কোন পথে বাংলাদেশ-চীন সম্পর্ক!

সম্পাদকীয় ডেস্ক সম্পাদকীয় ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮:৫৮ এএম, ১৪ জুন ২০২১

ফারাজী আজমল হোসেন

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেখিয়ে দেয়া পররাষ্ট্র নীতি চর্চা করে আজ সব ক্ষেত্রে উন্নত বাংলাদেশ। ‘সকলের সঙ্গে বন্ধুত্ব, কারো সঙ্গে বৈরিতা নয়’ বঙ্গবন্ধুর এই নীতিকে ধারণ করে বরাবরই বাংলাদেশ থেকেছে জোট নিরপেক্ষ। কিন্তু বাংলাদেশের এই বন্ধুত্বকে দুর্বলতা ভাবা যে উচিত নয়, তা বেশ স্পষ্ট অনুভব করেছে চীন।

কোয়াড ইস্যুতে ১০ মে বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত লি জিমিং কূটনৈতিক প্রতিবেদকদের সংগঠনের সঙ্গে মত বিনিময়কালে বাংলাদেশকে কোয়াডে যোগা দেয়ার বিষয়ে সাবধান করেন। এ বিষয়ে বাংলাদেশ কোন মন্তব্য না করলে নিশ্চিতভাবেই দেশের সার্বভৌমত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠত। সেই সঙ্গে বিশ্বের বুকে দুর্বল রাষ্ট্র হিসেবেও সকলের কাছে পরিচিতি পেতো বাংলাদেশ। কিন্তু সেটি হয়নি। কেননা বাংলাদেশ তার নিজ যোগ্যতা ও শক্তি সম্পর্কে জানে। আর সে কারণেই বাংলাদেশের পক্ষ থেকে কোয়াড নিয়ে যেই মন্তব্য করা হয় তা নিয়ে এক শীতল বাক্য বিনিময় চলে সিনো ও ঢাকার পররাষ্ট্র বিভাগে।

চীনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী উই ফ্যাঙ্গে ঢাকা সফরের পর হঠাৎ করেই লি জিমিং এই সাবধান বাণী উচ্চারণ করেন। উই ফ্যাঙ্গে তার সফরে ভিন্ন অঞ্চলের সামরিক বাহিনীকে দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলে প্রবেশের বিষয়ে নিরুৎসাহিত করার জন্য আলোচনা করেন। এই আলোচনা তিনি শ্রীলংকা ও নেপালেও করেছেন তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

লি জিমিং তার সাবধান বাণীতে বলেছিলো, ' বাংলাদেশের কোয়াডের মত ছোট একটি সংগঠনের সদস্য হওয়া উচিত নয়, কেননা এটি দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের অবনতির কারণ হতে পারে।' কিন্তু বাংলাদেশ বর্তমানে তার শক্তি সম্পর্কে জানে এবং এ কারণেই চীনের রাষ্ট্রদূতের এমন মন্তব্যের তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন। তিনি বলেন, 'সার্বভৌম একটি দেশ হিসেবে বাংলাদেশ তার নিজ দেশের জনগণের কল্যাণের জন্য পররাষ্ট্র নীতি নিজেই ঠিক করবে।' সেই সঙ্গে বাংলাদেশে থাকা বিদেশি কূটনীতিকদের 'কূটনৈতিক শিষ্টাচার ও আচরণের মধ্যে থাকা' এবং 'বিষয়গুলো বিবেচনা করে মন্তব্য করার' আহ্বান জানান তিনি।

চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র হু চুনইয়াং 'কোয়াড' বিষয়ে বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্কশ উক্তি প্রসঙ্গে বলেন, 'আমরা মনে করি এটি প্রতিবেশী রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে চীন বিরোধী মনোভাব তৈরির একটি অপচেষ্টার ফসল। সুতরাং আমরা আশা করছি, আমাদের অবস্থান বেশ স্পষ্ট সকলের কাছে।' তিনি আরো জানান, চীন অন্য দেশের আভ্যন্তরীণ বিষয়ে কখনই হস্তক্ষেপ করে না। তারা অন্যের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ না করার নীতিতে বিশ্বাসী। কোয়াড বিষয়ে আমাদের থেকেও ভালো জানে ভারত, আর কোয়াড গঠনের মূল উদ্দেশ্য কী সেটাও জানে ভারত। এখানে কী শুধু চীনকে বাদ রাখা হচ্ছে, নাকি চীনের বিরুদ্ধে ব্যবহারের জন্য এটি গঠিত হচ্ছে। যদি তাই হয়, তাহলে এ বিষয়ে বক্তব্য দেয়া কোন দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ নয়। এটি মূলত কোয়াডের বিরোধিতা করা এবং এ বিষয়ে সকলকে জানানো ও সাবধান করা।

সুতরাং ঢাকায় চীনের রাষ্ট্রদূত ক্ষমা চাইলেও দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বেশ স্পষ্ট করেই তার বক্তব্যের স্বপক্ষে নিজেদের অবস্থান এবং ভবিষ্যতে এভাবে নাকগলানোর বিষয়টি নিশ্চিত করে নিয়েছে। সুতরাং কোয়াডে শ্রীলংকা যোগ দিলে তাদের ভবিষ্যৎ যে ভালো হবে না, সেই ইঙ্গিত বেশ স্পষ্ট হু চুনইয়াংয়ের বক্তব্যে। আর এখানেই বাংলাদেশের সঙ্গে শ্রীলংকার মূল পার্থক্য। কিন্তু লি জিমিং-এর উক্তি যেই শীতল সম্পর্ক তৈরি করেছে চীনের সঙ্গে, তা উষ্ণ করার জন্যই বাংলাদেশকে ১০ ডলারে করোনার টিকা দিতে রাজি হয় চীন। আমার মন্তব্যের সঙ্গে দ্বিমতপোষণ করতে পারেন, কিন্তু ঘটনা প্রবাহ অনেকটা তেমনি।

বাংলাদেশের থেকেও চীনের কাছে বেশি গুরুত্ব পাওয়ার কথা শ্রীলংকার। কেননা দেশটির সঙ্গে চীনের ঋণ সহায়তার সম্পর্ক রয়েছে যা বাংলাদেশের সঙ্গে নেই। কিন্তু বাংলাদেশকে শ্রীলংকার থেকে ৫ ডলার কম মূল্যে ১০ ডলারে সিনোফার্মার টিকা বিক্রির প্রস্তাবে রাজি হয় চীন। সম্প্রতি টিকার মূল্য প্রকাশিত হবার পর নতুন করে যা শোনা যাচ্ছে তা হলো, এরপর আর ১০ ডলারে টিকা দেবে না চীন। আর এ বিষয়কে কেন্দ্র করে আবারো সম্পর্কে ভাটা পড়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে চীন-বাংলাদেশের।

বাংলাদেশের মত গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থায় জনগণের অর্থ কোন খাতে খরচ হচ্ছে তা জানার অধিকার রয়েছে সকলের। আর সে কারণেই বাংলাদেশকে এই কঠিন শর্ত দেয়ার পূর্বে বিষয়টি চীনের আরো ভালো ভাবে বিবেচনা করে দেখা উচিত ছিলো। এদিকে বাংলাদেশে চীনের টিকা স্বল্পমূল্যে দেয়া নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়ে গেছে শ্রীলঙ্কায়। দেশটির বিরোধীদলীয় নেতা ড. হারসা দে সিলভা বলেছেন, বাংলাদেশের তুলনায় শ্রীলংকা যে মূল্যে চীন থেকে টিকা নিচ্ছে, তাতে আমাদের ১৪ বিলিয়ন ডলার বেশি খরচ হবে। 'আমাদের বন্ধু হিসেবে চীন পরবর্তী চালানে টিকার মূল্য কমাতে পারেনা?'- এমন প্রশ্ন করেছেন তিনি টুইটারে।

তবে শ্রীলংকা যে চীনের প্রকৃত বন্ধু তা প্রমাণ করেছেন রাজাপাকসের সরকার। বাংলাদেশের সরকারি দফতর থেকে টিকার মূল্য নিয়ে তথ্য জানাবার পরও শ্রীলংকার বর্তমান সরকার দাবি করেছে, ১০ ডলারে টিকা গ্রহণের বিষয়ে চীনের সঙ্গে বাংলাদেশের এমন কোন চুক্তিই হয়নি, বরং সম্পন্ন হওয়ার পথে রয়েছে। তারা সেটাই বলেছে যা কলোম্বোর চীন অ্যাম্বাসি থেকে বলা হয়েছে।

অবশ্য তাতে চীন বিরোধী ক্ষোভ তেমন একটা কমেনি শ্রীলংকায়। উল্টো সেখানে এ বিষয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়ে শ্রীলংকার সাধারণ মানুষ লিখছে, শ্রীলংকার বন্ধু (!) চীন এতদিন যাবৎ যা অর্থ সহায়তা করেছে তা বেশি দামে টিকা সরবরাহের মাধ্যমে উসুল করে নিচ্ছে। শ্রীলংকার জনগণের এমন আস্ফালনে অবশ্য খুব একটা বিচলিত নয় বেইজিং। কেননা এরই মধ্যে শ্রীলংকায় ৩.২ মিলিয়ন সিনোফার্মার ডোজ সরবরাহ করেছে দেশটি। বিনিময়ে শ্রীলংকার উত্তর প্রদেশে উইন্ডমিল প্রকল্প নিজেদের করে নিতে চায় চীন।

চীন বাংলাদেশকে স্বল্প মূল্যে টিকা সরবরাহ করছে এমন তথ্য বারবার সামনে এলেও ভেতরকার তথ্যটা এখনো জানে না অনেকে। চীনের সিনোফার্মার টিকার মূল্য ভারতের অ্যাস্ট্রাজেনিক (কোভিশিল্ড) টিকার থেকে বেশি। অ্যাস্ট্রাজেনিকের প্রতিটি ডোজের মূল্য ৫.৫ ডলার। সেই সঙ্গে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) মতে অ্যাস্ট্রাজেনিকের টিকা সিনোফার্মের টিকার থেকে অনেক বেশি কার্যকর। মধ্যপ্রাচ্যে সিনোফার্মার টিকার তৃতীয় ও চতুর্থ ধাপ পর্যন্ত ব্যবহার করতে হচ্ছে, যেখানে অ্যাস্ট্রাজেনিকের টিকা দুই ডোজেই কাজ করছে। এ অবস্থায় সিনোফার্মার টিকার প্রকৃত ব্যয় কয়েকগুণ হতে পারে বলে ধারণা করছেন অনেকে। সেই সঙ্গে তাদের টিকার ওপর নির্ভর করেও থাকতে হতে পারে।

আরেকটি সমস্যা হচ্ছে চীনের ভ্যাকসিন অনেক দেশেই স্বীকৃতি পাচ্ছে না। এবার সৌদিতে হজ পালনের জন্য জনসন অ্যান্ড জনসন, ফাইজার, অ্যাস্ট্রাজেনিকাসহ আরো বেশ কিছু টিকা গ্রহণকারীদের অনুমোদন দিয়েছে সৌদি সরকার। কিন্তু চীনের ভ্যাকসিন গ্রহণকারীদের সেই অনুমোদন দেয়া হয়নি। বিষয়টি নিয়ে বর্তমানে দারুণ বিপাকে রয়েছে পাকিস্তান। তারপরও বাংলাদেশকে স্বল্প মূল্যে টিকা দেয়ার কথা বলে সম্পর্ক উন্নয়নের যেই চেষ্টা করা হয়েছে তা শেষ পর্যন্ত সফল হচ্ছে না।

প্রাথমিকভাবে কলোম্বোর চায়না অ্যাম্বাসি ঢাকার কাছে ১০ ডলারে টিকা বিক্রির বিষয়টিকে 'ভুয়া খবর' বলে চালিয়েছে। কিন্তু এখন বাংলাদেশের সরকারি কর্মকর্তারা জানাচ্ছে যে, চীন এই তথ্য প্রকাশে বিরাগভাজন হয়েছে। টিকার মূল্য নিয়ে খবর প্রকাশের পর বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন জানান, সিনোফার্মার টিকার মূল্য প্রকাশ হওয়ায় কিছুটা অখুশি চীন। তিনি বাংলাদেশের অবস্থান পরিষ্কার করতে আরো স্পষ্ট করে জানান যে, ভবিষ্যতে বাংলাদেশ আর এই মূল্যে টিকা পাবে না চীনের কাছ থেকে।

চীন বাংলাদেশকে এমন এক তথ্য গোপন রাখতে বলেছে যা গোপন রাখা সত্যিকার অর্থেই বাংলাদেশের মত গণতান্ত্রিক এক দেশের পক্ষে কষ্টকর। আর সে কারণেই এই শর্তের মাধ্যমে আসলে বাংলাদেশের সঙ্গে এক ধরনের ছলনার আশ্রয় নিয়েছে চীন। স্বল্পমূল্যে টিকা সরবরাহে তাদের দেয়া শর্ত নিয়ে প্রশ্ন ওঠা খুব অস্বাভাবিক নয়। কেননা বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক উষ্ণ করার উদ্দেশ্যেই যদি স্বল্প মূল্যে টিকা সরবরাহ করে চীন, তাহলে বিষয়টি স্পষ্ট করে তারা বললেই হতো যে, এই মূল্য শুধু বাংলাদেশের জন্য। কিন্তু সেটি না করে লুকোচুরির মাধ্যমে টিকা সরবরাহ এক ধরনের ছলনার আশ্রয় ছাড়া আর কী?

চীন শ্রীলংকাকে ঋণ, ব্যবসায়িক সুবিধা এবং উপহার প্রদানের মাধ্যমে নিজেদের অবস্থান দৃঢ় করেছে। আর বিনিময়ে দেশটির একটি বন্দরকে ৯৯ বছরের জন্য নিজেদের করে নিয়েছে। শ্রীলংকা ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হবার পর হাম্বানতোতা বন্দর নিজেদের করে নিয়েছে চীন। আর দেশের নিজস্ব এই সমস্যা কাটিয়ে উঠতে ব্যর্থ হয়ে দক্ষিণ এশিয়ায় বড় ধরণের ভূ-রাজনৈতিক সংকট সৃষ্টি করেছে শ্রীলংকা। যুক্তরাষ্ট্রের ভাষ্যমতে, দক্ষিণ এশিয়ার 'শিকারি' রাষ্ট্র চীন, যারা এই অঞ্চলের সকল উন্নয়ন কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ করছে। চীনের সঙ্গে সম্পর্কের মাধ্যমে যেই ভূ-রাজনৈতিক সংকট শ্রীলংকা তাদের নিজেদের জন্য তৈরি করেছে, তা বিশ্বের কাছে অজানা নয় এবং এ কারণে চীনের সহায়তা নেয়ার ক্ষেত্রে বেশ সচেতনভাবেই নিজ পথ বেছে নিয়েছে বাংলাদেশ।

যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, জাপান ও অস্ট্রেলিয়াকে নিয়ে গঠিত (আরো অনেক দেশকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে) কোয়াড নিয়ে দারুণ দুশ্চিন্তায় রয়েছে চীন। আর সে কারণেই তার সঙ্গে উন্নয়ন কার্যক্রমে জড়িত দেশগুলোকে কোয়াডে যোগ না দেয়ার জন্য বলছে দেশটি। এমনকি কোয়াডে যোগ দিলে চীনের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হতে পারে বলেও দেশগুলোকে হুমকি দেয়া হচ্ছে।

চীন তার 'পার্ল ট্রেড' নীতি নেপাল থেকে শুরু করে শ্রীলংকা পর্যন্ত চালিয়ে যাচ্ছে। মধ্যখান থেকে বাদ থাকছে ভারত। আর চীনের এই নীতিমালায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় রয়েছে বাংলাদেশ। কেননা এখান থেকে আরব সাগর পর্যন্ত যোগাযোগ রক্ষা করা সম্ভব। ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের কিছু ক্ষেত্রে দ্বিমত থাকলেও দুদেশের মধ্যকার সম্পর্ক বেশ আন্তরিক। আর এ বিষয়টিকে মোটেও ভালোভাবে দেখছে না চীন।

চীনের থেকে ঋণ নিতে রাজি না হওয়ার পরও বিগত এক বছরে বাংলাদেশকে দশ হাজার টেস্টিং কিট, দশ হাজার সুরক্ষা সামগ্রী (পিপিই) এবং ১ হাজার থার্মাল স্ক্যানার প্রদান করেছে চীন। বাংলাদেশ কোভিড-১৯ পরিস্থিতি মোকাবেলায় এই উপহার গ্রহণ করলেও বেশ কৌশলে চীনের 'বেল্ট অ্যান্ড রোড' প্রকল্পকে নাকচ করেছে। বাংলাদেশে দৃঢ় নেতৃত্বের অধিকারী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমগ্র দক্ষিণ এশিয়াকে সংযুক্ত করে এমন এক বড় প্রকল্পে নিজেদের যুক্ত রাখতে চান যা চীনের 'বেল্ট অ্যান্ড রোড' প্রকল্পের মাধ্যমে সম্ভব নয়। আর সে কারণেই চীনের আর্থিক সহায়তা প্রস্তাবগুলো গ্রহণ করেনি বাংলাদেশ। নেপাল, শ্রীলংকা এবং মালদ্বীপ চীনের যেই নীতির শিকারে পরিণত হয়েছে, তা থেকে বাংলাদেশকে রক্ষা করতেই চীনের কাছ থেকে দ্রব্য সামগ্রী বা প্রযুক্তিগত সহায়তা নিলেও আর্থিক কোন সহায়তা নিতে রাজি হয়নি বাংলাদেশ। বরং বাংলাদেশ তার নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতুর মত বড় প্রকল্পের কাজগুলো সম্পাদন করছে। এই জন্য বাংলাদেশ বেছে নিয়েছে পাবলিক-প্রাইভেট পার্টনারশিপ (পিপিপি) কার্যক্রম।

২০১৬ সালে বাংলাদেশে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সফরের সময় বেশ কিছু সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। কিন্তু চীন থেকে ঋণ নেয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ বেশ সাবধান থেকেছে। সেই সঙ্গে বাংলাদেশে চীনের বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নমূলক কার্যক্রম বাতিলের পাশাপাশি চীনের বেশ কিছু ফার্মকে কালো তালিকাভুক্ত করা হয়েছে যার খবর দেশের জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে।

বিপদগ্রস্ত দেশগুলোর সঙ্গে চীনের 'ভ্যাকসিন কূটনীতি' যেভাবে কাজ করেছে, বাংলাদেশের ক্ষেত্রে তা হীতে বিপরীত হতে পারে। বাংলাদেশ বাস্তবিক অবস্থা বিবেচনায় রেখে তার নীতি নির্ধারণ করছে। নিরপেক্ষ অবস্থানে থেকে এতদিন পরিচালিত হয়েছে বাংলাদেশ, যার সুফলও ভোগ করছি আমরা। ঢাকা শ্রীলংকাকে ২০০ মিলিয়ন ডলার ঋণ সহায়তা দিচ্ছে, যা স্পষ্টতই বলছে যে বাংলাদেশ অর্থনৈতিকভাবে কিভাবে এগিয়ে যাচ্ছে। আমাদের জিডিপি বর্তমানে ৮৫ বিলিয়ন, যেখানে কলম্বোর বর্তমান জিডিপি মাত্র ৩ বিলিয়ন।

চীনের ঋণের বেড়াজাল থেকে যখন শ্রীলংকা মুক্তি পাবে, ততদিনে বাংলাদেশ বহুদূর এগিয়ে যাবে। কারণ ঢাকা তার পররাষ্ট্র নীতি বাস্তবতার নিরিখে তৈরি করে এগিয়ে গেছে। ঢাকা জানে, কোনো দেশের মুঠোর মধ্যে না থেকেও উন্নয়ন করা সম্ভব। বরং শ্রীলংকার এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশের থেকে কিছু শিক্ষা গ্রহণ করা উচিত।

আর ‘কোয়াড’ নিয়ে বাংলাদেশকে চাপে রাখতে ঢাকায় চীনের রাষ্ট্রদূত মন্তব্য করছে, সেই বিষয়টি বর্তমানে স্পষ্ট। বিষয়টি নিয়ে দুই দেশের মধ্যে শীতল যেই বাক্য বিনিময় হয়েছে, তা চীনের ‘টিকা রাজনীতি’দিয়েও উষ্ণ করা সম্ভব হয়নি। দেখার বিষয় হলো বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্ক উন্নয়নে এবার কোন নীতির আশ্রয় নেয় চীন।

লেখক : সিনিয়র সাংবাদিক ও কলাম লেখক।

এইচআর/জেআইএম

চীনের ঋণের বেড়াজাল থেকে যখন শ্রীলংকা মুক্তি পাবে, ততদিনে বাংলাদেশ বহুদূর এগিয়ে যাবে। কারণ ঢাকা তার পররাষ্ট্র নীতি বাস্তবতার নিরিখে তৈরি করে এগিয়ে গেছে। ঢাকা জানে, কোনো দেশের মুঠোর মধ্যে না থেকেও উন্নয়ন করা সম্ভব। বরং শ্রীলংকার এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশের থেকে কিছু শিক্ষা গ্রহণ করা উচিত।

করোনা ভাইরাসের কারণে বদলে গেছে আমাদের জীবন। আনন্দ-বেদনায়, সংকটে, উৎকণ্ঠায় কাটছে সময়। আপনার সময় কাটছে কিভাবে? লিখতে পারেন জাগো নিউজে। আজই পাঠিয়ে দিন - [email protected]