধানের পথ।
ভয়ংকর ক্ষতি হয়েছে এবং হচ্ছে। করোনায় শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়া, শিশুশ্রম, বাল্যবিবাহ এবং শিশু ও মাতৃমৃত্যুর হার বাড়ছে বলেই প্রতীয়মান হচ্ছে। যখন স্কুল তথা শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এক সময় খুলবে তখন অনেক শিক্ষার্থী আর স্কুলে নাও ফিরতে পারে। দীর্ঘ শিখন বিরতির কারণে একটি অংশ পাঠ না পারা ও বোঝার পরিস্থিতিতে পড়বে আর আরেকটি অংশ সম্ভাব্য দারিদ্র্যের কশাঘাতে নিপতিত হয়ে বাবা-মায়ের সঙ্গে কাজে ভিড়ে যাবে। ঝরে পড়া এসব শিক্ষার্থীর মেয়ে শিশুদের বিয়ে হয়ে যেতে পারে। বিশেষ করে মাধ্যমিকে ঝরেপড়াদের ক্ষেত্রে এটা বেশি ঘটতে পারে। এমনকি বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়েও অনেক শিক্ষার্থী আর ক্যাম্পাসে নাও ফিরতে পারে।

তাই শিক্ষা পুনরুদ্ধারের যে কথা বলা হচ্ছে সেটা আর উদ্ধার করা সম্ভব নাও হতে পারে। এখন এই ধকল কাটিয়ে উঠতে অন্য দেশের অভিজ্ঞতার সমন্বয়ে নিজস্ব প্রয়োজন ও বাস্তবতার নিরিখে উপযুক্ত পরিকল্পনা তৈরি ও বাস্তবায়ন করাই উত্তম বলে মনে করছেন অনেকে। যদি একসঙ্গে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা না যায়, তাহলে যেখানে যখন পরিস্থিতি উন্নতি হবে, সেখানে আগে খুলে দেওয়া যেতে পারে। এটাই বাস্তবসম্মত পদক্ষেপ হতে পারে। বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজ পর্যায়ে দ্রুত ১৮ বছরের বেশি সবার টিকাকরণ নিশ্চিত করে প্রতিষ্ঠান খোলার কোন বিকল্প নেই।

লেখক : প্রধান সম্পাদক, জিটিভি।

এইচআর/এমএস

করোনা ভাইরাস - লাইভ আপডেট

৬৪,৬০,৭১,৮৩৯
আক্রান্ত

৬৬,৩৬,১৫২
মৃত

৬২,৪৫,৮১,৪৮১
সুস্থ

# দেশ আক্রান্ত মৃত সুস্থ
বাংলাদেশ ২০,৩৬,৫২৭ ২৯,৪৩১ ১৯,৮৫,৫৭৮
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১০,০৪,৫৮,৯৮৯ ১১,০৪,৭৫১ ৯,৭৯,৮৪,২১৯
ভারত ৪,৪৬,৭২,৬৩৩ ৫,৩০,৬১২ ৪,৪১,৩৫,৬৮৭
ফ্রান্স ৩,৭৬,৩৯,৬২৪ ১,৫৮,৬৩৯ ৩,৬৮,০৯,৪৪৩
জার্মানি ৩,৬৩,৭৩,১৬৪ ১,৫৭,৪৯৫ ৩,৫৬,৫৮,৮০০
ব্রাজিল ৩,৫২,০৬,৩৬৮ ৬,৮৯,৫৪৫ ৩,৪২,০১,৪১৮
দক্ষিণ কোরিয়া ২,৬৯,৩৭,৫১৬ ৩০,৩৬৯ ২,৫৯,৫১,৩২৫
জাপান ২,৪৪,৭০,৫৫৭ ৪৯,১৭৮ ২,০৬,৭৯,২৩৪
ইতালি ২,৪২,৬০,৬৬০ ১,৮১,০৯৮ ২,৩৫,৮৭,১০৫
১০ যুক্তরাজ্য ২,৪০,০০,১০১ ১,৯৬,৮২১ ২,৩৭,২৪,৪৫০
১১ রাশিয়া ২,১৫,৭৪,৭৬৪ ৩,৯১,৮৪০ ২,০৯,৮২,০২৮
১২ স্পেন ১,৮৩,৪৮,০২৯ ১,৫৯,৬০৫ ১,৩৩,৮২,২৯৩
১৩ তুরস্ক ১,৭০,০৫,৫৩৭ ১,০১,৪০০ ১,৬৮,৯৭,৪৮৯
১৪ ভিয়েতনাম ১,১৫,১৪,৫৩২ ৪৩,১৭০ ১,০৬,০৮,১১২
১৫ অস্ট্রেলিয়া ১,০৬,৪৩,৯১৮ ১৬,১০০ ১,০৫,৪৬,১০২
১৬ আর্জেন্টিনা ৯৭,২৩,৯২৪ ১,৩০,০১৭ ৯৫,৮৮,৮৫৮
১৭ নেদারল্যান্ডস ৮৫,৩৯,২৯৭ ২২,৯০৭ ৮৪,৮৬,৯৪৩
১৮ তাইওয়ান ৮২,৬৭,৭২০ ১৪,২৩৫ ৭৮,৮৯,৮৬৮
১৯ ইরান ৭৫,৫৯,৫৮৯ ১,৪৪,৬৩৩ ৭৩,৩৫,০৭২
২০ মেক্সিকো ৭১,২৫,১৭৬ ৩,৩০,৪৯৫ ৬৩,৯৫,৭৮৯
২১ ইন্দোনেশিয়া ৬৬,৫০,২৪৪ ১,৫৯,৬৭৬ ৬৪,২৯,৯৮৭
২২ পোল্যান্ড ৬৩,৫১,৩১৫ ১,১৮,৩০৬ ৫৩,৩৫,৯৭৩
২৩ কলম্বিয়া ৬৩,১৪,৭৬৯ ১,৪১,৮৯৫ ৬১,৪০,৮৩৪
২৪ অস্ট্রিয়া ৫৫,৪৪,১১২ ২১,১৮৭ ৫৪,৭৮,৬২৩
২৫ পর্তুগাল ৫৫,৪২,২৬৫ ২৫,৪৫০ ৫৪,৯৫,৩৫৪
২৬ গ্রীস ৫৩,৬০,৫০৬ ৩৪,১৭৮ ৫২,৮০,০২১
২৭ ইউক্রেন ৫৩,৩৬,২৯৩ ১,১০,৫০৫ ৫২,০৭,৬০৭
২৮ মালয়েশিয়া ৪৯,৮৪,২৭২ ৩৬,৬৪৮ ৪৯,২০,৬১৬
২৯ চিলি ৪৯,০৯,৮৭৮ ৬২,৩৭৭ ৪৮,৩৪,৪২৮
৩০ ইসরায়েল ৪৭,১৬,২৯০ ১১,৮৩৪ ৪৬,৯৩,৯৪৩
৩১ থাইল্যান্ড ৪৭,০২,৩৩০ ৩৩,১০৬ ৪৬,৪৯,৫০৯
৩২ বেলজিয়াম ৪৬,৩৩,১১২ ৩৩,০৪২ ৪৫,৭৯,১৯৭
৩৩ কানাডা ৪৩,৯২,৭৪৭ ৪৭,৪৬৮ ৪২,৯১,৬৮৩
৩৪ সুইজারল্যান্ড ৪২,৯৮,০১৬ ১৪,৩০২ ৪২,০৭,৫৪৩
৩৫ পেরু ৪২,২৩,৯৫১ ২,১৭,৩৫৩ ৩৯,৫৫,৪৮৫
৩৬ চেক প্রজাতন্ত্র ৪১,৭১,১৭৪ ৪১,৭৯৯ ৪১,২৬,৯৫১
৩৭ দক্ষিণ আফ্রিকা ৪০,৪০,৭১২ ১,০২,৪২৮ ৩৯,১২,৫০৬
৩৮ ফিলিপাইন ৪০,৩৩,৬৮২ ৬৪,৫৯৫ ৩৯,৫০,৬০৬
৩৯ রোমানিয়া ৩২,৯৪,৪৪৭ ৬৭,২৫৩ ৩২,২৪,০৯৫
৪০ ডেনমার্ক ৩১,৪৫,৪৫৫ ৭,৫১৩ ৩১,৩৩,৬০১
৪১ সুইডেন ২৬,২৬,৬৮৬ ২১,০০২ ২৫,৯১,৬৯৭
৪২ ইরাক ২৪,৬৩,০২১ ২৫,৩৬৩ ২৪,৩৬,৬৯৫
৪৩ সার্বিয়া ২৪,২১,৫৯১ ১৭,৩৭১ ২৩,৯৩,৫৮৯
৪৪ সিঙ্গাপুর ২১,৬২,৯৬৩ ১,৭০২ ২০,৮৬,৯৪১
৪৫ হাঙ্গেরি ২১,৬২,০৯৩ ৪৮,২৪৫ ২০,৯৮,২৪০
৪৬ হংকং ২০,৯৪,০৯৫ ১০,৬৯২ ১৮,৫৯,৩৯৪
৪৭ নিউজিল্যান্ড ১৯,১৮,০৭০ ৩,২৩৯ ১৮,৯১,৮৫৩
৪৮ স্লোভাকিয়া ১৮,৫৫,৬৬৪ ২০,৭২৯ ১৮,৩৩,৬৪৪
৪৯ জর্জিয়া ১৮,০৫,৬৯৮ ১৬,৯১২ ১৭,৭৬,৫৪৮
৫০ জর্ডান ১৭,৪৬,৯৯৭ ১৪,১২২ ১৭,৩১,০০৭
৫১ আয়ারল্যান্ড ১৬,৭৮,৮২৭ ৮,১৩১ ১৬,৬৫,১৪৫
৫২ পাকিস্তান ১৫,৭৫,০৯৭ ৩০,৬৩০ ১৫,৩৮,৬৮৯
৫৩ নরওয়ে ১৪,৬৮,৪১৯ ৪,৩২৫ ১৪,৬১,৯৮৮
৫৪ কাজাখস্তান ১৩,৯৬,৩৩৫ ১৩,৬৯৩ ১৩,৮০,৩৫৬
৫৫ ফিনল্যাণ্ড ১৩,৯৪,২৫৪ ৭,২৬৫ ১৩,৫৪,৯০৬
৫৬ বুলগেরিয়া ১২,৮৬,৫৩৮ ৩৮,০২৭ ১২,৪৩,১০৭
৫৭ লিথুনিয়া ১২,৭৪,৮৬২ ৯,৪৩১ ১২,৬০,৪৮৯
৫৮ মরক্কো ১২,৬৮,৩৯৬ ১৬,২৮৪ ১২,৫০,৮৭৪
৫৯ স্লোভেনিয়া ১২,৫৪,৩৮৪ ৬,৯২৮ ১২,৩৫,৩৯৪
৬০ ক্রোয়েশিয়া ১২,৫৩,০৬৭ ১৭,২৯৮ ১২,৩৪,০৫০
৬১ লেবানন ১২,২০,৩৮৫ ১০,৭৩৪ ১০,৮৭,৫৮৭
৬২ গুয়াতেমালা ১১,৫৩,৬৪৪ ১৯,৯৪৬ ১১,৩০,৩৫৮
৬৩ তিউনিশিয়া ১১,৪৬,৯৯১ ২৯,২৬৮ ৯,৮৩,৬৩০
৬৪ কোস্টারিকা ১১,৪৩,৫৯৭ ৯,০৩১ ৮,৬০,৭১১
৬৫ কিউবা ১১,১১,৩৬৮ ৮,৫৩০ ১১,০২,৭৫৪
৬৬ বলিভিয়া ১১,১০,৬০৮ ২২,২৪৫ ১০,৭৭,৩৪১
৬৭ সংযুক্ত আরব আমিরাত ১০,৪৩,৯৩১ ২,৩৪৮ ১০,২৩,২৫৩
৬৮ ইকুয়েডর ১০,০৯,৯৫৮ ৩৫,৯৪০ ৯,৭৩,৪৪৮
৬৯ নেপাল ১০,০০,৮৭৮ ১২,০১৯ ৯,৮৮,৫৯৬
৭০ পানামা ৯,৯৫,৭২৬ ৮,৫১৯ ৯,৮৩,৭০৫
৭১ বেলারুশ ৯,৯৪,০৩৭ ৭,১১৮ ৯,৮৫,৫৯২
৭২ উরুগুয়ে ৯,৯২,৮৮৭ ৭,৫৩০ ৯,৮৪,৪৭৬
৭৩ মঙ্গোলিয়া ৯,৯১,৮২৪ ২,১৭৯ ৯,৮৪,৪২০
৭৪ লাটভিয়া ৯,৬১,৬২৭ ৬,০৮৬ ৯,৫০,৩১৯
৭৫ সৌদি আরব ৮,২৫,৪৩৬ ৯,৪৫৮ ৮,১২,৯৩৬
৭৬ আজারবাইজান ৮,২৪,২৩২ ৯,৯৭৬ ৮,১৩,৯৪২
৭৭ প্যারাগুয়ে ৭,১৮,১৬৪ ১৯,৬২১ ৬,৯৮,৩১৭
৭৮ বাহরাইন ৬,৯৫,৭৬৬ ১,৫৩৬ ৬,৯৩,০৬৪
৭৯ শ্রীলংকা ৬,৭১,৬৪২ ১৬,৮০০ ৬,৫৪,৭৯১
৮০ কুয়েত ৬,৬২,৬৭২ ২,৫৭০ ৬,৫৯,৯৯২
৮১ ডোমিনিকান আইল্যান্ড ৬,৪৯,১৫০ ৪,৩৮৪ ৬,৪৩,৬৭৩
৮২ মায়ানমার ৬,৩৩,১৬৭ ১৯,৪৮৮ ৬,০৭,৬৮১
৮৩ ফিলিস্তিন ৬,২০,৮১৬ ৫,৪০৪ ৬,১৪,৯৬২
৮৪ সাইপ্রাস ৬,১৪,২৩৭ ১,২২৬ ৬,০১,৪৪৪
৮৫ এস্তোনিয়া ৬,০৮,৭৫৯ ২,৭৮১ ৫,২৪,৯৯০
৮৬ মলদোভা ৫,৯৪,৭৫৪ ১১,৯১৩ ৫,০৪,১৪২
৮৭ ভেনেজুয়েলা ৫,৪৭,৩০১ ৫,৮২৮ ৫,৪০,৪০৩
৮৮ মিসর ৫,১৫,৬৪৫ ২৪,৬১৩ ৪,৪২,১৮২
৮৯ লিবিয়া ৫,০৭,০৭৮ ৬,৪৩৭ ৫,০০,৫৯৮
৯০ ইথিওপিয়া ৪,৯৪,৪৬২ ৭,৫৭২ ৪,৭২,২৭৭
৯১ কাতার ৪,৭৭,৬৮০ ৬৮৫ ৪,৭৫,৯১৩
৯২ রিইউনিয়ন ৪,৭৬,০৮৮ ৯০২ ৪,১৮,৫৭২
৯৩ হন্ডুরাস ৪,৫৭,৬৭৬ ১১,০৪৩ ১,৩২,৪৯৮
৯৪ আর্মেনিয়া ৪,৪৫,৬৩১ ৮,৭০৯ ৪,৩৪,৭৪৩
৯৫ বসনিয়া ও হার্জেগোভিনা ৪,০০,৪৬৬ ১৬,২০০ ১৫,৮১,১৬৪
৯৬ ওমান ৩,৯৯,০২৭ ৪,২৬০ ৩,৮৪,৬৬৯
৯৭ উত্তর ম্যাসেডোনিয়া ৩,৪৪,৭১০ ৯,৫৬৮ ৩,৩৪,৩৩৫
৯৮ কেনিয়া ৩,৪১,৪৬০ ৫,৬৮৪ ৩,৩৫,০১২
৯৯ জাম্বিয়া ৩,৩৩,৭২১ ৪,০১৯ ৩,২৯,৬৮১
১০০ আলবেনিয়া ৩,৩৩,৩২২ ৩,৫৯৩ ৩,২৮,১৫৩
১০১ বতসোয়ানা ৩,২৬,৩৪৪ ২,৭৯০ ৩,২২,৯৫৫
১০২ চীন ৩,০৭,৮০২ ৫,২৩৩ ২,৭১,১৫৯
১০৩ লুক্সেমবার্গ ২,৯৭,৭৫৭ ১,১৩৩ ২,৮৮,৯৯১
১০৪ মন্টিনিগ্রো ২,৮৩,৬৪৪ ২,৭৮৯ ২,৮০,৬৬৩
১০৫ আলজেরিয়া ২,৭১,০৬১ ৬,৮৮১ ১,৮২,৫৫০
১০৬ নাইজেরিয়া ২,৬৬,২৮৩ ৩,১৫৫ ২,৫৯,৬৪০
১০৭ জিম্বাবুয়ে ২,৫৭,৮৯৩ ৫,৬০৬ ২,৫১,৯০৪
১০৮ উজবেকিস্তান ২,৪৫,৮৫৮ ১,৬৩৭ ২,৪১,৪৮৬
১০৯ ব্রুনাই ২,৪১,০৪৪ ২২৫ ২,২২,১৪০
১১০ মোজাম্বিক ২,৩০,৫৯০ ২,২২৪ ২,২৮,৩১০
১১১ মার্টিনিক ২,২৪,৪৬৮ ১,০৭১ ১০৪
১১২ লাওস ২,১৬,৬১১ ৭৫৮ ৭,৬৬০
১১৩ আইসল্যান্ড ২,০৭,১৭১ ২১৯ ৭৫,৬৮৫
১১৪ কিরগিজস্তান ২,০৬,৫১১ ২,৯৯১ ১,৯৬,৪০৬
১১৫ আফগানিস্তান ২,০৫,৬১২ ৭,৮৩৩ ১,৮২,৬২১
১১৬ এল সালভাদর ২,০১,৭৮৫ ৪,২৩০ ১,৭৯,৪১০
১১৭ গুয়াদেলৌপ ১,৯৭,১০৫ ৯৯৩ ২,২৫০
১১৮ মালদ্বীপ ১,৮৫,৫৮৪ ৩১১ ১,৬৩,৬৮৭
১১৯ ত্রিনিদাদ ও টোবাগো ১,৮৫,২৩৭ ৪,২৬৬ ১,৮০,৭৬৭
১২০ ঘানা ১,৭১,০০৯ ১,৪৬১ ১,৬৯,৫২৭
১২১ নামিবিয়া ১,৬৯,৯৪৬ ৪,০৮০ ১,৬৫,৮৬৬
১২২ উগান্ডা ১,৬৯,৬৬৩ ৩,৬৩০ ১,০০,৪৩১
১২৩ জ্যামাইকা ১,৫১,৯৩১ ৩,৩২০ ৯৯,৩৯২
১২৪ কম্বোডিয়া ১,৩৮,০৬৩ ৩,০৫৬ ১,৩৪,৯৭১
১২৫ রুয়ান্ডা ১,৩২,৬৪৩ ১,৪৬৭ ১,৩১,১১২
১২৬ ক্যামেরুন ১,২৩,৯৯৩ ১,৯৬৫ ১,১৮,৬১৬
১২৭ মালটা ১,১৫,৭৬৯ ৮০৯ ১,১৪,৩৮৯
১২৮ অ্যাঙ্গোলা ১,০৪,৪৯১ ১,৯২৩ ১,০২,৩৬৭
১২৯ বার্বাডোস ১,০৩,৯৫৫ ৫৬৪ ১,০২,৪৩৫
১৩০ চ্যানেল আইল্যান্ড ৯৫,৫৯২ ২০৭ ৯৪,৯৬৩
১৩১ ফ্রেঞ্চ গায়ানা ৯৫,৪৫১ ৪১১ ১১,২৫৪
১৩২ ড্যানিশ রিফিউজি কাউন্সিল ৯৩,৮৩৭ ১,৪৫২ ৮৩,৫৯০
১৩৩ সেনেগাল ৮৮,৮৫৯ ১,৯৬৮ ৮৬,৮৫৮
১৩৪ মালাউই ৮৮,০৭৩ ২,৬৮৫ ৮৫,০০৮
১৩৫ আইভরি কোস্ট ৮৭,৮৮৫ ৮৩০ ৮৭,০৪২
১৩৬ সুরিনাম ৮১,২২৮ ১,৩৯২ ৪৯,৬২৬
১৩৭ ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়া ৭৬,৮২৭ ৬৪৯ ৩৩,৫০০
১৩৮ নিউ ক্যালেডোনিয়া ৭৫,১২২ ৩১৪ ৭৪,২২৮
১৩৯ ইসওয়াতিনি ৭৩,৭৭০ ১,৪২২ ৭২,২৫৫
১৪০ গায়ানা ৭১,৫৭৩ ১,২৮৫ ৭০,১৭৫
১৪১ বেলিজ ৬৯,০১২ ৬৮৮ ৬৮,৩১০
১৪২ ফিজি ৬৮,৩৭৫ ৮৭৮ ৬৬,৪৪০
১৪৩ মাদাগাস্কার ৬৭,০৫৪ ১,৪১১ ৬৫,৩৭৯
১৪৪ সুদান ৬৩,৬৩৭ ৪,৯৯০ ৫৭,৯২৮
১৪৫ মৌরিতানিয়া ৬৩,৪১৯ ৯৯৭ ৬২,৪১৬
১৪৬ কেপ ভার্দে ৬২,৯৪৮ ৪১২ ৬২,৩৫১
১৪৭ ভুটান ৬২,৪৮৮ ২১ ৬১,৫৬৪
১৪৮ সিরিয়া ৫৭,৩৯৩ ৩,১৬৩ ৫৪,২২৩
১৪৯ বুরুন্ডি ৫০,৬৩৯ ৩৮ ৫০,৪১৮
১৫০ সিসিলি ৪৯,৩৮০ ১৭১ ৪৮,৬২৬
১৫১ গ্যাবন ৪৮,৯৭২ ৩০৬ ৪৮,৪৯১
১৫২ এনডোরা ৪৬,৮২৪ ১৫৬ ৪৬,৪৫৭
১৫৩ পাপুয়া নিউ গিনি ৪৫,৮১৯ ৬৬৮ ৪৩,৯৮২
১৫৪ কিউরাসাও ৪৫,৫৫৯ ২৯৫ ৪৪,৭২০
১৫৫ আরুবা ৪৩,৫৬৮ ২৩৬ ৪২,৪৩৮
১৫৬ মরিশাস ৪১,০৪২ ১,০৩২ ৩৯,২৭৮
১৫৭ মায়োত্তে ৪০,৬১২ ১৮৭ ২,৯৬৪
১৫৮ তানজানিয়া ৪০,৪৭১ ৮৪৫ ১৮৩
১৫৯ টোগো ৩৯,৩২৬ ২৯০ ৩৯,০২৮
১৬০ গিনি ৩৮,১৫৩ ৪৬৪ ৩৭,২১৮
১৬১ আইল অফ ম্যান ৩৮,০০৮ ১১৬ ২৬,৭৯৪
১৬২ বাহামা ৩৭,৪৭৬ ৮৩৩ ৩৬,৩৫৪
১৬৩ ফারে আইল্যান্ড ৩৪,৬৫৮ ২৮ ৭,৬৯৩
১৬৪ লেসোথো ৩৪,৪৯০ ৭০৬ ২৫,৯৮০
১৬৫ হাইতি ৩৩,৮৪৬ ৮৬০ ৩২,৮৭১
১৬৬ মালি ৩২,৭৫৭ ৭৪২ ৩১,৯৩৮
১৬৭ কেম্যান আইল্যান্ড ৩১,১৯৪ ৩৬ ৮,৫৫৩
১৬৮ সেন্ট লুসিয়া ২৯,৫৫০ ৪০৪ ২৯,০৯৫
১৬৯ বেনিন ২৭,৯২২ ১৬৩ ২৭,৭৪৬
১৭০ সোমালিয়া ২৭,২৫৪ ১,৩৬১ ১৩,১৮২
১৭১ কঙ্গো ২৫,৩৭৫ ৩৮৬ ২৪,০০৬
১৭২ সলোমান আইল্যান্ড ২৪,৫৭৫ ১৫৩ ১৬,৩৫৭
১৭৩ পূর্ব তিমুর ২৩,৩৩৭ ১৩৮ ২৩,১০২
১৭৪ সান ম্যারিনো ২২,০৯১ ১১৯ ২১,৭৬৭
১৭৫ বুর্কিনা ফাঁসো ২১,৬৩১ ৩৮৭ ২১,১৪৩
১৭৬ লিচেনস্টেইন ২০,৮৭৪ ৮৭ ২০,৭২৯
১৭৭ জিব্রাল্টার ২০,১৮৪ ১১০ ১৬,৫৮৩
১৭৮ গ্রেনাডা ১৯,৬১৩ ২৩৭ ১৯,৩৫৮
১৭৯ নিকারাগুয়া ১৮,৪৯১ ২২৫ ৪,২২৫
১৮০ বারমুডা ১৮,৪৬৩ ১৫১ ১৮,২৮৯
১৮১ দক্ষিণ সুদান ১৮,৩৪৮ ১৩৮ ১৮,১১৫
১৮২ তাজিকিস্তান ১৭,৭৮৬ ১২৫ ১৭,২৬৪
১৮৩ ইকোয়েটরিয়াল গিনি ১৭,১৮২ ১৮৩ ১৬,৮৭৯
১৮৪ টাঙ্গা ১৬,১৮২ ১২ ১৫,৬৩৮
১৮৫ সামোয়া ১৫,৯৬৭ ২৯ ১,৬০৫
১৮৬ ডোমিনিকা ১৫,৭৬০ ৭৪ ১৫,৬৭৩
১৮৭ জিবুতি ১৫,৬৯০ ১৮৯ ১৫,৪২৭
১৮৮ মার্শাল আইল্যান্ড ১৫,৫৪১ ১৭ ১৫,৩৯০
১৮৯ মোনাকো ১৫,৩৩৯ ৬৩ ১৫,১৫৮
১৯০ সেন্ট্রাল আফ্রিকান রিপাবলিক ১৫,৩১১ ১১৩ ১৪,৬১৫
১৯১ গাম্বিয়া ১২,৫৮৬ ৩৭২ ১২,১৮৯
১৯২ সেন্ট মার্টিন ১২,০৩৪ ৬৩ ১,৩৯৯
১৯৩ গ্রীনল্যাণ্ড ১১,৯৭১ ২১ ২,৭৬১
১৯৪ ভানুয়াতু ১১,৯৫২ ১৪ ১১,৯৩৭
১৯৫ ইয়েমেন ১১,৯৪৫ ২,১৫৯ ৯,১২৪
১৯৬ ক্যারিবিয়ান নেদারল্যান্ডস ১১,৪২৬ ৩৬ ১০,৪৭৬
১৯৭ সিন্ট মার্টেন ১০,৯৩১ ৮৯ ১০,৮৩৩
১৯৮ ইরিত্রিয়া ১০,১৮৯ ১০৩ ১০,০৮৬
১৯৯ নাইজার ৯,৯৩১ ৩১২ ৮,৮৯০
২০০ অ্যান্টিগুয়া ও বার্বুডা ৯,১০৬ ১৪৬ ৮,৯৫৪
২০১ কমোরস ৮,৯৪১ ১৬১ ৮,৭৫১
২০২ গিনি বিসাউ ৮,৮৪৮ ১৭৬ ৮,৬৪২
২০৩ লাইবেরিয়া ৮,০১৪ ২৯৪ ৭,৭০৫
২০৪ সিয়েরা লিওন ৭,৭৫৮ ১২৬ ৪,৩৯৩
২০৫ চাদ ৭,৬৪১ ১৯৪ ৪,৮৭৪
২০৬ ব্রিটিশ ভার্জিন দ্বীপপুঞ্জ ৭,৩০৫ ৬৪ ২,৬৪৯
২০৭ সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন আইল্যান্ড ৭,১১২ ১১৫ ৬,৬৪১
২০৮ নাউরু ৬,৯৬০ ৪,৬০৯
২০৯ সেন্ট কিটস ও নেভিস ৬,৫৫২ ৪৬ ৬,৪৮২
২১০ টার্কস্ ও কেইকোস আইল্যান্ড ৬,৪৪৬ ৩৬ ৬,৩৯২
২১১ কুক আইল্যান্ড ৬,৩৮৯ ৬,৩৮৪
২১২ পালাও ৫,৬৮৪ ৫,৫৭৬
২১৩ সেন্ট বারথেলিমি ৫,৩৩৬ ৪৬২
২১৪ এ্যাঙ্গুইলা ৩,৯০৪ ১২ ৩,৮৭৯
২১৫ কিরিবাতি ৩,৪৩০ ১৩ ২,৭০৩
২১৬ সেন্ট পিয়ের এন্ড মিকেলন ৩,২৪৮ ২,৪৪৯
২১৭ টুভালু ২,৮০৫
২১৮ ফকল্যান্ড আইল্যান্ড ১,৯৩০ ১,৯৩০
২১৯ সেন্ট হেলেনা ১,৮০৬
২২০ মন্টসেরাট ১,৪০৩ ১,৩৭৬
২২১ ম্যাকাও ৭৯৬ ৭৮৯
২২২ ওয়ালিস ও ফুটুনা ৭৬১ ৪৩৮
২২৩ ডায়মন্ড প্রিন্সেস (প্রমোদ তরী) ৭১২ ১৩ ৬৯৯
২২৪ নিউয়ে ১০৮ ৯৬
২২৫ ভ্যাটিকান সিটি ২৯ ২৯
২২৬ পশ্চিম সাহারা ১০
২২৭ জান্ডাম (জাহাজ)
তথ্যসূত্র: চীনের জাতীয় স্বাস্থ্য কমিশন (সিএনএইচসি) ও অন্যান্য।
পাঠকপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল জাগোনিউজ২৪.কমে লিখতে পারেন আপনিও। লেখার বিষয় ফিচার, ভ্রমণ, লাইফস্টাইল, ক্যারিয়ার, তথ্যপ্রযুক্তি, কৃষি ও প্রকৃতি। আজই আপনার লেখাটি পাঠিয়ে দিন [email protected]om ঠিকানায়।