মুক্তিযুদ্ধে সিলেটের নারীদের ভূমিকা ছিল অনন্য


প্রকাশিত: ০৯:৪১ এএম, ০৯ ডিসেম্বর ২০১৫

মুক্তিযুদ্ধ বাঙালি জাতির জীবনে এক অবিস্মরণীয় ঘটনা। দীর্ঘ ৯ মাসের রক্তক্ষয়ী সংগ্রামের পর আমরা অর্জন করি লাল সবুজের পতাকা, স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ। মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ মানুষ প্রাণ দিয়েছেন, সম্ভ্রম হারিয়েছেন ২ লাখ মা বোন। যুদ্ধে পুরুষের পাশাপাশি সিলেট অঞ্চলের নারীরাও অংশ নিয়েছেন। নানাভাবে তাদের অংশগ্রহণ মুক্তিযুদ্ধকে করেছিল বেগবান।

নারীদের কেউ অস্ত্র হাতে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন শত্রুর ওপর, আবার কেউ কেউ পালন করেছিলেন সেদিন সংগঠকের ভূমিকা। পাক হায়েনাদের লালসার শিকার হয়েছেন সিলেটের জকিগঞ্জের এশনু বেগমসহ অসংখ্য নারী। সেই সঙ্গে শত্রুর হাতে ঝরেছে তাদের প্রাণ। কিশোরী, তরুণী, যুবতী, বৃদ্ধা কেউই রেহাই পাননি বর্বরদের হাত থেকে।

দেশের অন্যান্য অঞ্চলের মতো সিলেটের নারীরাও রাজপথে ছিলেন সক্রিয়। মুক্তিকামী সাধারণ মানুষকে উজ্জীবিত করতে অনুপ্রেরণা যোগাতে মিছিলের অগ্রভাগে থেকে তারা স্লোগানে স্লোগানে প্রকম্পিত করেছিলেন রাজপথ। উত্তাল মার্চে সিলেটে যে ক’টি মিছিল সমাবেশ হয়েছিল তার প্রতিটিতেই নারীদের উপস্থিতি ছিল উল্লেখ করার মতো।

নারীরা শুধু পুরুষের কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে অংশগ্রহণই করেননি নিজেরাও নানা কর্মসূচি পালন করেন পরাধীনতার শৃঙ্খল ভাঙার আন্দোলনে। অগ্নিগর্ভ মার্চে মিছিল সভা সমাবেশ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান সবকিছুতেই নারীর অংশগ্রহণ স্বাধীনতা আন্দোলনে নতুন মাত্রা যোগ করেছিল।

সিলেটে স্বাধীনতা অর্জন পর্যন্ত যে সব নারী অক্লান্ত পরিশ্রম করে মুক্তিযুদ্ধে অসামান্য অবদান রেখেছেন তাদের মধ্যে কাকন বিবি বীরপ্রতীক, জোবায়দা খাতুন চৌধুরী, সিরাজুন্নেছা চৌধুরী, সুহাসিনী দাশ, প্রীতিরানী দাশ পুরকায়স্ত, হেনা দাশ, ঊষা দাশ পুরকায়স্ত, ষোড়শী চক্রবর্তী, আলম রওশন চৌধুরী, দীপালি চক্রবর্তী, ফাহমিদা রশীদ চৌধুরী, খোদেজা কিবরিয়া, আবেদা চৌধুরী, সৈয়দা জেবুন্নেছা হক, ফাতেমা চৌধুরী, জাহানারা আফসার, রায়হানা শফি, নিবেদিতা দাশ পুরকায়স্ত, রত্না চক্রবর্তী, নিবেদিতা দাশ, রাখি দাশ পুরকায়স্তের নাম বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য।

মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক এসব মহিয়সী নারী দেশ গঠনেও ভূমিকা রাখেন। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য বর্তমান প্রজন্মের অনেকেই জানে না এইসব নারীদের বীরত্বগাঁথা। মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক ও মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়া এসব নারীর দু-একজন ছাড়া কেউই এখন আর জীবিত নেই।

মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সিলেট জেলা ইউনিট কমান্ডের কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল মুক্তিযুদ্ধে সিলেটের নারীদের অনন্য ভূমিকা ছিল উল্লেখ করে জাগো নিউজকে বলেন, অর্পণা দেবী, রাকি দাশ পুরকায়স্থসহ সিলেটের বেশ কয়েকজন নারী মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসায় প্রতিষ্ঠিত হাসপাতালে নার্সের দায়িত্ব পালন করেছেন। আবার সিলেটের কৃতি নারী নেত্রী হেনা দাশসহ বেশ কয়েকজন ঢাকায় নেতৃত্ব দিয়েছেন। এসব নারীদের নাম মুক্তিবার্তার বইয়েও রয়েছে। তাদের সর্ম্পকে নতুন প্রজন্মকে জানাতে হবে।

এসএস/এমএস

আপনার মতামত লিখুন :