সরকার ও সংসদ অবৈধ : খালেদা জিয়া


প্রকাশিত: ১১:৪৭ এএম, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৪

বিনা ভোটে নির্বাচিত বর্তমান সরকার ও সংসদ অবৈধ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। শনিবার জামালপুর জিলা স্কুল মাঠে আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, জনগণের ক্ষমতা ভূলুণ্ঠিত করে সরকার অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে আছে। জনগণের ভোট ছাড়াই এ সংসদে স্পিকারসহ ১৫৪ জন বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত। এমনকি গৃহপালিত বিরোধী দলও বিনা ভোটে নির্বাচিত। তাই এ সংসদ অবৈধ এবং সরকারও অবৈধ।

খালেদা জিয়া বলেন, আমেরিকায় গিয়ে শেখ হাসিনা বলছেন, আমরা (বিএনপি) ভোটে না গিয়ে ভুল করেছি। আমরা ভোটে না গিয়ে কোন ভুল করিনি। আমরা জনগণের সঙ্গে আছি। জনগণকে সাথে নিয়েই আমরা অবৈধ সরকারকে উৎখাত করবো। যারা ভোট চুরি করে অবৈধভাবে ক্ষমতায় এসেছে তাদের কাফফারা দিতে হবে।

র‌্যাবের সমালোচনা করে খালেদা জিয়া বলেন, র‌্যাব খুনি সন্ত্রাসী বাহিনীতে পরিণত হয়েছে। তাই অবিলম্বে র‌্যাব বাতিল করতে হবে। এরা থাকলে কারো জীবন নিরাপদ নয়।

র‌্যাবের কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্য করে তিনি আরও বলেন, যাদের হত্যা-গুম করছেন তারা আপনাদেরও আত্মীয়স্বজন। তাই কেউ যদি আপনাদের অন্যায় আদেশ দেয় তা পালন করবেন না।

 

খালেদা জিয়া বলেন, জনগণের দল বিএনপি। আওয়ামী লীগ এই দলকে ভয় পায়। তাই আলোচনায় বসতে চায় না। তারা জোর করে ক্ষমতায় থাকতে চায়। এভাবে সরকার চলে না। যদু-মধুকে দিয়ে সরকার চলতে পারে না।

দেশের বর্তমান ‘রাজনৈতিক সমস্যা নিরসনে’ বিএনপির সঙ্গেই আলোচনায় বসতে হবে বলে দাবি করেন খালেদা জিয়া।

 

তিনি বলেন, দেশের সব বিভাগ আজ হাসিনার অধীনে। বিচার বিভাগ, মিডিয়া হাসিনার পকেটে। প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী সব তাঁর পকেটে।

খালেদা জিয়া বলেন, বিএনপি বাংলাদেশের সর্ববৃহৎ দল। চোর-চোট্টা নিয়ে বিদেশ গিয়ে লাভ হবে না। ৮৬ সালে এরশাদের সঙ্গে নির্বাচন করে আওয়ামী লীগ জাতীয় বেইমান হয়েছে। আলোচনায় বসতে হলে বিএনপির সঙ্গে বসতে হবে। বিএনপিকে ভয় পায় তাই তারা আলোচনায় বসতে চায় না।

 

তিনি আরও বলেন, বিএনপিকে বাদ দিয়ে কোনো নির্বাচন হবে না। যদিও ষড়যন্ত্র চলছে। যদু-মধুদের দিয়ে কিছু হয় না, চোর-চোট্টাদের দিয়ে কিছু হবে না। বিএনপির সঙ্গে আলোচনায় বসতে হবে।

আপনার মতামত লিখুন :