আন্দোলনের মুখেই নির্বাচনে যেতে হবে : ফখরুল

নিজস্ব প্রতিবেদক
নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১২:০৫ পিএম, ২৭ নভেম্বর ২০১৭ | আপডেট: ০২:০০ পিএম, ২৭ নভেম্বর ২০১৭
আন্দোলনের মুখেই নির্বাচনে যেতে হবে : ফখরুল

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্য করে বলেছেন, 'আমাদেরকে ঐক্য সৃষ্টি করতে হবে। সংগঠন সৃষ্টি করতে হবে। আন্দোলনের মুখেই আমাদের নির্বাচনে যেতে হবে এবং তাতে জয়লাভ করতে হবে।'

সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর রমনাস্থ ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের আইইবি মিলনায়তনে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের ৫৩ তম জন্মদিন উপলক্ষে আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি সভাটির আয়োজন করে।

মির্জা ফখরুল বলেন, 'তারেক রহমান এমনি এমনি বিদেশে নেই। নির্যাতিত হয়ে, মিথ্যা মামলায় জর্জরিত হয়ে নির্বাসিত। সরকার তাকে আসতে দিচ্ছে না। আজকে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অসংখ্য মিথ্যা মামলা। চিন্তা করা যায়? যে নেত্রী ৯ বছর গণতন্ত্রের জন্য লড়াই করছেন। তিন তিনবার প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন। সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী তিনি। যিনি রাস্তায় নামলে লাখ লাখ মানুষ রাস্তায় নেমে আসে। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা দিয়েছেন! প্রধানমন্ত্রী বললেন, তিনি (খালেদা জিয়া) নাকি এতিমখানার তহবিলের টাকা আত্মসাৎ করেছেন। সেখানে যে টাকা আগে ছিল, এখন তো ডাবল হয়েছে।'

উনি কিছুই জানেন না, কোথাও সই করেননি, সাক্ষর করেননি তার বিরুদ্ধে মামলা। ওই মামলার প্রথম যে তদন্ত কর্মকর্তা ছিলেন তিনি তদন্ত রিপোর্ট দিয়েছিলেন বেগম খালেদা জিয়া এর সঙ্গে কোনো সম্পৃক্ততা নেই। ওই তদন্ত কর্মকর্তাকে বদলে দিয়ে আরেকজনকে নিয়ে আসা হল। যার চাকরি চলে গিয়েছিল। ঠিক একই রকম হয়েছে তারেক রহমানের ক্ষেত্রে। এভাবে চক্রান্ত করে জাতীয়তাবাদের দর্শনে বিশ্বাসী মানুষকে আপনি (প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা) নিশ্চিন্ন করে দিতে চান, তা কখনোই পারবেন না।

তিনি আরও বলেন, 'আমরা কঠিন সময় অতিক্রম করছি। পাথরের মতো এ সরকার চেপে বসে আছে। এ পাথর সরাতে হবে। আপনারা (নেতাকর্মীরা) অলিতে-গলিতে, ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে ছড়িয়ে পড়ুন। বসে বসে উত্তর-দক্ষিণ, পূর্ব-পশ্চিম স্লোগান দিলে হবে না। বেগম জিয়াকে প্রধানমন্ত্রী আর তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে পারলে তবেই সফল হব।

একই আলোচনা সভায় বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, 'দেশের রাজনীতিতে একজন বয়াতির আবিভার্ব হয়েছে। তিনি হলেন ওবায়দুল কাদের (আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক)। তিনি গান গেয়ে যাচ্ছেন। মানুষ শুনছে কি শুনছে না, তা দেখছে না। তিনি বলেছেন, বিএনপির খাদের কিনারে দাঁড়িয়ে আছে। আমি বলতে চাই, আপনারা কিসের কিনারে? ফুলের বাগানের কিনারে? যেখানে পড়লে শিউলি, বেলি ফুলের ওপর পড়বেন?
না তা নয়। আপনাদের একটা ছোট ধাক্কা লাগলে সিটি কর্পোরেশনের বর্জের ভাগাড়ে পড়ে যাবেন, যেখান থেকে আর উঠতে পারবেন না।'

প্রধানমন্ত্রী সমালোচনা রিজভী বলেন, 'ইতিহাসে দু'ধরনের নাম থাকে নায়ক আর খলনায়ক। তবে আপনার (প্রধানমন্ত্রী) নাম থাকবে ফেরাউন, এজিদ, হিটলার, মীর জাফরের নামের পাশে। আপনি কত গুম, খুন, অপহরণ, মায়ের কোল খালি করেছেন, তার জন্য আপনার নাম ইতিহাসের খলনায়কদের পাশে থাকবে।

ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপি'র সাধারণ সম্পাদক আহ্সান উল্লাহ হাসানের সঞ্চালনায় এবং সিনিয়র সহ-সভাপতি মুন্সি বজলুল বাসিদ আঞ্জু'র সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক আবুল বাশার প্রমুখ।

এমএম/জেএইচ/আরআইপি/আইআই