রাজিয়া আলীম গ্রেফতার : ৪৮ ঘণ্টা পর ঘুম ভাঙল আফরোজা-সোহেলদের

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৭:৩২ পিএম, ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ঢাকা মহানগর জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি রাজিয়া আলীমকে গ্রেফতারের ৪৮ ঘণ্টা পর গণমাধ্যমে প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি আফরোজা আব্বাস, সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল এবং সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার। এত দেরিতে প্রতিবাদ বিবৃতি দেয়ায় বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে চাপ ক্ষোভ বিরাজ করছে।

কেন্দ্রীয় মহিলা দলের গুরুত্বপূর্ণ সাবেক একজন নেতা জাগো নিউজকে বলেন, ‘বুধবার (১১ সেপ্টেম্বর) বেলা আড়াইটার দিকে রাজিয়া আলীমকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে তার মেয়ে ঐশীর বরাত দিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শামসুদ্দিন দিদার গণমাধ্যমে খবর দিয়েছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরের দিকে আমাদের নেতারা প্রতিবাদ জানিয়েছেন। জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের কেন্দ্রীয় কমিটি আর ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির কমিটি যাদের দিয়ে গঠন করা হয়েছে, তাদের থেকে যে অন্তত একটা বিবৃতি পাওয়া গেছে, দলের কর্মীর জন্য এটাই অনেক বেশি।’

তিনি বলেন, ‘সরকার বিএনপির সব গণতান্ত্রিক কর্মসূচিতে বাধা দেয়, এ কারণে রাজিয়া আলীম গ্রেফতারের পর যারা বিবৃতি দিয়েছেন, তারা সরকারের কাছ থেকে অনুমতি নিয়েছেন। অনুমতি প্রক্রিয়ার জন্য হয়তো তারা একটু দেরি করে বিবৃতি দিয়েছেন।’

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সাধারণ সম্পাদকপ্রত্যাশী এক নেতা বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করে মহিলা দলের নেতৃত্ব এবং ঢাকা মহানগর বিএনপি নেতারা একটু ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলেন। ক্লান্ত হলে মানুষের ঘুমে ধরবে এটাই স্বাভাবিক। ঘুম থেকে উঠে দেখেন একজন নেত্রীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিবাদ হচ্ছে, তারা প্রতিবাদ না জানালে কেমন হয়? তাই তারা ঘুম থেকে উঠে প্রতিবাদ জানিয়েছেন।’

রাজিয়া আলীমকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ জানিয়ে বৃহস্পতিবার বেলা ১টা ৩৬ মিনিটে কেন্দ্রীয় মহিলা দলের সভাপতি আফরোজা আব্বাস ও সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ গণমাধ্যমে বিবৃতি দেন।

তারা বলেন, ‘রাজিয়া আলীম সরকারের রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার বলেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমরা রাজিয়া আলীমের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারসহ অবিলম্বে তার নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি জানাচ্ছি।’

অপরদিকে দুপুর ২টা ৩৯ মিনিটে ঢাকা মহানগর বিএনপি সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেল ও সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার এক বিবৃতিতে বলেন, ‘সারাদেশে এখন আইনের শাসনের পরিবর্তে আওয়ামী বর্বর শাসন চলছে। মানুষের জানমালের নিরাপত্তা নেই। বর্তমান অবৈধ সরকার পুলিশ বাহিনী দিয়ে বিএনপিসহ বিরোধীদলীয় নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের মাধ্যমে কারান্তরীণ করাকে প্রতিদিনের কর্মসূচিতে পরিণত করেছে। এক্ষেত্রে নারী নেত্রীদেরও বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া হচ্ছে না, তাদেরও গ্রেফতার ও কারাগারে নিক্ষেপ করে প্রতিহিংসা চরিতার্থ করছে সরকার।’

তারা বলেন, ‘দেশ থেকে গণতন্ত্র এবং মানুষের বাক্-ব্যক্তি স্বাধীনতা হরণ করা হয়েছে। এই অবর্ণনীয় দুঃশাসন থেকে বাঁচতে হলে দলমত-নির্বিশেষে সকলকে ঐক্যবদ্ধভাবে রুখে দাঁড়ানো ছাড়া গত্যন্তর নেই। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের সভাপতি রাজিয়া আলীম রাজনৈতিক প্রতিহিংসার শিকার বলেই তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আমরা তার বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার ও অবিলম্বে নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি জানাচ্ছি।’

এর আগে বুধবার পুরান ঢাকার নয়াবাজারের বাগডাসা লেনের বাসা থেকে বংশাল থানা পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

পুলিশ জানায়, ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বর মাসে রাজিয়ার বিরুদ্ধে বিস্ফোরকদ্রব্য আইনে একটি মামলা করা হয়। চলতি বছরের জুন মাসে তার বিরুদ্ধে এই মামলায় চার্জশিট দেয় পুলিশ। চার্জশিট দেয়ার পর থেকে তিনি পলাতক ছিলেন।

গ্রেফতারের পর রাজিয়া আলীমকে গতকালই আদালতে হাজির করে বংশাল থানা পুলিশ। এ সময় তার আইনজীবী জামিনের আবেদন করেন। ঢাকা মহানগর হাকিম ধীমান চন্দ্র মণ্ডল শুনানির জন্য আজকের দিন ধার্য করেন। আজ শুনানি শেষে তার জামিন আবেদন নামঞ্জুর করেন আদালত

কেএইচ/এসআর/পিআর