ছেলে হত্যার বিচার চান কুয়েত প্রবাসী সফিকুল

সাদেক রিপন
সাদেক রিপন সাদেক রিপন , কুয়েত প্রতিনিধি
প্রকাশিত: ০৭:০৬ পিএম, ২০ জানুয়ারি ২০১৯

বিদ্যালয়ে ভর্তি হয়ে নতুন বই হাতে বড় বোনের হাত ধরে মাত্র দুই দিন স্কুলে যাওয়ার সুযোগ হয় কুয়েত প্রবাসী শফিকুল ইসলামের ছেলে হাবিবুল বাসার ফয়সালের (৫)। সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারাবাজার উপজেলার বাংলাবাজার ইউনিয়নের আইডিয়াল স্কুলের নার্সারিতে ভর্তি হয় সে। দুই দিন স্কুলে যাওয়ার পর গত ৪ জানুয়ারি সকালে খেলাধুলা করতে গিয়ে নিখোঁজ হয় শিশুটি।

আশপাশে খোঁজাখুজির পর সন্ধান না পাওয়ায় ওইদিন দোয়ারাবাজার থানায় একটি নিখোঁজ সংক্রান্ত সাধারণ ডায়েরি করেন ফয়সালের দাদা আবুল বাসার। ৭ জানুয়ারি ভোরে বড়খাল গ্রামের মরাচেলা নদীর পূর্বপাড়ে একটি শিশুর লাশ দেখতে পায় এলাকাবাসী। খবর পেয়ে ফয়সালের পরিবারের সদস্যরা সেখানে ছুটে যায়। গিয়ে দেখতে পায় সবুজ গাসের উপর পড়ে আছে ফয়সালের প্রাণহীন নিথর দেহ।

দোয়ারাবাজার থানা পুলিশ এসে লাশ উদ্ধার করে। ফয়সালে মা মনিরা আক্তর বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ও হত্যা মামলা নম্বর ৫ ০৮/০১/১৯ দায়ের করেন।

ফয়সালের বাবা কুয়েত প্রবাসী সফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমি দীর্ঘ ১৯ বছর প্রবাসে আছি। ছুটিতে দেশে গিয়ে ২৫ ডিসেম্বর আবার কুয়েতে ফিরে আসি। আসার পর ৪ জানুয়ারি আমার একমাত্র ছেলেকে অপহরণ করা হয়। এরপর তাকে হত্যা করা হয়। বাংলাদেশ সরকারের কাছে আমার একটাই দাবি, প্রবাসীদের পরিবারের জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা হোক। সেই সঙ্গে সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে আমার নিষ্পাপ ছেলের খুনিদের খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হোক।’

এ বিষয়ে দোয়ারাবাজার থানার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আবু বক্কর সিদ্দিক বলেন, এ মামলায় সন্দেহভাজন শাহ আলম (২২) নামে একজনকে আটক করা হয়েছে। মামলার তদন্ত চলছে। হত্যায় জড়িতরা ছাড় পাবে না।

এনডিএস/জেআইএম

প্রবাস জীবনের অভিজ্ঞতা, ভ্রমণ, গল্প-আড্ডা, আনন্দ-বেদনা, অনুভূতি, স্বদেশের স্মৃতিচারণ, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক লেখা পাঠাতে পারেন। ছবিসহ লেখা পাঠানোর ঠিকানা - jagofeature@gmail.com

আপনার মতামত লিখুন :